অপরাধীদের দ্রুত ধরে বিচারাধীন করুন

প্রকাশিত : ১ নভেম্বর, ২০১৫
গণবিপ্লব
রিপোর্ট

সম্প্রতি দেশে চোরাগোপ্তা হামলা, খুন-খারাবি, ডাকাতি, ছিনতাই বেড়ে গেছে। এমনকি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরাও রেহাই পাচ্ছেন না দুর্বৃত্তদের হাত থেকে। আবার সংগঠিত খুন-খারাবিগুলোর খুব কম সংখ্যকেরই অপরাধীরা শনাক্ত হয়েছে।
রাজধানীতে ও রংপুরে দুই বিদেশি হত্যা, খ্রিস্টান পাদ্রিকে হত্যা চেষ্টার পর সরকারের সংশ্লিষ্টদের ভাষ্যমতে দেশজুড়ে নিñিদ্র নিরাপত্তা ব্যবস্থার মধ্যে খুন-খারাবি নাশকতা ঘটেই চলেছে। সম্প্রতি রাজধানীর গাবতলী এলাকায় তল্লাশির সময় দুর্বৃত্তের ছুরিকাঘাতে নিহত হন পুলিশের এএসআই ইব্রাহিম মোল্লা। পবিত্র আশুরার তাজিয়া মিছিলের প্রস্তুতির সময় পরদিন পুরান ঢাকার হোসেনি দালান চত্বরে পরপর তিনটি হাতবোমা বিস্ফোরণে এক কিশোর নিহত এবং অর্ধশতাধিক ব্যক্তি আহত হন। পবিত্র আশুরার পরদিন(রোববার-২৫ অক্টোবর) ভোরে রাজধানীতে স্ত্রীর গলার চেইন রা করতে গিয়ে ছিনতাইকারীদের গাড়িচাপায় নিহত হন এক রিকশাচালক যুবক। পরদিন সোমবার(২৬ আগস্ট) রাজধানীর জনবহুল এলাকা তাঁতীবাজারে জুয়েলারির কর্মচারী পার্থ কুমারকে প্রকাশ্য দিবালোকে গুলি করে ২৫ লাখ টাকা ছিনিয়ে নেয় দুর্বৃত্তরা। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী কথিত কঠোর নিরাপত্তার মধ্যেও পরপর ঘটে যাওয়া এসব ঘটনায় জনমনে নিরপত্তা নিয়ে শঙ্কা তৈরি হওয়া খুবই স্বাভাবিক।
বিদেশি নাগরিক হত্যা, তাজিয়া মিছিলের প্রস্তুতির জমায়েতে বোমা হামলা, পুলিশ কর্মকর্তা খুন- বহুল আলোচিত এসব ঘটনা ¯্রফে আইনশৃঙ্খলার অবনতিজনিত অপরাধকর্ম নয়, এগুলো নেপথ্যে সুদূরপ্রসারী চক্রান্ত ও পরিকল্পনা থাকা খুবই স্বাভাবিক, যেমনটা দাবি করছেন সরকার এবং আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারাও। চাঞ্চল্যকর এসব ঘটনার পাশাপাশি দুর্ধর্ষ ছিনতাই, ডাকাতি, নৃশংসতার ঘটনাও দেশজুড়েই ঘটে চলেছে। জননিরাপত্তা ও আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখার দায় সরকারের তথা রাষ্ট্রের আইনশৃঙ্খলা রাকারী বাহিনীর। অপরাধ যাতে না ঘটে সে রকম অবস্থা বজায় রাখা এবং অপরাধ সংঘটিত হলে অপরাধীদের খুঁজে বের করে বিচারাধীন করা তাদের কাজ। সম্প্রতি ঘটে যাওয়া চাঞ্চল্যকর ঘটনাগুলোর েেত্র অপরাধী শনাক্তকরণে দেশের পুলিশ-গোয়েন্দাদের সাফল্যের প্রমাণ খুব একটা মিলছে না। চাঞ্চল্যকর কয়েকটি খুনের মধ্যে শুধু ইতালীয় নাগরিক তাভেজ হত্যাকান্ডের সহস্য উন্মোচনে অগ্রগতি হয়েছে বলে জানা গেছে। আমরা দেখেছি, এই হত্যাকান্ডে জড়িত বলে কয়েকজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। পুলিশের দাবি খুনে ব্যবহৃত মোটরসাইকেল উদ্ধার করা হয়েছে। হুকুম দাতাকেও শনাক্ত করা হয়েছে। আমরা আশা করব হত্যাকারী ও হুকুমদাতা যে বা যারাই হোক, উপযুক্ত তথ্য-প্রমাণের ভিত্তিতে তাদের দ্রুত গ্রেপ্তার করে বিচারের মুখোমুখি করা হবে। এএসআই হত্যা এবং হোসেনি দালানে বোমা হামলার ঘটনায় জড়িতদের এখনো খুঁজে পাওয়া যায়নি। পুলিশের কর্তাব্যক্তিরা দাবি করছেন ঘটনাগুলো একসূত্রে গাঁথা। সরকারের দাবি অনুযায়ী, দেশকে অস্থিতিশীল করে তোলা আর সরকারকে বিব্রতকর অবস্থায় ফেলার জন্যই যদি সাম্প্রতিক বিদেশি হত্যা, তাজিয়া মিছিলের জমায়েতে হামলা, পুলিশ হত্যার ঘটনাগুলো ঘটানো হয়ে থাকে তাহলে এই দেশবিরোধী গণবিরোধী অপশক্তিকে শনাক্ত করা এবং তাদের বিরুদ্ধে উপযুক্ত ব্যবস্থা নেয়া দরকার জাতীয় নিরাপত্তার স্বার্থেই। তার জন্য এসব ঘটনার রহস্যন্মোচন হওয়া জরুরি। একই সঙ্গে ছিনতাই, ডাকাতি, সহিংসতার মতো ঘটনাগুলো নিয়ন্ত্রণ করতে হবে জনমনে নিরাপত্তাবোধ তৈরি করতে।

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ