অব্যাহতি আদেশের দুই বছর পরও কর্মরত ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা !

প্রকাশিত : ২৪ অক্টোবর, ২০১৮
গণবিপ্লব
রিপোর্ট

টাঙ্গাইল কেন্দ্রীয় সমবায় ব্যাংক লিমিটেড এর ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সুলতান আলম খান

বিভাগীয় সমবায় কার্যালয়ের অব্যাহতি আদেশের দুই বছর পরও বহাল তবিয়তে কর্মরত রয়েছেন টাঙ্গাইল কেন্দ্রীয় সমবায় ব্যাংক লিমিটেড এর ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সুলতান আলম খান। এছাড়াও ওই অব্যাহতি আদেশটিতে নিয়োগকৃত ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে ব্যাংকের যাবতীয় রেকর্ডপত্রসহ দায়িত্বভার হস্তান্তরের নির্দেশও দেয়া হয়। এ স্বত্তেও ওই অব্যাহতি আদেশ ও দায়িত্বভার হস্তান্তরের নির্দেশ অমান্য করেই দেদারসে ব্যাংকের দায়িত্ব পরিচালনা করছেন তিনি। এর ফলে দীর্ঘ দুই বছর যাবৎ নিয়োগপ্রাপ্ত পদে যোগদানসহ দায়িত্বভার বুঝে পেতে দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন নবাগত ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ শহীদুল ইসলাম।

জানা যায়, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার বিভাগীয় সমবায় কার্যালয় সমবায় ভবন আগারগাঁও ঢাকা উপ-নিবন্ধক (প্রশাসন) স্বাক্ষরিত ২০১৬ সালের ২৮ মার্চের আদেশ নং-১১৪৯ সূত্রে জানা যায় পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত মোঃ সুলতান আলম খান পরিদর্শক জেলা সমবায় কার্যালয় টাঙ্গাইলকে টাঙ্গাইল কেন্দ্রীয় সমবায় ব্যাংক লিঃ এর ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি ও শহীদুল ইসলাম পরিদর্শক জেলা সমবায় কার্যালয় টাঙ্গাইলকে নিজ দায়িত্বসহ অতিরিক্ত দায়িত্ব হিসেবে টাঙ্গাইল কেন্দ্রীয় সমবায় ব্যাংক লিঃ এর ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার দায়িত্ব প্রদানের জন্য নিয়োগ প্রদান করা হয়। এ আদেশপত্রের শর্তাদিতে বলা হয়, উক্ত প্রতিষ্ঠানে দায়িত্ব পালনকারীর সময়ে কোন আর্থিক সুবিধা পাপ্য হবেন না। এ আদেশ বলে ইতোপূর্বে জারীকৃত আদেশ বাতিল বলে গন্য হবে। জনস্বার্থে জারীকৃত এ আদেশ অবিলম্বে কার্যকর হবে বলেও উল্লেখ করা হয়।

এছাড়াও জানা যায়, ২০১২ সালে ৩১ ডিসেম্বর টাঙ্গাইল কেন্দ্রীয় সমবায় ব্যাংক লিমিটেড এ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হিসেবে যোগদান করেন সুলতান আলম খান।

টাঙ্গাইল কেন্দ্রীয় সমবায় ব্যাংক লিমিটেড এর মালিকানাধীন সমবায় সুপার মার্কেটের পজিশন ক্রয়কৃত দোকান মালিক রাহেলা জাকির, শাহআলম, মতিয়ার, গোলাপ, দেলোয়ারসহ বেশ কয়েকজন পুরাতন ব্যবসায়ীর অভিযোগ, ১৯৮২ সালে এ ব্যাংকের অনুপ্রেরণায় ৬তলা ফাউন্ডেশন দিয়ে গড়ে ওঠে দ্বিতল বিশিষ্ট সমবায় সুপার মার্কেট। মার্কেট নির্মিত হওয়ার পর এর ১৫৫টি দোকানের বরাদ্দপ্রাপ্ত স্থান ক্রয় করে দোকান ঘরগুলোর মালিকানা অর্জন করেন ওই ব্যবসায়ীরা। তবে ২০১২ সালে ৩১ ডিসেম্বর টাঙ্গাইল কেন্দ্রীয় সমবায় ব্যাংক লিমিটেড এ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হিসেবে যোগদান করেন সুলতান আলম খান। জেলার ঘাটাইল উপজেলার বাসিন্দা ও দায়িত্বপ্রাপ্ত হয়েই মার্কেটের ব্যবসায়ীদের উপর প্রভাব বিস্তার করতে রাজনৈতিক ছত্রছায়ায় জড়িয়ে পড়েন তিনি। যোগদানের পর থেকেই সমবায় সুপার মার্কেটের পজিশন ক্রয়কৃত দোকান মালিক ও ব্যবসায়ীদের উপর প্রভাব বিস্তারের নগ্ন চেষ্টায় লিপ্ত হয়ে ওঠেনও তিনি। যোগদানরত টাঙ্গাইল কেন্দ্রীয় সমবায় ব্যাংক লিমিটেডের এ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার কর্তৃত্ব বজায় রাখতে তিনি তৎকালীন ব্যাংক পরিচালনা পর্ষদ সভাপতি কুদরত ই ইলাহী খানকে নিয়ে ষড়যন্ত্রে মেতে ওঠেন। পরবর্তীতে তৎকালীন ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগের নেতৃত্বদানকারীদের এ ব্যাংক পরিচালনার কার্যক্রমে জড়িত করেন। এর ফলেই দিনদিন ব্যাংক এবং ব্যবসায়ীদের গড়ে উঠা বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্কের অবনতি ঘটতে থাকে। এ সুযোগ নিয়ে তৎকালীন ব্যাংক পরিচালনা পর্ষদ সভাপতি ও আওয়ামীলীগের নেতৃত্বদানকারীদের ছত্রছায়ায় ব্যাংক কর্তৃপক্ষ সম্পাদিত চুক্তি অনুযায়ী যোগাযোগ বা পূর্ণবাসনের ব্যবস্থা ছাড়াই এবং উচ্চ আদালতের নির্দেশ অমান্য ও সম্পূর্ণ আইন বর্হিঃভুত ভাবে ২০১৪ সালের ১৯ মে ব্যবসায়ীদের জোড়পূর্বক উচ্ছেদ করাসহ একই বছরের ১৬ জুন ওই মার্কেট ভবনটি ভেঙ্গে ফেলেন। এর ফলে সমবায় সুপার মার্কেটের ১৫৫ জন ক্রয়কৃত দোকান মালিক ও ব্যবসায়ীরা পথে বসেন। এর প্রতিবাদে ওই ব্যবসায়ীরা উচ্চ আদালতে মামলা দায়ের করেন। এ নিয়ে উচ্চ আদালতে চলমান মামলায় মার্কেটের পুরাতন মালিকরা স্ব স্ব স্থানে দোকান বরাদ্দ দেয়ার নির্দেশ প্রদান করা হলেও উচ্চ আদালতের ওই নির্দেশনাকে বৃদ্ধাঙ্গুল দেখিয়ে তা বাস্তবায়ন করেননি তারা। এছাড়াও গত ২০১৫ সালের ০৭ ডিসেম্বর থেকে কুদরত ইলাহী অবৈধভাবে এ সভাপতি পদ পরিচালনা করে আসছেন বলে মতামত দেন সুপ্রিমকোর্ট আপিল বিভাগের চেম্বার জজ। ১২ ডিসেম্বর ব্যাংক পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি পদে থাকা কুদরত ইলাহী খানের সভাপতি পদ স্থগিত ও ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের এডক কমিটি গঠণের মাধ্যমে নির্বাচন সম্পন্ন করার নির্দেশ দেন সুপ্রিম কোর্টের আপীল বিভাগ। এ স্বত্তেও কুদরত-ই-এলাহী খান ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের সভাপতির দায়িত্ব পালন করাসহ সমবায় ব্যাংকের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সুলতান আলম খানের যোগসাজসে আর ব্যাংকের টাকা ব্যয়ে ব্যবসায়িদের বিরুদ্ধে মামলা পরিচালনা করাসহ নতুন ব্যবসায়িদের দোকান বরাদ্দ দেয়ার নামে লুটপাট চালিয়ে যাচ্ছেন। এর ফলে বিগত ২০১৭ সালে ২০ অক্টোবর বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের এপিলেড ডিভিশনের চেম্বার জজ এস.এম হোসাইন পক্ষগণকে মোকদ্দমার বিষয়বস্তু সম্পর্কে ৬ সপ্তাহের জন্য স্থিতিবস্থা বহালের নির্দেশ দেন। ইতিমধ্যে প্রার্থীপক্ষকে নিয়মিত লিভ পিটিশন দাখিল করার জন্য বলা হয়। পরবর্তিতে লিভ পিটিশন দাখিল হয়ে স্থিতি আদেশ চলমান রয়েছে। তবে ব্যাংক কর্তৃপক্ষ এ স্থিতি আদেশ এর নোটিশটি না টাঙ্গিয়ে তালবাহানা চালিয়ে গেছেন। বাধ্য হয়ে ১ মে ব্যবসায়িরা এ আদেশের নোটিশটি টাঙ্গিয়ে মার্কেটের নির্মাণ কাজ বন্ধ করেন। এ স্বত্তেও ব্যাংকের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সুলতান আলম খানের নেতৃত্বে ও গোপনে মার্কেটের কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন তারা। গত ৩ মে কাজ চলাকালে ক্ষিপ্ত পুরাতন ব্যবসায়িরা মার্কেটে প্রবেশ করলে ওই কর্মকর্তাসহ দিনমজুররা মার্কেটের পেছনের অংশ দিয়ে পালিয়ে যান। পরে ক্ষিপ্ত ব্যবসায়িরা মার্কেট ভবনে চালা ঝুলিয়ে দেন। এর প্রতিকার আর আইনগত ব্যবস্থার দাবিতে টাঙ্গাইল মডেল থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী (জিডি) দায়ের করেন। এ সময় তারা আরো জানান, এ সকল অপকর্মের মাধ্যমে ব্যাংকের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সুলতান আলম খান অবৈধভাবে প্রায় তিন কোটি টাকা কামিয়ে নেন। তবে অজ্ঞাত কারণে ব্যাংকের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সুলতান আলম খানকে ২০১৬ সালের ২৮ মার্চ বিভাগীয় সমবায় কার্যালয় সমবায় ভবন আগারগাঁও ঢাকা উপ-নিবন্ধক (প্রশাসন) স্বাক্ষরিত এক আদেশে টাঙ্গাইল কেন্দ্রীয় সমবায় ব্যাংক লিঃ এর ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেয়াসহ নিয়োগকৃত ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে ব্যাংকের যাবতীয় রেকর্ডপত্রসহ দায়িত্বভার হস্তান্তরের নির্দেশও দেয়া হয়। তবে ওই অবৈধ টাকা উপার্জন বন্ধ হওয়ার আশঙ্কায় ব্যাংকের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সুলতান আলম খান নানা তালবাহানার মাধ্যমে ওই অব্যাহতি আদেশ অমান্য করাসহ দায়িত্ব হস্তান্তর না করেই যথাযথ ভাবে ওই ব্যাংকের কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছেন। এ কারণে ওই ব্যবসায়ীদের প্রশ্ন ? কোন রহস্যজনক ক্ষমতাবলে ব্যাংকের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সুলতান আলম খান বিভাগীয় সমবায় কার্যালয় সমবায় ভবন আগারগাঁও ঢাকা উপ-নিবন্ধক এর ওই আদেশ অমান্য করার পরও তার বিরুদ্ধে কোন আইনগত ব্যবস্থা থেকে রয়েছেন মুক্ত।

জেলা সমবায় কার্যালয় এর পরিদর্শক ও নিয়োগপ্রাপ্ত টাঙ্গাইল কেন্দ্রীয় সমবায় ব্যাংক লিঃ এর ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শহীদুল ইসলাম জানান, ২০১৬ সালের ২৮ মার্চের আদেশ নং-১১৪৯ সূত্রের মাধ্যমে পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত মোঃ সুলতান আলম খান পরিদর্শক জেলা সমবায় কার্যালয় টাঙ্গাইলকে টাঙ্গাইল কেন্দ্রীয় সমবায় ব্যাংক লিঃ এর ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি ও শহীদুল ইসলাম পরিদর্শক জেলা সমবায় কার্যালয় টাঙ্গাইলকে নিজ দায়িত্বসহ অতিরিক্ত দায়িত্ব হিসেবে টাঙ্গাইল কেন্দ্রীয় সমবায় ব্যাংক লিঃ এর ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার দায়িত্ব প্রদানের জন্য নিয়োগ প্রদান করা হয়। ওই আদেশপত্রে নিয়োগকৃত ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে ব্যাংকের যাবতীয় রেকর্ডপত্রসহ দায়িত্বভার হস্তান্তরের নির্দেশও দেয়া হয়। তবে এ স্বত্তেও ওই অব্যাহতি আদেশ ও দায়িত্বভার হস্তান্তরের নির্দেশ অমান্য করেই ব্যাংকের দায়িত্ব তাকে দেননি তৎকালীন ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সুলতান আলম খান। এ কারণে তিনি দুই বছর আট মাস যাবৎ নিয়োগপ্রাপ্ত ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার দায়িত্ব নেয়ার চেষ্টা চালিয়ে আসছেন। তবে এখনও তিনি দায়িত্ব পাননি। সর্বশেষ চলতি বছরের ১৬ অক্টোবর ওই দায়িত্ব হস্তান্তরের সময় সীমা দেয়া হলেও তাকে দায়িত্ব বুঝিয়ে দেয়া হয়নি। এ কারণে পূনরায় তিনি বিভাগীয় সমবায় কার্যালয় সমবায় ভবন আগারগাঁও ঢাকা উপ-নিবন্ধক বরাবর আবেদন করেছেন বলেও জানান তিনি।

অভিযুক্ত জেলা সমবায় কার্যালয় এর পরিদর্শক ও টাঙ্গাইল কেন্দ্রীয় সমবায় ব্যাংক লিঃ এর দায়িত্ব ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সুলতান আলম খান জানান, ২০১৬ সালের ২৮ মার্চের বিভাগীয় সমবায় কার্যালয় সমবায় ভবন আগারগাঁও ঢাকা উপ-নিবন্ধক (প্রশাসন) স্বাক্ষরিত অব্যাহতি ও শহীদুল ইসলাম পরিদর্শক জেলা সমবায় কার্যালয় টাঙ্গাইলকে নিজ দায়িত্বসহ অতিরিক্ত দায়িত্ব হিসেবে টাঙ্গাইল কেন্দ্রীয় সমবায় ব্যাংক লিঃ এর ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার দায়িত্ব প্রদানের জন্য নিয়োগ প্রদান করা হয়। ওই আদেশপত্রে নিয়োগকৃত ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে ব্যাংকের যাবতীয় রেকর্ডপত্রসহ দায়িত্বভার হস্তান্তরের নির্দেশ প্রসঙ্গে তিনি অবগত ছিলেন না বলেই দায়িত্বে বহাল রয়েছেন। এছাড়াও তিনি বিষয়টি নিয়ে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ বরাবর লিখিত একটি আবেদন করেছেন।

এ প্রসঙ্গে জেলা সমবায় কর্মকর্তা আব্দুল জলিল তালুকদার জানান, বদলী বা অব্যাহতির বিষয়টি বিভাগীয় সমবায় কার্যালয় সমবায় ভবন আগারগাঁও ঢাকা উপ-নিবন্ধক (প্রশাসন) এর। এ বিষয়টির নিস্পতিও দেবেন তারা। এ ক্ষেত্রে জেলা সমবায় কার্যালয়ের কিছুই করার নেই। তবে এ সময় তিনি আরো জানান, ২০১৬ সালের ২৮ মার্চের বিভাগীয় সমবায় কার্যালয় সমবায় ভবন আগারগাঁও ঢাকা উপ-নিবন্ধক (প্রশাসন) স্বাক্ষরিত এক আদেশে টাঙ্গাইল কেন্দ্রীয় সমবায় ব্যাংক লিঃ এর দায়িত্ব ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সুলতান আলম খানকে অব্যাহতি ও শহীদুল ইসলাম পরিদর্শক জেলা সমবায় কার্যালয় টাঙ্গাইলকে নিজ দায়িত্বসহ অতিরিক্ত দায়িত্ব হিসেবে টাঙ্গাইল কেন্দ্রীয় সমবায় ব্যাংক লিঃ এর ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার দায়িত্ব প্রদানের জন্য নিয়োগ প্রদান করাসহ আদেশপত্রে নিয়োগকৃত ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে ব্যাংকের যাবতীয় রেকর্ডপত্রসহ দায়িত্বভার হস্তান্তরের নির্দেশের বিষয়টি নিস্পতির পর্যায়ে এসেছে বলেও ঢাকা বিভাগীয় সমবায় কার্যালয় এর যুগ্ম-নিবন্ধক তাকে মুঠোফোনে অবগত করেছেন।

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ