প্রকাশকাল: ১৩ মার্চ, ২০১৬
ধর্ম | প্রকাশক- গণ বিপ্লব

আল্লাহর আনুগত্য শিখিয়েছেন নবীজী

প্রতিটি মুসলমানের প্রিয় বাক্য ‘লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু মুহাম্মাদুর রাসূলুল্লাহ।’ এ বাক্যে বলে একজন মুসলমান ঈমানের মৌখিক স্বীকৃতি দেয়। সে অনুযায়ী আমল করতে হলে আমাদের প্রিয় নবীর সুন্নতকে উপেক্ষা করার কোনো সুযোগ নেই। কোনো মুসলমান নারী-পুরুষ জেনে- শুনে তা করতে পারে না। আল্লাহ ও আল্লাহর রাসূলের নির্দেশ কোনো মুমিন পুরুষ কিংবা মুমিন নারী অবহেলা করতে পারে না, কিংবা মানব রচিত কোনো বিধানকে এর বিকল্প হিসেবে মেনে নিতে পারে না। আমরা অনেক সময় কালিমা তাইয়্যেবা ও কালিমা শাহাদাতের দাবি ভুলে যাই। ফলে একই বিষয়ে আল্লাহ ও আল্লাহর রাসূলের আদেশ বাদেও অন্যান্য ইসলামি মতাদর্শে বিশ্বাস করি। একদিকে মুসলমান হওয়ার দাবি করা অন্যদিকে এর মূলনীতিগুলো উপেক্ষা করা এ দুটি পরস্পরবিরোধী। শুধু রাসূলের মতাদর্শ অনুসরণের মাঝেই মানুষ দুনিয়ায় সত্য ও সরল পথের সন্ধান পেতে পারে। এর মাধ্যমে পরকালেও তারা সফল হবে। আমরা আল্লাহ, আল্লাহর কিতাব, রাসূল, ও তার প্রদর্শিত দ্বীনের প্রতি অটল বিশ্বাস রাখি। মুসলমানদের মধ্যে যেসব লোক নবির প্রতি বিশ্বাসের ক্ষেত্রে অবিচল থাকবে আর যারা সন্দেহ-সংশয়ে ভুগবে তারা কখনও এক হতে পারে না। বনি ঈসরাইলের নবীর বংশধররা ৭২টি গোত্রে বিভক্ত হয়েছিল। অর আমাদের নবীর উম্মতরা ৭৩টি দলে বিভক্ত হবে এটি আমরা সহিহ হাদিসে জানতে পারি। তাই কোন কোন বিষয়ে মুসলমানদের মধ্যে মত পার্থক্য থাকতে পারে। এসব সমস্যার ব্যাপারে আল্লাহ ও আল্লাহর রাসূলের ফায়সালা মেনে নেয়া প্রত্যেক মুসলমানের উচিত। ঈমাম শাওকানী (রহ.) বলেন, বিচার ও ফায়সালার জন্য যদি এমন বিচারক বা শাসকের দিকে আহ্বান করা হয় যিনি কোরআন-হাদিসে অভিজ্ঞ তাহলে তার কাছে বিচারকের ফয়সালা চাওয়া আবশ্যক। আল্লাহ ও আল্লাহর রাসূলের নির্দেশিত পথ বাদে অন্য কোনো উপায়ে আমল করলে তা আল্লাহর কাছে গ্রহণযোগ্য হবে না। (সূরা মোহামম্মদ-৩৩)।
যখন কোনো জাতি আল্লাহর কিতাব ও তার রাসূলের হিদায়াত পেছনে ফেলে দিয়ে এমন সব নেতা ও সরদারের আনুগত্য করে যারা আল্লাহর হুকুম মেনে চলে না তারা ভ্রষ্টতার মধ্যে রয়েছে। কোনো ধরনের দলিল-প্রমাণ বাদে তাদের আনুগত্য করা প্রকৃত মুসলমানের কাজ নয়। আল্লহতায়ালাকে ভয় করা আমাদের কর্তব্য। সূরা আশশুরার ১২৬ আয়াতে বলা হয়েছে, ‘অতএব, তোমরা আল্লাহকে ভয় কর ও আমাকে মেনে চল।’ কৃতকার্যতা ও সফলতার যোগ্য একমাত্র সেসব লোক যারা নিজেদের সব ব্যাপারে আল্লাহ ও রাসূলের ফায়সালাকে আনন্দের সঙ্গে মেনে নেয়। তারা আল্লাহ ও তার রাসূলের অনুসরণ, সংযম ও আল্লাহকে ভীতির গুণে গুণান্বিত। যারা এ গুণের অধিকারী নয় তারা সাফল্য লাভের অধিকারী নয়। পরকালে যখন কাফিরদের শাস্তি দেয়া হবে তখন তারা আফসোস করবে। তারা বলবে, হায়! আমরা যদি আল্লাহ ও আল্লাহর রাসূলের অজ্ঞা পালন করতাম! কিন্তু তখন তাদের আফসোস কোনো কাজে লাগবে না। পবিত্র কোরআনে বর্ণিত হয়েছে, ‘আর যে কেউ আল্লাহর আনুগত্য করে এবং রাসূলের অনুসরণ করে, সে তো অবশ্যই মহাসাফল্য লাভ করবে। (সূরা আজহাব-৭১)। আমরা রাসূলুল্লাহ (সা.)-এর জীবন ধারাকে আকড়ে ধরব। ইসলামী পরিভাষায় পবিত্র কোরআনে রাসূলকে অনুসরণের ব্যাপারে বহু আয়াতে তাগিদ দেয়া হয়েছে। সাহাবাদের কাছে রাসূল (সা.) কোনো বিষয় বর্ণনা করলে সাহাবারা বলতেন আমরা শুনলাম এবং মেনে নিলাম। তাই আমাদের নির্দ্বিধায় তা মেনে নিতে হবে। আর এভাবেই আমরা দুনিয়া ও আখিরাতে শান্তি লাভ করতে পারব, ইনশাআল্লাহ। লেখক : প্রাবন্ধিক

এ রকম আরোও খবর

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ