আইনী সহায়তা পেতে মুক্তিযোদ্ধা দ্বারে দ্বারে

প্রকাশিত : ৫ ডিসেম্বর, ২০১৯

টাঙ্গাইল ৫ ডিসেম্বর : টাঙ্গাইলে একটি হত্যা মামলায় সন্দেহজনকভাবে আটক হয়ে বিনাবিচারে ৬মাস যাবত কারাভোগ করছেন মুক্তিযোদ্ধার সন্তান শরীফ হোসেন (৪২)। মুক্তিযোদ্ধা পিতা তার সন্তানকে বিচারিক সহায়তার জন্য আইনজীবী নিয়োগের বারবার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হচ্ছেন। তিনি ছেলেকে মুক্ত করতে আইনী সহায়তার জন্য দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন। তার নির্দোষ ছেলেকে বাঁচাতে তিনি প্রধানমন্ত্রীর সহায়তা চেয়েছেন।


জানা যায়, গত ১০ জুলাই টাঙ্গাইলের গোয়েন্দা পুলিশ একটি হত্যা মামলায় সন্দেহ করে টাঙ্গাইল পৌর এলাকার সাবালিয়া মধ্যপড়ার বীরমুক্তিযোদ্ধা হাজী মকবুল হোসেনের ছেলে শরীফ হোসেনকে গ্রেফতার করে।

বীরমুক্তিযোদ্ধা অ্যাডভোকেট হাসান আলী রেজার হত্যাকারী সন্দেহে তাকে ১৬ জুলাই জেলহাজতে প্রেরণ করে পুলিশ। পরে টাঙ্গাইল মডেল থানা পুলিশ তাকে ৩দিনের রিমান্ডে এনেও জিজ্ঞাসাবাদ করেছে। কিন্তু পুলিশ এডভোকেট হাসান আলী রেজা হত্যার সাথে জড়িত কোন প্রমাণ পায়নি বলে জানান মুক্তিযোদ্ধা মকবুল হোসেন।

তিনি (হাজী মকবুল হোসেন) বলেন, নিহত বীরমুক্তিযোদ্ধা হাসান আলী রেজা আমাদের অত্যন্ত পরিচিত ব্যক্তি। তার মৃত্যুতে আমরা অত্যন্ত ব্যথিত এবং তার হত্যাকারীদের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি দাবি করছি। সেই সাথে আমার ছেলে এ হত্যাকান্ডের সাথে কোনভাবেই জড়িত নয়। তারপরও সাক্ষ্য প্রমাণ ও তদন্তে শরীফ যদি দোষী প্রমাণিত হয় তবে তার যে সাঁজা হবে তা মাথাপেতে মেনে নিবো। কিন্তু আমার নির্দোষ ছেলেকে বাঁচাতে একজন আইনজীবী নিয়োগের জন্য জেলা এডভোকেট বার সমিতিতে দরখাস্ত করেও কোন আইনজীবী আমার ছেলের পক্ষে দাঁড়ানোর জন্য পাইনি। জেলা আইন সহায়তা কেন্দ্রেও কোন সহযোগিতা পাইনি। মুক্তিযুদ্ধ করে দেশ স্বাধীন করেছি আর সেই স্বাধীন দেশে আমার ছেলেকে আইনী সহায়তা দেয়ার জন্য একজন আইনজীবীও পাচ্ছি না। এ দুঃখ কোথায় রাখি।


শরীফের স্ত্রী হালিমাতুছ ছাদিয়া তার একমাত্র শিশু কন্যা তাসমিয়া হোসাইনকে জড়িয়ে ধরে কান্নাজড়িত কন্ঠে বলেন, আমার স্বামী শরীফ হোসেন একজন ছোটখাটো ব্যবসায়ী। তাকে বিনাবিচারে জেলহাজতে আটক রাখা হয়েছে। আমরা কি এদেশের নাগরিক না? আমার স্বামী জেলহাজতে থাকায় আমি আমার একমাত্র শিশু কন্যা নিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছি।


টাঙ্গাইল জেলা এডভোকেট বার সমিতির সভাপতি এডভোকেট রফিকুল ইসলাম খান আলো বলেন, কোন মক্কেলের জন্য বার সমিতি আইনজীবী নিয়োগ করে দেন না। এটা তাদেরই করে নিতে হয়। বার সমিতি কাউকে নিষেধ করেনি কারও পক্ষে বা বিপক্ষে দাঁড়াতে। আইনগত সহায়তা পাওয়ার অধিকার সকলেই রয়েছে।


উল্লেখ্য, এ বছরের ৮ জুলাই ৭৬ বছর বয়স্ক হাসান আলী রেজা টাঙ্গাইল শহরের সাবালিয়া পাঞ্জাপাড়ার বাসা থেকে চা খাওয়ার জন্য বের হয়ে নিখোঁজ হন। এ ব্যাপারে ৯ জুলাই তার ছেলে টাঙ্গাইল সদর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী (জিডি) করেন। ৪দিন পর ১৩ জুলাই শহরের পশ্চিম আকুরটাকুর পাড়া লৌহজং নদ থেকে তার ভাসমান লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় জড়িত থাকা সন্দেহে ১৪ জুলাই রাতে শহরের আকুরটাকুর এলাকা থেকে তপন কুমার সরকার, তার স্ত্রী কল্পনা রানী ও তার ছেলে তন্ময় মন্ডলকে গ্রেপ্তার করা হয়। এর মধ্যে কল্পনা রানী জেলহাজতে মৃত্যুবরণ করেছেন।

সাপ্তাহিক গণবিপ্লব

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া