আলোর ফেরিওয়ালা!

প্রকাশিত : ১১ জানুয়ারী, ২০১৯
নিজস্ব প্রতিবেদক
টাঙ্গাইল

আলোর ফেরিওয়ালা। প্রতিটি ঘর আলোকিত করাই আলোর ফেরিওয়ালার উদ্যেশ্য। বিদ্যুৎ সংযোগ পেতে গ্রাহক হয়রানি ও দালাল মুক্তভাবে ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ পৌঁছে দিতে কাজ করছে বাংলাদেশ পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির আলোর ফেরিওয়ালা। টাঙ্গাইল পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির দেলদুয়ার জোনাল অফিস ইতমধ্যে প্রকল্পের কাজ শুরু করেছে।

প্রতিদিন নতুন নতুন সংযোগও পাচ্ছে গ্রাহকরা। একদিকে গ্রাহক হয়রানি কমে আসছে অন্যদিকে প্রত্যেকটি বাড়ি বিদ্যুৎ সংযোগ নিশ্চিত হচ্ছে। বাংলাদেশ সরকারের প্রতিশ্রুতি “ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ” পৌছে দিতে পল্লী বিদ্যুতের এই প্রকল্পটি গুরুত্বপূর্ণ সহায়ক ভুমিকা রাখবে বলে গ্রাহক ও বিদ্যুৎ অফিস আশা করছেন।

প্রকল্পটির মাধ্যমে একটি ভ্যানগাড়িতে মালামাল, একজন লাইনম্যান ও একজন প্রকৌশলী গ্রামে গ্রামে ঘুরছে। কারও বিদ্যুৎ সংযোগের প্রয়োজন হলে সে আবেদনকারীর ঘরের দুরত্ব যদি ১৩০ ফুটের মধ্যে হয় সেক্ষেত্রে ১০০ টাকার আবেদনের সাথে ৪০০ টাকার জামানতসহ প্রয়োজনী কাগজপত্র দিলে তাৎক্ষণিক বিদ্যুৎ সংযোগ দেয়া হচ্ছে।

টাঙ্গাইল পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির দেলদুয়ার জোনাল অফিসের ডিজিএম প্রকৌঃ বিপ্লব কুমার সরকার বলেন, আগে পল্লী বিদ্যুৎ সংযোগ পেতে গ্রাহকদের বিড়ম্বনার অভিযোগ রয়েছে। গ্রাহক হয়রানি দুর করতে এবং ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ সংযোগ সহজেই নিশ্চিত করতে পল্লী বিদ্যুৎ “ আলোর ফেরিওালা” পকল্পটি চালু করেছে।

মঙ্গলবার প্রকল্পটি উদ্বধোনের পর থেকের গ্রাহকদের যথেষ্ট সাড়া মেলেছে। একটি ভ্যানে প্রয়োজনীয় সামগ্রী নিয়ে বিদ্যুৎ অফিসের একটি নির্ধারিত টিম প্রত্যন্ত এলাকায় ঘুরে বেড়াচ্ছে।

যারাই সংযোগ চাচ্ছে তাদের কাগজপত্র ঠিক করে তাৎক্ষণিক সংযোগ দেয়া হচ্ছে। গ্রাহকদের চাহিদা থাকা পর্যন্ত এ প্রকল্প চলবে বলেও তিনি জানান।

বিদ্যুতের লোডশিডিংয়ের বিষয়ে তিনি বলেন, দেলদুয়ার জোনে কোন লোডশিডিং নেই। বিদ্যুতের প্রয়োজন ১৫ মেঘাওয়াড। বরাদ্ধ আছে ২০ মেঘাওয়াড। এরপরও মাঝে মাঝে বিদ্যুৎ না থাকার বিষয়ে তিনি বলেন, লাইনের উন্নয়নমুলক কাজ, খুটি বদল, তারের দুরত্ব বৃদ্ধিসহ তার মোটাকরনের কাজে মাঝে মাঝে বিদ্যুৎ লাইন বন্ধ রাখতে হচ্ছে। একাজ শেষ হলে শিগ্রই এ সমস্যার সমাধানও হবে।

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া