এটি একটি দুর্ঘটনা,যত দ্রুত সম্ভব রেল যোগাযোগ চালু করা হবে : রেলপথ মন্ত্রী মজিবুল হক

প্রকাশিত : ২১ আগস্ট, ২০১৭

কালিহাতী প্রতিনিধি:

টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলার পৌলী নদীর ওপর রেলসেতুর দক্ষিণ অংশের মাটি ধসে ঢাকার সঙ্গে উত্তরাঞ্চল ও দক্ষিণাঞ্চলের রেল যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে। রোববার (২০ আগস্ট) ভোর এ ঘটনাটি ঘটেছে।

রোববার (২০ আগস্ট) দুপুরে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন রেলপথ মন্ত্রি মজিবুল হক। তিনি বলেন নদীর পানির প্রবল স্রোতে রেলসেতুটিতে ধস নেমেছে। আমাদের রেলওয়ে’র প্রধান প্রকৌশলীর নেতৃত্বে একটি বিশেষ টীম কাজ করছে। মেরামতের সকল উপাদান ইতোমধ্যে পৌঁছে গেছে। আশা করছি সোমবারের (২১ আগস্ট) মধ্যে মেরামত কাজ শেষ হয়ে ঢাকা থেকে উত্তর ও দক্ষিণাঞ্চলের রেল যোগাযোগ স্বাভাবিক হয়ে যাবে।

তিনি আরো বলেন নদীর মধ্যে যদি কেউ ড্রেজার দিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করে থাকে তবে তা খতিয়ে দেখে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। ঢাকা-টাঙ্গাইল সরাসরি কমিউটার রেল যোগাযোগ স্থাপনের বিষয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে মজিবুল হক বলেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যা প্রতিশ্রুতি দেন তা বাস্তবায়ন করেন। প্রধানমন্ত্রী যদি প্রতিশ্রুতি দিয়ে থাকেন তাহলে আপনাদের (টাঙ্গাইলের মানুষের) দাবি অবশ্যই পূরণ হবে।

জানা যায়, রোববার (২১ আগস্ট) ভোর সাড়ে ৫টার দিকে স্থানীয়রা পৌলী রেল সেতুর মাটি ধসে যেতে দেখে প্রশাসনকে অবহিত করেন। পরবর্তীতে তারা লাল কাপড় টানিয়ে সতর্ক বার্তা প্রদর্শন করেন।

টাঙ্গাইল রেলওয়ে স্টেশন মাস্টার জালাল উদ্দিন গণবিপ্লব’কে জানান, রোববার (২০ আগস্ট) ভোর সাড়ে ৫টার দিকে খুলনা থেকে ঢাকাগামী সুন্দরবন এক্সপ্রেস ওই এলাকা পার হওয়ার পরপরই মাটি ধসে যাওয়ার বিষয়টি নজরে আসে। রেলসেতুর দক্ষিণ পাশে প্রায় ২০ ফুট এলাকার মাটি ধসে গিয়ে বিশাল গর্তের সৃষ্টি হয়েছে বলেও জানান তিনি।

খবর শুনেই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন টাঙ্গাইলের জেলা প্রশাসক খান মো. নুরুল আমীন, পুলিশ সুপার মাহবুব আলম (পিপিএম), কালিহাতী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোজহারুল ইসলাম তালুকদার, কালিহাতী উপজেলা নির্বাহী অফিসার আবু নাসার উদ্দিন, এলেঙ্গা পৌরসভার মেয়র শাফি খান ও রেলওয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

রেলওয়ে পশ্চিম অঞ্চলের প্রধান প্রকৌশলী রমজান আলী গণবিপ্লব’কে জানান, আমরা জায়গাটি পরিদর্শন করেছি। মাটি ধসে গিয়ে ২০ ফুটের মত গর্তের সৃষ্টি হয়েছে।

পৌলী রেলসেতুর কাছে নীলফামারী থেকে ঢাকাগামী নীলসাগর এক্সপ্রেস , বঙ্গবন্ধু সেতুর পূর্ব স্টেশনে ঢাকাগামী রংপুর এক্সপ্রেস , বঙ্গবন্ধু সেতুর পশ্চিম স্টেশনে দিনাজপুর থেকে ঢাকাগামী একতা এক্সপ্রেস এবং ঢাকা থেকে রাজশাহীগামী ধূমকেতু এক্সপ্রেস রেলগুলো আটকা পড়ে । এতে হাজার হাজার যাত্রী চরম দুর্ভোগের শিকার হন।

পাকশী ও ঢাকা থেকে রেলওয়ের প্রকৌশলী বিভাগের কর্মীরা সেতুর মেরামত করার জন্য কাজ শুরু করেছে।
এলাকাবাসীর অভিযোগ রেলসেতু ঘেষে দীর্ঘদিন যাবত স্থানীয় কতিপয় প্রভাবশালী ব্যক্তি বাংলা ড্রেজার মেশিন দিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করছে। যার ফলেই পৌলীর দেশের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এই রেলসেতু হুমকির মুখে এবং সেতুতে ধস নেমেছে।

সাপ্তাহিক গণবিপ্লব
এইমাত্র পাওয়া