করটিয়া হাটের খাস জমিতে বহুতল ভবণ নির্মাণের অভিযোগ

প্রকাশিত : ১৯ মার্চ, ২০২০

টাঙ্গাইল ১৯ মার্চ : টাঙ্গাইল সদর উপজেলার ঐতিহ্যবাহী করটিয়া হাট সংলগ্ন সরকারি খাস জমি দখল করে বহুতল ভবন নির্মানের অভিযোগ উঠেছে তিন ভাইয়ের বিরুদ্ধে। স্থানীয়দের অভিযোগ ওই এলাকার সম্পর্কে চাচাতো তিনভাই প্রয়াত জীতেন চন্দ্র দাসের ছেলে জীবন চন্দ্র দাস, প্রয়াত আসুতোষ দাসের ছেলে আনন্দ চন্দ্র দাস ও অজিৎ চন্দ্র দাসের ছেলে অজয় চন্দ্র দাস সরকারি খাস জমি দখল করে বহুতল ভবণ নির্মান করছে। কয়েক সপ্তাহ আগে স্থানীয় নায়েব নির্মান কাজ বন্ধ করে দিলেও রহস্যজনকভাবে আবার তারা স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের প্রভাব খাটিয়ে নির্মাণ কাজ শুরু করেছেন। তবে ওই তিন ভাইয়ের দাবি পৈত্রিক সম্পত্তিতে তারা নির্মান করছেন ভবণ। যদিও ওই সম্পতির বৈধ কোন কাগজ দেখাতে পারেননি তারা।

স্থানীয়দের অভিযোগ, করটিয়া মৌজার করটিয়া হাট সংলগ্ন সরকারি খাস ১২ শতাংশ জায়গার উপর তিন ভাই পৃথক পৃথক তিনটি বহুতল ভবণ নির্মান কাজ শুরু করেছেন। স্থানীয়রা প্রশাসনকে জানালেও প্রশাসন কোন প্রয়োজনীয় প্রদক্ষেপ গ্রহণ করেননি।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ভবণ গুলোতে নির্মাণ শ্রমিকরা কাজ করছেন। তিনটি ভবনের নিচের বেসের কাজ প্রায় শেষ। পিলারের কাজ চলমান। জমির কাগজপত্র দেখতে চাইলে অজয় চন্দ্র দাস, জীবন চন্দ্র দাস ও আনন্দ চন্দ্র দাস বৈধ কোন কাগজ পত্র দেখাতে পারেনি।

করটিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মাজেদুল আলম নদী গণবিপ্লব-কে বলেন, সরকারি জায়গায় বহুতল ভবন করায় প্রায় দেড় মাস আগে সদর উপজেলার ইউএনও নির্মাণ কাজ বন্ধ করে দিয়েছিলেন। ইউএনও এসে বলেছিলেন, সরকারি জায়গায় টিনসেড ভবণ করার অনুমতি আছে। কিন্তু বহুতল ভবন করার অনুমতি নেই। কাজটি কয়েক সপ্তাহ বন্ধ ছিলো। আবার কোন কিছুর বিনিময়ে নির্মাণ কাজটি পূণরায় শুরু করেছে।

অভিযোগ অস্বীকার করে করটিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান খালেকুজ্জামান চৌধুরী গণবিপ্লব-কে বলেন, আমি যতটুকু জানি তারা তাদের পৈত্রিক সম্পত্তিতে ভবণ নির্মাণ করছেন। আমি তাদের ভবণ নির্মাণের জন্য কোন অনুমতি দেইনি। তাদের জমির পর্যাপ্ত কাগজপত্র রয়েছে।

সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. শাহজাহান আনছারী গণবিপ্লব-কে বলেন, করটিয়া হাটের জমি হচ্ছে ৮৮২ দাগের। আর তারা ৮৬০ দাগের ১/১ খতিয়ানের জমিতে বহুতল ভবণ নির্মাণ করছেন। তাদের বৈধ কাগজপত্র আছে কিনা আমি সঠিক বলতে পারবো না। তবে তারা দীর্ঘদিন যাবত ওই জমিতে বসবাস করছেন।

এ বিষয়ে সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আতিকুল ইসলাম গণবিপ্লব-কে বলেন, ওই জায়গা বৈধ না অবৈধ আমি কিছু জানি না। বন্ধ থাকা কাজ চালু করার জন্য উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে কোন অনুমতি দেয়া হয়নি। তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।

সাপ্তাহিক গণবিপ্লব

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া