আতিয়া মহলে নিহত জঙ্গির পরিচয় শনাক্তে ‘মর্জিনার’ বাবার শরীর থেকে ডিএনএ নমুনা সংগ্রহ

প্রকাশিত : ৩০ মার্চ, ২০১৭
গণবিপ্লব
রিপোর্ট

সিলেট সংবাদদাতাঃ


সিলেটের দক্ষিণ সুরমার শিববাড়ি এলাকার জঙ্গি আস্তানা আতিয়া মহলে অপারেশন টোয়াইলাইটে নিহত ‘মর্জিনাই’ চট্টগ্রামের সীতাকুন্ডে পুলিশের হাতে নিহত জঙ্গি জুবাইরা ইয়াসমিনের বোন মনজিয়ারা পারভিন ওরফে মনজিয়ারা বেগম কি-না তা নিশ্চিত হতে সিলেটে এসেছেন তাঁর বাবা ও ভাই। পরে পুলিশ পরিচয় শনাক্তের জন্য গতকাল মর্জিনার বাবার শরীর থেকে ডিএনএ নমুনা সংগ্রহ করে। উদ্ধার করা লাশটি পুড়ে যাওয়ায় তা চেনা মুশকিল।
কমান্ডো অভিযানে নিহত ওই নারীর লাশ গত সোমবার উদ্ধারের পর ময়নাতদন্ত শেষে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজের হিমঘরে রয়েছে।
পুলিশের সুরতহাল প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, নিহত ওই নারীর দৈর্ঘ্য আনুমানিক চার ফুট। তাঁর সম্পূর্ণ দেহ পোড়া এবং বাইরে থেকে কঙ্কাল দৃশ্যমান। উস্তার আলীর আতিয়া মহলে যে-ফ্ল্যাটে আস্তানা গেঁড়েছিল জঙ্গিরা, তিন মাস আগে তা ভাড়া নেওয়ার সময় যে জাতীয় পরিচয়পত্র দেওয়া হয়েছিল, তাতে নারীর নাম ছিল মর্জিনা আক্তার। কায়ছার আলী তাঁর স্বামীর নাম।
নিহত চারজনের মধ্যে একমাত্র নারীটি মর্জিনা বলেই সন্দেহ করা হচ্ছে। গত শুক্রবার শিববাড়ির আতিয়া মহল ঘিরে ফেরার পর পুলিশ মর্জিনা সম্বোধন করে মাইকে কথা বললে ভেতর থেকে সাড়া মিলেছিল। এদিকে আতিয়া মহল থেকে দুটি লাশ উদ্ধারের কাজ এখনো শুরু হয়নি।
গতকাল বুধবার বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি থেকে রহমানের সঙ্গে তাঁর ছেলেও এসেছেন বলে জানান সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত উপকমিশনার জেদান আল মুসা। তিনি বলেন, জাতীয় পরিচয়পত্রের সূত্র ধরেই তাঁরা সিলেট এসেছেন। তাদের মরদেহ দেখানো হয়েছে।
মহানগর পুলিশের এই মুখপাত্র বলেন, সকাল সাড়ে ৯টার দিকে মনজিয়ারার বাবা ও ভাইকে পুলিশি পাহারায় মহানগর পুলিশের সদর দফতরে নিয়ে আসা হয়। তাঁদেরকে লাশ দেখানো হয়। পরে মর্জিনার বাবার শরীর থেকে ডিএনএর নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে।
এর আগে জানা যায়, বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ির বাইশারী ইউনিয়ন থেকে মনজিয়ারা পারভিনের পরিবার গত মঙ্গলবারই সিলেটের উদ্দেশ্যে রওনা হয়।
পুলিশ সূত্র জানায়, মর্জিনাই বান্দরবানের মনজিয়ারা পারভিন কিনা এটা নিশ্চিত হতে গত মঙ্গলবার সকালে সিলেট পুলিশ ও প্রশাসনের পক্ষ থেকে বান্দরবান জেলা পুলিশকে বার্তা পাঠানো হয়। আর এ বার্তা পেয়ে বান্দরবান জেলা পুলিশ মনজিয়ারা পারভিনের পরিবারের দুই সদস্যকে সিলেট পুলিশের কাছে পাঠানোর উদ্যোগ নেয়। চট্টগ্রামের সীতাকুন্ডে এই পরিবারের আরেক সদস্য জহিরুল হক ওরফে জসিমকেও জঙ্গি আস্তানা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়।
মূলত মর্জিনার ভাই জসিমের দেওয়া তথ্য মতেই সিলেটের এই জঙ্গি আস্তানার সন্ধান পান জঙ্গি নির্মূলে গঠিত পুলিশের বিশেষায়িত বাহিনী কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের সদস্যরা।
দক্ষিণ সুরমার শিববাড়ি এলাকার আতিয়া মহলের নিচতলায় জঙ্গিরা অবস্থান করছে এমন গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে ঢাকার কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিট ও মহানগর পুলিশের একটি দল গত বৃহস্পতিবার রাত আড়াইটার দিকে জঙ্গিদের ফ্ল্যাটের দরজায় তালা লাগিয়ে দিয়ে পুরো ভবনটি ঘিরে রাখে পুলিশ। গত শুক্রবার সকাল ৮টার দিকে ওই বাড়ির ভেতর থেকে পুলিশকে লক্ষ করে গ্রেনেড ছোড়া হয়। পরে ঢাকা থেকে পুলিশের বিশেষায়িত ইউনিট সোয়াটকে পাঠানো হয় ঘটনাস্থলে। তবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে সন্ধ্যা থেকে পুরো এলাকার নিয়ন্ত্রণে নেয় সেনাবাহিনীর প্যারা-কমান্ডো দল। পর দিন তারা ওই ভবনের ২৯টি পরিবারের ৭৮জন বাসিন্দাদেরকে জঙ্গিদের জিম্মিদশা থেকে উদ্ধার করে নিরাপদে সরিয়ে নেন তাঁরা।
২৫ মার্চ সন্ধ্যায় অভিযান নিয়ে সেনবাহিনীর প্রেস ব্রিফিং শেষ দুই দফা বিস্ফোরণে দুই পুলিশ কর্মকর্তাসহ ছয় জন নিহত হন। আহত হন র‌্যাবের গোয়েন্দা বিভাগের প্রধানসহ ৪৬ জন।
অভিযানের চতুর্থ দিনে গত সোমবার সন্ধ্যা সাড়ে সাতটায় প্রেস ব্রিফিংয়ে সেনাবাহিনী জানায়, অভিযানে চার জঙ্গির নিহত হয়েছে। নিহতদের মধ্যে আছে তিন পুরুষ ও এক নারী। ভবণের ভেতরে আর কোনো জীবিত জঙ্গি নেই। এছাড়া অভিযান সফলভাবে শেষ হওয়ার পর ভবনে থাকা দুটি লাশ ও আতিয়া মহলের দায়িত্ব পুলিশকে বুঝিয়ে দেওয়া হয়।

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ