এলজিইডি’র সোয়া ৭৪ কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ নো-কম্প্রোমাইজে এগিয়ে চলছে

Tangail Pic-বুলবুল মল্লিকঃ টাঙ্গাইল এলজিইডি’র নিয়ন্ত্রণে ৭৪ কোটি ২২ লাখ টাকা ব্যয়ে ব্রিজ ও সড়ক উন্নয়নের কাজ দ্রুত গতিতে এগিয়ে চলছে। এরমধ্যে ৬টি সড়কের কাজ সম্পন্ন হয়েছে এবং ৩টি ব্রিজের কাজ দ্রুত গতিতে এগিয়ে চলছে। কাজের গুণগত মান নিশ্চিত করতে নির্বাহী প্রকৌশলী নো-কম্প্রোমাইজ নীতি গ্রহন করায় কোন ঠিকাদার মনোকষ্ট পেলেও জনসাধারণের স্বার্থ রক্ষা হচ্ছে ষোলআনা।
টাঙ্গাইল স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর(এলজিইডি) সূত্রে জানাগেছে, ব্রিজ ও সড়কের কাজে চুক্তিমূল্য ধরা হয়েছে ৭৪ কোটি ২২ লাখ ২২ হাজার ৫৪১ টাকা। এলজিইডির এসব কাজের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে, টাঙ্গাইলের নাগরপুর উপজেলার নাগরপুর-মির্জাপুর ভায়া মোকনা উপজেলা সড়কে ধলেশ্বরী নদীর উপর ৫২০.৬০ মিটার পিসি গার্ডার ব্রিজ। এ ব্রিজ নির্মাণে চুক্তিমূল্য ধরা হয়েছে ৫৫ কোটি ৪৭ লাখ ১৫ হাজার ৮০৭ টাকা এবং সংযোগ সড়কের জন্য ধরা হয়েছে ৯ কোটি টাকা।
জানা যায়, ধলেশ্বরী নদীর উপর নির্মাণাধীন ব্রিজের কাজ দ্রুত গতিতে এগিয়ে চলছে। ইতিমধ্যে ব্রিজের ৪০ ভাগ কাজ সম্পন্ন করা হয়েছে। ব্রিজটি নির্মাণ করছে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মীর আক্তার হোসেন লি.। গত বছর ৩০ জুন এ ব্রিজ নির্মাণের কাজ শুরু করা হয়েছে। সিডিউল অনুযায়ী কাজ শেষ করার কথা রয়েছে আগামী ২০১৬ সালের ৩০ জুন। এ ব্রিজ নির্মাণে আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করা হচ্ছে বলে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের প্রজেক্ট ম্যানেজার আবু সাদাত সায়েম জানান। সংশ্লিষ্টরা জানান, এ ব্রিজ নির্মিত হলে নাগরপুরসহ বিশাল চরাঞ্চলের হাজার হাজার মানুষ খুব সহজেই সারুটিয়া-ধামরাই হয়ে ঢাকা যেতে পারবেন। এতে তাদের অন্তত ৫০ কি.মি. রাস্তা কমে যাবে, সময়ের ব্যয় কমবে অর্ধেক। এখন তাদের নানা কাজে রাজধানী ঢাকায় যেতে হচ্ছে টাঙ্গাইল হয়ে। ফলে সময় ও অর্থ দুটোই নষ্ট হচ্ছে, বঙ্গবন্ধুসেতু-ঢাকা মহাসড়কে নিত্যদিনের যানজটে সীমাহীন দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। তাছাড়া এ ব্রিজটি চালু হলে ওই এলাকার গ্রামীণ অর্থনীতি যেমন উজ্জীবিত হবে তেমনি গ্রাম ও শহরের মধ্যে পার্থক্য কমে যাবে। একইসাথে ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প গড়ে ওঠার সহায়ক হবে এবং কৃষিজাত ও শিল্পে উৎপাদিত পণ্য সহজেই বাজারজাত করা সম্ভব হবে।
এলাকাবাসী জানায়, ধলেশ্বরী নদীর এ স্থানের উপর দিয়ে নৌকায় লোকজন ও ছোট যানবাহন পারাপার করা হয়। নৌকায় প্রতিদিন ন্যূনতম দুই হাজার লোক পারাপার হয়। এখানে একটি ব্রিজ নির্মাণ তাদের প্রাণের দাবি ছিল, অবশেষে এলজিইডি’র উদ্যোগে তাদের দাবি পূরণ হতে চলছে। ব্রিজটি চলাচলের জন্য উন্মুক্ত হলে এলাকাবাসীর জন্য খুবই ভাল হয়।
এছাড়া মির্জাপুর উপজেলার মির্জাপুর-পাথরঘাটা সড়কে বংশাই নদীর উপর নির্মিত হচ্ছে ৮ কোটি ২৫ লাখ ৮১ হাজার ৬৩৩ টাকা চুক্তিমূল্যের ৩০০ মিটার দীর্ঘ পিসি গার্ডার ব্রিজ। একই উপজেলার বটতলা-কুড়াতলী-লতিফপুর সড়কে বংশাই নদীর উপর নির্মিত হচ্ছে ৩২০ মিটার দীর্ঘ আরো একটি ব্রিজ। এ ব্রিজের চুক্তিমূল্য ধরা হয়েছে ৬ কোটি ১৩ লাখ ৪ হাজার ৪৮৪ টাকা।
স্থানীয়রা জানায়, এ এলাকার অন্তত ৭০টি গ্রামের মানুষ চলাচল করে বংশাই নদীর এ অংশের উপর দিয়ে। এখানে ব্রিজটি নির্মিত হলে মানুষের যেমন উপকার হবে তেমনি এলাকারও উন্নয়ন হবে।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে প্রকাশ, টাঙ্গাইল এলজিইডি’র তত্ত্বাবধানে ইতোমধ্যে বিভিন্ন উপজেলায় ৬টি জনগুরুত্ব¡পূর্ণ সড়কের উন্নয়ন কাজ সম্পন্ন করা হয়েছে। এসব সড়কের উন্নয়ন কাজে চুক্তিমূল্য ছিল ৯ কোটি ৮৯ লাখ ২৭ হাজার ৭৫৯ টাকা। সড়কগুলোর মধ্যে টাঙ্গাইল সদর উপজেলার টাঙ্গাইল-আয়নাপুর সড়কের পুণর্বাসন কাজ করা হয় ৯.২৯০ কি.মি., টাঙ্গাইল-চারাবাড়ী-তোরাবগঞ্জ-শাহজানী সড়ক মেরামত করা হয় ৫.৫০০ কি.মি., রসুলপুর হাইস্কুল-বড় বাসালিয়া হাট খোলামোড় সড়কের উন্নয়ন কাজ করা হয় ১.২০০ কি.মি. এবং একই উপজেলার আশেকপুর-গোসাই জোয়াইর সড়কের এক কিলোমিটার পর্যন্ত পাকা করণের কাজ সম্পন্ন করা হয়। এছাড়া সখীপুর উপজেলার সখীপুর-সাগরদিঘী ভায়া বড়চওনা সড়কের পুনর্বাসন কাজ করা হয় ১৪.৬৬০ কি.মি. এবং মির্জাপুর উপজেলার দেওহাটা-ধানতারা জিসি সড়কের ২.৭৮০ কিলোমিটার সড়ক মেরামত করা হয়। সড়কের নির্মাণ কাজে এলাকাবাসী খুবই খুশি। তারা আগে এত ভাল কাজ আগে দেখেনি বলে জানায়। এলজিইডি’র উন্নয়ন কাজে সন্তোষ প্রকাশ করে মীর দেওহাটা গ্রামের শাহীনুর মিয়া, গজনবী খন্দকার, আবুল হোসেন সহ অনেকেই জানান, আগে সড়কটি এতই খারাপ ছিল যে, চলাচলই করা যেত না। খঅনাখন্দে ভরপুর সড়কে সব সময় পানি জমে থাকত। সড়ক মেরামতের সময় নির্বাহী প্রকৌশলী মিজানুর রহমানকে তারা কাজের অগ্রগতি তদারকি করতে এবং কাজের গুণগত মান পরীক্ষা করতেও দেখেছেন। সড়ক মেরামত করায় এখন তাদের খুব সুবিধা হয়েছে।
এ বিষয়ে টাঙ্গাইল এলজিইডি’র নির্বাহী প্রকৌশলী মিজানুর রহমান জানান, কাজগুলো খুব মানসম্পন্নভাবে করা হয়েছে। আমরা কাজের গুণগত মানের ক্ষেত্রে নো-কম্প্রোমাইজ নীতি অবলম্বন করেছি। আগামী ৫-৭ বছরের মধ্যে এসব সড়কের ইট-খোয়া তথা বিটুমিন উঠে গেলে চাকরি ছেড়ে দেবেন বলে তিনি চ্যলেঞ্জ ছুড়ে দেন। জনগণের সর্বোচ্চ সেবা নিশ্চিত সরকারি অর্থের প্রতিটি টাকার সদ্যব্যবহার করা হয়েছে। তিনি বলেন, জনগনের শাসক হিসেবে নয়, সেবক হিসেবে আমরা কাজ করছি। তিনি আরও বলেন, প্রধান প্রকৌশলীর দ ও গতিশীল নেতৃত্বে এলজিইডি’র টাঙ্গাইল টিম একটু আলাদা স্পিরিট নিয়ে কাজকে নিজের মনে করে উন্নয়ন কাজের সর্বোচ্চ গুনগতমান বজায় রেখে সড়ক, ব্রিজ, কালভার্টসহ সরকারি কাজগুলো বাস্তবায়ন করে যাচ্ছে।

এ রকম আরোও খবর

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ