একশত অর্থনৈতিক অঞ্চল ঘোষণা

প্রকাশিত : ২৪ অক্টোবর, ২০১৫
গণবিপ্লব
রিপোর্ট

দেশি-বিদেশি বিনিয়োগ বাড়াতে পর্যায়ক্রমে ১০০টি অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠার পরিকল্পনা নিয়েছে সরকার। অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপরে গভর্নিং বোর্ডের বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই কথা জানিয়েছেন। দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে এই উদ্যোগ অত্যন্ত সময়োপযোগী। ইতোমধ্যে দেশে ২১টি অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। বিনিয়োগ, শিল্পায়ন ও কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করতে এ সংখ্যা একশতে উন্নীত করার ল্েয সরকার কাজ করে যাচ্ছে। এতে দেশের অর্থনৈতিক অগ্রগতি আরো গতিশীল হবে। গত ২১ অক্টোবর(বুধবার) প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপরে গভর্নিং বোর্ডের তৃতীয় বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী দেশে ুদ্র ও মাঝারি শিল্প গড়ে তোলার তাগিদ দিয়ে দেশি-বিদেশি বিনিয়োগ বাড়াতে নতুন নতুন ধারণা নিয়ে কাজ করার ওপর গুরুত্ব দিয়েছেন। ইতোমধ্যে নতুন কয়েকটি অর্থনৈতিক অঞ্চলের স্থান নির্ধারণ করা হয়েছে। বিভিন্ন অঞ্চলের সম্ভাবনার বিষয় বিবেচনায় নেয়ার প্রয়োজনীয়তার ওপর গুরুত্বারোপ করে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, সংশ্লিষ্ট এলাকার সম্পদের পর্যাপ্ততার ভিত্তিতে বিশেষ করে দ্র ও মাঝারি শিল্প প্রতিষ্ঠা করতে হবে। ওইসব এলাকার যোগাযোগ ব্যবস্থাও বিবেচনায় নিতে হবে। এ ধরনের উদ্যোগ বিপুল কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করবে।
সরকার ২০২১ সালের আগেই বাংলাদেশকে মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত করতে বিভিন্ন পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে। সেই অনুযায়ী কাজও করছে। এ েেত্র অর্থনৈতিক উন্নয়ন পূর্বশর্ত। অর্থনৈতিক েেত্র দ্রুতবেগে দেশকে এগিয়ে নিতে সরকার এমন কিছু পদপে নিয়েছে যা প্রশংসার দাবিদার। এর মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ পদপেটি হলো নতুন অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠা। অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠিত হলে দেশি-বিদেশি বিনিয়োগে নতুন প্রবাহ সৃষ্টি হবে। বিদেশি বিনিয়োগ বাড়লে সৃষ্টি হলে বাংলাদেশ দণি এশিয়ার অন্যতম উৎপাদন কেন্দ্রে পরিণত হবে। এ উদ্দেশ্যে চলতি অর্থবছরে মৌলভীবাজার, কক্সবাজার এবং কেরানীগঞ্জে জমি অধিগ্রহণ করা হয়েছে। ২০১৫-১৬ অর্থবছরে গাজীপুরে একটি, চট্টগ্রামে দুটি ও জামালপুরে একটি অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠা করা হবে। ২০১৬-১৭ অর্থবছরে চট্টগ্রাম, সিরাজগঞ্জ ও পঞ্চগড়ে প্রতিষ্ঠা করা হবে ৪টি অর্থনৈতিক অঞ্চল এবং ২০১৭-১৮ অর্থবছরে নরসিংদী, মানিকগঞ্জ ও বরিশালে গড়ে তোলা হবে ৩টি অর্থনৈতিক অঞ্চল। আগামী ১৫ বছরের মধ্যে দেশে ১০০টি অর্থনৈতিক অঞ্চল স্থাপনের মাধ্যমে ১ কোটি মানুষের কর্মসংস্থান এবং ৪ হাজার মার্কিন ডলারের পণ্য রপ্তানির ল্েযই একের পর এক অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তোলা হবে।
বিনিয়োগ ও রপ্তানি আয় বৃদ্ধি এবং কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টির জন্য অর্থনৈতিক অঞ্চল নিয়ে নতুন আশাবাদ তৈরি হয়েছে।
অর্থনৈতিক অঞ্চলগুলো হলে বাংলাদেশের চেহারাই বদলে যাবে। অর্থনৈতিক অঞ্চলগুলো প্রতিষ্ঠিত করতে হলে দেশি-বিদেশি বিনিয়োগ বাড়ানোর বিকল্প নেই। বিদেশি বিনিয়োগ আকৃষ্ট করার জন্য সস্তায় শ্রম পাওয়ার যথেষ্ট সুযোগ রয়েছে বাংলাদেশে। জিএসপি সুবিধাও এ েেত্র একটি বাড়তি বিবেচনা। অবকাঠামো ও বিদ্যুৎ সমস্যার েেত্র অনেক উন্নতি হয়েছে। রাজনৈতিক পরিস্থিতিও তুলনামূলকভাবে এখন ভালো। জাপানের বিনিয়োগকারীদের সংগঠন জেট্রোর বাংলাদেশে বিনিয়োগের সমস্যা শীর্ষক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বাংলাদেশে বিনিয়োগের েেত্র ১৩টি বাধা রয়েছে। সেসব সমস্যার সমাধানে কার্যকর উদ্যোগ গ্রহণ প্রয়োজন। সর্বোপরি, দেশে বিনিয়োগ বাড়াতে হলে সর্বাগ্রে রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা প্রতিষ্ঠিত করতে হবে। এর পাশাপাশি বিনিয়োগকারীদের গ্রামমুখী করার ব্যবস্থা করতে হবে। তাদের দিতে হবে আয়কর মুক্তি। দূর করতে হবে অবকাঠামোগত অসুবিধা ও যোগাযোগের সমস্যা। বিদ্যুৎ ও গ্যাস সরবরাহ নিশ্চিত করতে হবে। দেশি-বিদেশি বিনিয়োগ বৃদ্ধির মাধ্যমে অর্থনীতিকে সমৃদ্ধ করার জন্য এসব পদপে গ্রহণ জরুরি। তাহলেই অর্থনৈতিক অঞ্চলগুলো প্রতিষ্ঠার সাফল্য বয়ে আসবে।

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ