এই ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে হবে

প্রকাশিত : ১০ জানুয়ারী, ২০১৬
গণবিপ্লব অনলাইন
ডেস্ক রিপোর্ট

গোল্ডম্যান স্যাকসের মতে, বাংলাদেশের অর্থনীতি আশু সম্ভাবনার সর্বোচ্চ ১১টির মধ্যে রয়েছে। জেপি মর্গান এক কদম এগিয়ে অগ্রসরমান দেশগুলোর মধ্যে ‘ফ্রন্টিয়ার ফাইভে’ উন্নীত করেছেন। গত কয়েক বছরে অর্থনীতির ক্ষেত্রে বিস্ময়কর এই অর্জন। অভ্যন্তরীণ রাজনীতির বাধার কারণে বার বার হোঁচট খেলেও ঘুরে দাঁড়িয়েছে দেশের অর্থনীতি। যার স্বীকৃতি মিলেছে বিশ্বব্যাংকের কাছ থেকেও। সম্প্রতি বাংলাদেশ সফর করে বিশ্বব্যাংকের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট ড. কৌশিক বসু দেশের অর্থনীতি সম্পর্কে বলেছেন, বিশ্ব মন্দার মধ্যে গত ৫-৬ বছর ধরে গড়ে ৬ শতাংশের বেশি জিডিপি প্রবৃদ্ধি হয়েছে বাংলাদেশের। নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতুর মতো বড় প্রকল্পের কাজ শুরু করেছে। মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হতে যাচ্ছে বাংলাদেশ। ড. কৌশিক বসুর এই পর্যবেক্ষণ নিঃসন্দেহে ইতিবাচক। বাংলাদেশকে মধ্যম আয়ের দেশে পৌঁছাতে হলে কাঙ্খিত প্রবৃদ্ধি অর্জনসহ অন্যান্য সূচকেও ভালো করতে হবে। অর্থনীতিতে এগিয়ে আসা মধ্যম আয়ের দেশে রূপান্তরের প্রত্যাশাকে আরো বেশি প্রাণিত করবে বলে প্রতীয়মান হয়।
বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্রে জানা গেছে, ২০০৮-০৯ অর্থবছরে দেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধি হয়েছিল ৫ দশমিক ৫ শতাংশ। গত অর্থবছরে গড় বৃদ্ধি হয়েছে ৬ দশমিক ২ শতাংশ। বিশ্ব অর্থনীতিতে প্রবৃদ্ধির মন্দার পরিবেশ থাকার পরও বাংলাদেশের এই প্রবৃদ্ধির হার বিস্মিত করেছে অর্থনীতিবিদদের। ড. কৌশিক বসু মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশের এই প্রবৃদ্ধি আগামী কয়েক বছরের মধ্যে ৮ শতাংশে পৌঁছাবে। মূল্যস্ফীতির দিকে তাকালে দেখা যায়, ২০১১ সাল থেকে মূল্যস্ফীতির হার ধারাবাহিকভাবে কমছে। বার্ষিক গড় মূল্যস্ফীতি ডিসেম্বর ২০১৪ এবং জুন ২০১৫ তে যথাক্রমে ৬ দশমিক ৯৯ শতাংশ ও ৬ দশমিক ৪ শতাংশ। নভেম্বর ২০১৫ সালে মূল্যস্ফীতির হার ৬ দশমিক ২ শতাংশ। অর্থনীতিবিদরা মূল্যস্ফীতির এই হারকে সহনীয় হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন। রপ্তানি আয়েও পিছিয়ে নেই বাংলাদেশ। দেশের অর্থনীতির অন্যতম চালিকা মোবাইল ব্যাংকিং বিস্ময় সৃষ্টি করেছে। ২০১০ সালে মোবাইল ব্যাংকিং চালু করে বাংলাদেশ ব্যাংক। ইতোমধ্যে ২৮টি ব্যাংক মোবাইল ব্যাংকিং সেবা দিয়ে যাচ্ছে। বর্তমানে মোবাইল ব্যাংক গ্রাহকের সংখ্যা ৩ কোটি। ৫ লাখ এজেন্টের মাধ্যমে প্রতিদিন গড়ে ৫০০ কোটি টাকা লেনদেন হচ্ছে মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে।
অর্থনীতির ধারাবাহিক গতিশীলতা একটি রাষ্ট্রের সামগ্রিক উন্নয়নের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। অভ্যন্তরীণ নানা প্রতিকূলতা সত্ত্বেও বাংলাদেশ অর্থনীতিতে এগিয়ে যাচ্ছে। এটা সাফল্যের একটি অংশ। লক্ষণীয় যে, গত ছয় বছরে দেশের আর্থিক খাতের সব সূচকে সুবিধাজনক অবস্থানে থেকে মাথাপিছু আয়, সরকারি বিনিয়োগ, বাজেটের আকার, রেমিট্যান্স, বিদ্যুৎ উৎপাদন, আমদানি-রপ্তানি বৃদ্ধিসহ নানা খাতে দেশ এগিয়ে চলেছে। শুধু তাই নয়, সামাজিক সূচকেও বিস্ময়করভাবে তার সাফল্যের ধারা অব্যাহত রেখেছে, একই সঙ্গে গ্রামাঞ্চলে দারিদ্র্যের হারও লক্ষণীয়ভাবে কমেছে। অর্থনৈতিক সূচকে উন্নয়ন ঘটলে আন্তর্জাতিক অঙ্গনেও রাষ্ট্রের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল হয়। এতে বিদেশি বিনিয়োগকারীরাও বিনিয়োগে উৎসাহিত হয়, বিদেশি ঋণসহায়তার ক্ষেত্রেও তা ইতিবাচক ভূমিকা রাখে বলে মনে করেন অর্থনৈতিক বিশ্লেষকরা। ফলে আমাদের আর পেছনে ফিরে তাকানোর কোনো অবকাশ নেই। পদ্মা সেতু বাংলাদেশের জিডিপি ১ শতাংশের বেশি বাড়াবে বলে আশা করছেন বিশেষজ্ঞরা। ফলে অভ্যন্তরীণ সক্ষমতা অর্জনে জিডিপি প্রবৃদ্ধি ঘটে এমন খাতের দিকেও সঙ্গত কারণে গুরুত্ব দিতে হবে। এ জন্য শ্রম রপ্তানির ওপর অধিকহারে গুরুত্ব দেয়া যেতে পারে। রেমিট্যান্স প্রবাহ বাড়লে তা জাতীয় প্রবৃদ্ধি অর্জনের ক্ষেত্রে ইতিবাচক পরিবর্তন আনবে বলে আশা করা যায়। কাঙ্খিত লক্ষ্যে পৌঁছাতে সাফল্যের এ ধারাবাহিকতা অক্ষুণœ রাখতে সরকার সময়োপযোগী কার্যকর উদ্যোগ নেবে বলেই আমাদের প্রত্যাশা।

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ