আদালতের পেশকারের বিরুদ্ধে অপহরণ ও ধর্ষণের অভিযোগ

প্রকাশিত : ২ এপ্রিল, ২০১৮
গণবিপ্লব
রিপোর্ট

স্টাফ রিপোর্টারঃ

বান্দরবন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের পেশকার রবিউল ইসলামের বিরুদ্ধে অপহরণ ও ধর্ষণের অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন করেছেন স্বামী পরিত্যক্তা নারী (২৮)। সে টাঙ্গাইলের নাগরপুর উপজেলার পাকুটিয়া ইউনিয়নের রাথুরা গ্রামের মেয়ে। মঙ্গলবার বেলা ১২টায় টাঙ্গাইল প্রেসক্লাবের বঙ্গবন্ধু অডিটরিয়ামে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে পাঠকৃত লিখিত বক্তব্যে জানা যায়, এক পুত্র ও এক কন্যা সন্তানের জননী (২৮)। গত ২০১৫ সালের ৭ আগস্ট তারিখে সংসার বিচ্ছেদের শিকার হন তিনি। স্বামী পরিত্যক্তা হওয়ার সুযোগ নিয়ে মুঠোফোনে নানাভাবে তাঁকে বিয়ের প্রলোভন দেখাতে থাকেন ওই গ্রামের বাসিন্দা ইন্তাজ আলীর ছেলে ও বান্দরবন চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের পেশকার রবিউল ইসলাম (৩২)। এরই ধারাবিকতায় চলতি বছরের ১৯ ফেব্রুয়ারি ভোরে তিনি বাথরুমে যাওয়ার সুযোগে ঘরে প্রবেশ করেন রবিউল ও তার সহযোগি আমিনুর রহমান। এ সময় তার ঘরের আলমারী ভেঙ্গে প্রবাসী বাবার গচ্ছিত নগদ দশ লাখ টাকা ও প্রায় পাঁচ ভরি ওজনের বিভিন্ন ধরণের স্বর্ণালংকার লুট করেন তারা। শব্দ হচ্ছে দেখে ঘরে প্রবেশ করতেই রবিউল শারমিনের মুখ চেপে ধরেন ও আমিনুর মুখে কসটেপ লাগিয়ে জোড়পূর্বক অপহরণ করে তাদের যাতায়াতে ব্যবহৃত সিএনজিতে তুলে অচেনা স্থানে নিয়ে যান তারা। ৩-৪দিন ওই স্থানে রাখার পর আমিনুর পূনরায় তাঁকে রবিউলের বাড়ীতে নিয়ে এসে আটকে রাখেন। রবিউল বাড়ীতে আটক রাখা অবস্থায় একাধিকবার তাকে ধর্ষণ করে। রবিউলের বাড়ীতে আটক রাখার বিষয়টি অবগত হয়ে তার মা থানায় সংবাদ দেয়। তবে থানা পুলিশ কোন ব্যবস্থা গ্রহণ না করায় তিনি বাদী হয়ে ৫ মার্চ টাঙ্গাইলের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আদালত খ অঞ্চলে ১০০ ধারায় মামলা করেন। এ মামলা প্রত্যাহার ও মেয়েটিকে বিয়ে করবে এমন শর্তে শালিস এর আয়োজন করেন স্থানীয় ১১নং পাকুটিয়া ইউনিয়ন পরিষদ কর্তৃপক্ষ। আয়োজিত শালিসে রবিউল ইসলাম টাকা, স্বর্ণালংকার লুট করার কথা স্বীকার করাসহ তাঁকে বিয়ে করতে রাজি হন। এর ফলে শালিসের বিচারকগণ মেয়েটিকে রবিউলদের বাড়ীতে আশ্রয় দেন। তবে শালিসের শর্ত উপেক্ষা করে ৭ মার্চ রবিউলের মা বাদী হয়ে মেয়েটির বিরুদ্ধে নাগরপুর থানায় মামলা দায়ের করেন। এ মামলায় পুলিশ তাঁকে গ্রেফতার করে কারাগারে পাঠায়। আদালত থেকে জামিন পেয়ে ১৩ মার্চ টাঙ্গাইল নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে ধর্ষণ ও নারী নির্যাতন আইনে মামলা দায়ের করেন। মামলাটি বর্তমানে আদালতে চলমান রয়েছে।
এ নিয়ে অপহরণ ও ধর্ষণে অভিযুক্ত রবিউল ইসলামের ব্যবহৃত মুঠোফোন ০১৭১৫-৭৫৪১৭৫ নম্বরটি বন্ধ থাকায় তার বক্তব্য পাওয়া যায়নি।
তবে নারী অপহরণ ও ধর্ষণের বিষয়টি অস্বীকার করে অবসরপ্রাপ্ত আনসার সদস্য ও রবিউল ইসলামের বাবা ইমতিয়াজ আলী জানান, প্রতিবেশী ও দুই সন্তানের জননী বিয়ের দাবীতে তাদের বাড়ীতে ওঠেন। আমার ছেলে রবিউল ইসলাম অবিবাহিত ও বান্দরবন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের পেশকার হিসেবে কর্মরত। একজন অবিবাহিত ছেলেকে স্বামী পরিত্যক্তা এক নারীর সাথে কেন বিয়ে দেব, বিষয়টি সম্ভব নয় বলেই শারমিনকে বাড়ী থেকে বের করে দেয়া হয়েছিল।
এ প্রসঙ্গে শালিসের বিচারক ও ১১ নং পাকুটিয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান সিদ্দিকুর রহমান জানান, রবিউল ও ওই মেয়ের মধ্য প্রেমের সম্পর্ক ছিল। এ কারণে বিয়ে ছাড়াই প্রায়ই মেয়েটি রবিউলদের বাসায় অবস্থান করতো। রবিউল বিয়ে ছাড়া কেন মেয়েকে বাসায় রাখেন বিষয়টি স্পষ্ট করতে ওই শালিসের আয়োজন করা হয়। সম্পর্কের বিষয়টি রবিউল স্বীকার করায় মেয়েটিকে বিয়ে করার শর্ত দিয়ে রবিউলদের বাসায় রাখার সিদ্ধান্ত দেয়া হয় শালিসে। তবে পরবর্তীতে রবিউলের পরিবার ওই শর্ত অমান্য করে মেয়েটির বিরুদ্ধে মামলা দিয়ে কারাগারে পাঠান বলেও জানান তিনি।

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ