অনিয়ম ও লুটপাটের নিরাপদ স্থান টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতাল

প্রকাশিত : ৩ ডিসেম্বর, ২০১৬
গণবিপ্লব
রিপোর্ট

গণবিপ্লব রিপোর্ট:

tangail
টাঙ্গাইল ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে চলছে অনিয়ম, লুটপাট ও দালালদের মাধ্যমে। সরকারি সব সুবিধা গ্রহণ করলেও নার্স ও দালালদের দৌরাত্ম্যের কারণেও প্রতিনিয়ত হয়রানির শিকার হচ্ছেন রোগীসহ তাদের স্বজনরা। সে জন্য হাসপাতালের নার্সদের বিরুদ্ধেও রয়েছে দায়সারা দায়িত্ব পালন আর রোগী ও তাদের স্বজনদের সঙ্গে অসৌজন্যমূলক আচরণের অভিযোগ। এতে দিন দিন এ হাসপাতালের চিকিৎসাসেবা ভেঙে পড়ছে।
অভিযোগ উঠেছে, ৪নং ওয়ার্ডের ইনচার্জ সিনিয়র নার্স ঝর্ণা আক্তারের বিরুদ্ধে। তিনি ১ নং ওয়ার্ডে থাকাকালীন তাঁর বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগ উঠে। পরে তাঁকে ৪ নং ওয়ার্ডে স্থানান্তর করা হয়। সেখানেও থেমে নেই তিনি। জানা যায় ঝর্ণা আক্তার রোগীদের কাছে সরকারি ওষুধ বিক্রি করেন। যখন রোগী ভর্তি হবে তখন থেকে ছুটি পর্যন্ত যত ওষুধ লাগবে সব ঝর্ণা আক্তার দিবে। এ জন্য তাকে দিতে হয় দুই হাজার টাকা থেকে তিন হাজার টাকা। শুধু তাই নয় ডেলিভারী হওয়া রোগীদের অপারেশন রুম থেকে বেড পর্যন্ত যে আয়া নিয়ে যায় তাকে দিতে হয় ৩০০ থেকে ৫০০ টাকা আর বেড বাবদ দিতে হয় ১০০ থেকে ৫০০ টাকা। আর এ সকল কাজে ঝর্ণা আক্তারকে সহোযোগিতা করেন ঝর্ণা আক্তারের সহকারি আরিফা নামের এক আয়া। তার কাজ রোগীদের সাথে সরকারি ওষুধ টাকার বিনিময় মিট করা আর ওই টাকা ঝর্ণা আক্তার ভাগা ভাগি করেন। সেখানে এ হাসপাতালের ডাক্তাররাই বড় অংকের টাকায় অপারেশনসহ নানা চিকিৎসাসেবা দিয়ে যাচ্ছেন।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক হাসপাতালের এক নার্স জানান, হাসপাতালে ২৫০ জন রোগীর জন্য যে ওষুধ প্রয়োজন সরকার তার সবই দিয়ে থাকে। যে পরিমান ওষুধ হাসপাতালে সরকার দেয় তা আর বাইরে থেকে কিন্তে হয় না। প্রতিদিন হাসপাতালে গড়ে ২৫ টা করে ডেলিভারী হয়। ঝর্ণা আক্তার প্রতিনিয়ত রোগীসহ ওই ওয়ার্ডের নার্স ও আয়াদের সঙ্গে অশালিন ভাষায় গালি গালাজ করেন ।
মধুপুর উপজেলা থেকে আসা হাফিজুর রমানের সাথে কথা হয়, তিনি জানায়, তাঁর স্ত্রীর ডেলিভারি বাবদ সকল ওষুধ তার বাহির থেকে কিনতে হয়েছে। কোন প্রকার ওষুদের সুবিধা সরকারি হাসপাতাল থেকে তিনি পাননি।
মির্জাপুর উপজেলার জামুর্কী থেকে আসা আরেক রোগীর অভিভাবক লেবু মিয়া জানায়, শরীরে পুষ করার স্যালাইন ছাড়া কোন ওষুধ দেয়নি হাসপাতাল থেকে সব বাহিরে থেকে কিনতে হয়েছে।
ঝর্ণা আক্তারের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ ও ২০১৫-১৬ অর্থবছরে এ হাসপাতাল ওষুধের জন্য বরাদ্দ ও ব্যয় কত এ ব্যাপারে বৃহস্পতিবার(১ডিসেম্বর) বিকালে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালের উপ পরিচালক ডা. পুতুল রায় এর মুঠো ফোনে ফোন দিলে জানায় অফিসে আসেন এ ব্যাপারে কথা হবে। কিন্তু প্রতিবেদক তার অফিসে গেলে জানতে পারেন তিনি ছুটিতে আছে। পরে তাঁর মুঠো ফোনে ফোন দিয়েও তাঁকে পাওয়া জায়নি। ডা. পুতুল রায় ছুটিতে থাকাস্বত্বেও প্রতিবেদককে শনিবার অফিসে যেতে বলেন। এ নিয়ে সাংবাদিকদের মাঝে নানা প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। ভুক্তভোগীরা জানান কেচো খুরতেই সাপ বেরিয়ে আসবে। এ বিষয়ে গোয়েন্দা ও উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপকামনা করেন।

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ