প্রকাশকাল: ১১ জুলাই, ২০১৮
দোষীদের শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন ; হরতাল প্রত্যাহার

কালিহাতীতে আ’লীগ নেতার ওপর হামলার ঘটনায় গ্রেপ্তার ৩

স্টাফ রিপোর্টার:

টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলা আওয়ামী লীগের ৩ নেতার উপর হামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করা হয়েছে। বুধবার(১১ জুলাই) সকালে স্থানীয় চারটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্র-ছাত্রী ও শিক্ষক অভিভাবকরা মানববন্ধনে অংশগ্রহণ করেন। হামলায় জড়িত থাকার অভিযোগে তিনজনকে মঙ্গলবার(১০ জুলাই) দিবাগত রাতে সখীপুর থেকে গ্রেপ্তার করে। এ কারণে বুধবারের(১১ জুলাই) অর্ধদিবস হরতাল প্রত্যাহার করে নেয় শ্রমিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

 

 

 

কালিহাতী বাসষ্ট্যান্ড চত্ত্বরে আয়োজিত মানববন্ধন কর্মসূচিতে কালিহাতী কলেজ, কালিহাতী আরএস পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়, সাতুটিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও স্থানীয় একটি মাদ্রাসার ছাত্র-ছাত্রী, শিক্ষক ও অভিভাবকরা অংশ নেয়। মানববন্ধন থেকে বক্তারা হামলার তীব্র নিন্দা জানান ও দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন।

কালিহাতী থানার পরিদর্শক(ওসি) মীর মোশারফ হোসেন বলেন, আওয়ামীলীগ নেতাদের উপর হামলার ঘটনায় তিন জনকে সখীপুর উপজেলা থেকে মঙ্গলবার দিবাগত রাত আড়াই টার দিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তবে আওয়ামীলীগ নেতাদের ওপর হামলার ঘটনায় মামলা দায়ের না হওয়ায় গ্রেপ্তারকৃতদের কালিহাতী পৌর এলাকার মোশারফ হোসেনের দায়ের করা মামলায় তাদের  গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে। পরে বুধবার(১১ জুলাই) দুপুর ১২ টায় গ্রেপ্তারকৃতদের টাঙ্গাইল কারাগারে পাঠানো হয়েছে। এছাড়া, হরতালে অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে ও আইন শৃঙ্খলা স্বাভাবিক রাখতে বুধবার ভোর থেকে বিভিন্ন স্পটে অতিরিক্তি পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছিল। তবে আসামীদের গ্রেপ্তাতারের খবর পেয়ে সকাল ৭ টার দিকে শ্রমিকরা হরতাল প্রত্যাহার করে নেয়।

গ্রেপ্তারকৃতরা হচ্ছেন, কালিহাতী পৌরসভার ঝগড়মান গ্রামের আমির হামজার ছেলে আরিফুর রহমান শান্ত(২২), আব্দুল মান্নানের ছেলে স্বাধীন(২২) ও দুলাল মিয়ার ছেলে রুমেল (২০)। ওই ঘটনায় জড়িত অন্যদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

এদিকে, কালিহাতী উপজেলা শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি ওয়ারেসুল হাসান সিদ্দিকী বলেন, ঘটনার মূল আসামিরা গ্রেপ্তার হওয়ায় প্রশাসনের অনুরোধে বুধবার সকাল ৬টা থেকে ১২ পর্যন্ত ঘোষিত অর্ধদিবস হরতাল প্রত্যাহার করে নেয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য, কালিহাতী উপজেলা সদরের সাতুটিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের একটি পরিত্যাক্ত ভবন নিলামে বিক্রি করা হয়। ঠিকাদার ভবনটি ভাঙতে গেলে গ্রেপ্তারকৃতরা চাঁদা দাবি করে। পরে বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি ও উপজেলা আওয়ামীলীগের শ্রম বিষয়ক সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিনের উপস্থিতিতে ভবনটি ভাঙতে গেলে শান্ত’র নেতৃত্বে একদল সন্ত্রাসী দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে হামলা চালায়। হামলায় শ্রমিক নেতা আমিনুল ইসলাম আমিন, পৌর যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক রাশেদুল ইসলাম রাশেদ ও পৌর শ্রমিক লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক রাইসুল ইসলাম রাসেল গুরুতর আহত হন। আহতরা বর্তমানে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসাপাতালে চিকিসাৎধীন রয়েছেন। পরে মঙ্গলবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত বিক্ষুব্ধ শ্রমিকরা টাঙ্গাইল-ময়মনসিংহ আঞ্চলিক মহাসড়কের কালিহাতী বাসস্ট্যান্ডে টায়ারে আগুন জ্বালিয়ে অবরোধ করে বিক্ষোভ করে। এসময় টাঙ্গাইলের এলেঙ্গা থেকে ঘাটাইল পর্যন্ত প্রায় ২০ কিমি এলাকায় তীব্র যানযটের সৃষ্টি হয়। পরে প্রশাসনের হস্তক্ষেপে বিক্ষোভকারীরা অবরোধ তুলে নেয়। শ্রমিকরা হামলার ঘটনায় স্থানীয় সরকার দলীয় সংসদ সদস্য হাছান ইমাম খান সোহেল হাজারির সম্পৃক্ততার অভিযোগে তাঁকে কালিহাতীতে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করেন। একই সাথে কালিহাতী থানার ওসি মীর মোশারফ হোসেন ও সেকেন্ড অফিসার এসআই মেহেদী হাসানের গাফিলতির অভিযোগে তাদেরকে প্রত্যাহারের দাবি জানান। তাদের সাথে যোগ দেন স্থানীয় আওয়ামীলীগ ও এর সহযোগী সংগঠনের বিভিন্ন স্তরের নেতাকর্মীরা।

এ রকম আরোও খবর
এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ