কালিহাতীতে আ.লীগে মনোনয়ন প্রত্যাশীর ছড়াছড়ি

প্রকাশিত : ২৮ জানুয়ারী, ২০১৯
নিজস্ব প্রতিবেদক
টাঙ্গাইল

মুক্তিযুদ্ধের সূতিকাগার টাঙ্গাইলের কালিহাতী। টাঙ্গাইলসহ দেশের রাজনীতিতে কালিহাতী বিশেষ গুরুত্ব বহন করে। সারা দেশের ন্যায় কালিহাতীতেও বইছে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের হাওয়া। চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের একাধিক মনোনয়ন প্রত্যাশী মনোনয়ন পাবার আশায় কালিহাতীতে করছেন অব্যাহত গণসংযোগ এবং কেন্দ্রে চালাচ্ছেন জোর লবিং। সেইসাথে পুরুষ ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে মনোনয়ন প্রত্যাশীরা নেই পিছিয়ে। তারাও যার যার অবস্থান থেকে কাজ করে যাচ্ছেন। তারা পোষ্টার ব্যানার সাটিয়ে নিজেদের প্রার্থীতা প্রকাশ করছেন। ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগে প্রতিযোগিতা চললেও বিএনপিসহ অন্যান্য দলের প্রার্থীদের মাঠে নেই সাড়া শব্দ।

কালিহাতী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে মনোনয়ন প্রত্যাশী বর্তমান মোজহারুল ইসলাম তালুকদার ঠান্ডু, আনছার আলী বিকম, আনোয়ার হোসেন মোল্লা, আব্দুল মালেক ভূইয়া, হযরত আলী তালুকদার, রিয়াজ উদ্দিন আহমেদ, হানিফ উদ্দিন তালুকদার ও চান মাহমুদ পাকির আলী।

এদের মধ্যে সবচেয়ে শক্ত অবস্থানে আছেন কালিহাতী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের বর্তমান বর্তমান সফল চেয়ারম্যান। তিনি অনেক অত্যাচার-নির্যাতন সহ্য করে নিরলস পরিশ্রম করে নিজহাতে কালিহাতী উপজেলা আওয়ামী লীগকে সুসংগঠিত করে রেখেছেন। মোজহারুল ইসলাম তালুকদার ১৯৬৯ সালে সরকারি এমএম আলী কলেজ থেকে সরকারি এমএম কলেজে পড়াশোনা অবস্থায় কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সভাপতির দায়িত্ব, টাঙ্গাইল মহকুমা ছাত্রলীগের প্রচার সম্পাদক এবং পরে সাংগঠনিক সম্পাদকের দায়িত্বপালন করেন। ১৯৯২-৯৮ সালে প্রথম এবং ২০০৩-১১ সাল পর্যন্ত দ্বিতীয় বার নারান্দিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের দায়িত্বপালন করেন। ১৯৭৪-৭৭ সাল পর্যন্ত কালিহাতী থানা আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক, ১৯৭৭-৮৪ সাল পর্যন্ত কালিহাতী থানা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক, ১৯৮৪-৯০ সাল পর্যন্ত দুইবার কালিহাতী থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, ১৯৯০-৯১ সাল পর্যন্ত কালিহাতী উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক, ১৯৯১-২০১৪ সাল এবং ২০১৪ থেকে চতুর্থ মেয়াদে বর্তমান সময় পর্যন্ত তিনি দক্ষতার সাথে কালিহাতী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতির দায়িত্বপালন করছেন। তিনি ১৯৯৭ সালে টাঙ্গাইল জেলার শ্রেষ্ঠ চেয়ারম্যান হিসেবে স্বর্ণপদক লাভ করেন। ২০১৪ সালের উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ২৬ হাজার ভোট বেশি পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়ে সফলতার সাথে কাজ করছেন। আওয়ামী লীগের রাজনীতি করার কারনে এবং বঙ্গবন্ধু হত্যার প্রতিবাদ করতে গিয়ে তিনি একাধিক বার কারাবরণ এবং নির্যাতিত হয়েছেন। কালিহাতীর বিভিন্ন শিক্ষ-প্রতিষ্ঠান এবং সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন প্রতিষ্ঠা ও উন্নয়নে তার রয়েছেন অসামান্য অবদান।

আনছার আলী বিকম আনছার আলী বিকম দীর্ঘদিন ধরে কালিহাতী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্বপালন করছেন। এরআগে কালিহাতী উপজেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক ছিলেন। অনেক দুঃসময়ে তিনি দলকে নেতৃত্ব দিয়েছেন। তিনি কালিহাতী পৌরসভার সাবেক মেয়র ও কালিহাতী ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান। একজন সহজ-সরল মানুষ হিসেবে এলাকায় সুপরিচিত। তিনি মনোনয়ন প্রত্যাশী হয়ে বিভিন্ন জায়গায় গণসংযোগ করছেন। পোষ্টার, ব্যানার ফেস্টুনের মাধ্যমে প্রচারে অংশ নিচ্ছেন। কালিহাতী পৌরসভার বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক উন্নয়নে তার রয়েছে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা।

মনোনয়ন প্রত্যাশী আনোয়ার হোসেন মোল্লা নিয়মিত গণসংযোগ করছেন। তিনি বিভিন্ন স্কুল-কলেজ এবং বাজার বাসস্ট্যান্ডে গিয়ে মনোনয়ন প্রত্যাশী হয়ে মানুষের নিকট সমর্থন চাচ্ছেন। আনোয়ার হোসেন মোল্লা ছাত্রজীবনে ছাত্রলীগের মাধ্যমে রাজনৈতিক অঙ্গণে প্রবেশ করেন। তিনি বর্তমানে কালিহাতী উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক। এরআগে তিনি কালিহাতী উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ও টাঙ্গাইল জেলা যুবলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্বপালন করেছেন। ২০০৯ সালের উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে তিনি বিপুল ভোটে ভাইস চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী হন। এলেঙ্গা ইউনিয়ন থেকে পৌরসভা প্রতিষ্ঠায় ও বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের উন্নয়নে তার রয়েছে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা। আনোয়ার হোসেন মোল্লার ছোটভাই নূর-এ-আলম সিদ্দিকী ২০১৮ সালের মার্চে এলেঙ্গা পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হয়ে নৌকা প্রতীক নিয়ে বিপুল ভোটে জয়লাভ করেন।

আব্দুল মালেক ভূইয়া দশকিয়া ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান ও কালিহাতী উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক। এরআগে তিনি অবিভক্ত সল্লা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ছিলেন। তিনি একজন প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী। চেয়ারম্যান মনোনয়ন প্রত্যাশী হয়ে তিনি নিয়মিত কালিহাতীর বিভিন্নস্থানে গণসংযোগ করছেন।

হযরত আলী তালুকদার গোহালিয়াবাড়ী ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য। তিনি অবিভক্ত দূর্গাপুর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান। কালিহাতী বিভিন্ন এলাকায় পোষ্টার ও ব্যনার সাটিয়েছেন এবং গণসংযোগ করছেন।

হানিফ উদ্দিন তালুকদার উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও প্রবীণ আওয়ামী লীগ নেতা। তিনি অবিভক্ত বীরবাসিন্দা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ছিলেন। তিনিও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান পদে দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী। হানিফ উদ্দিন তালুকদারের ছোটভাই লিয়াকত আলী তালুকদার বিগত পারখী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী হয়ে চেয়ারম্যান পদে জয়লাভ করেন।

রিয়াজ উদ্দিন আহম্মেদ কালিহাতী উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য। তিনি বাংড়া ইউনিয়ন পরিষদের দুইবারের ও কালিহাতীর বিআরডিবি’র সাবেক চেয়ারম্যান। ২০১৮ সালের সর্বশেষ বাংড়া ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে তিনি আওয়ামী লীগের প্রার্থী হয়ে নৌকা প্রতিক নিয়ে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করে পরাজিত হয়েছেন। বর্তমানে তিনি উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান পদে মনোনয়নের প্রত্যাশায় কাজ করছেন। প্রবীণ আওয়ামী লীগ নেতা রিয়াজ উদ্দিন আহম্মেদ বাংড়া ইউনিয়ন পরিষদের সফল চেয়ারম্যান হিসেবে বিভিন্ন সম্মাননা পদক লাভ করেন।

চাঁন মাহমুদ পাকির আলী বল্লা ইউনিয়ন পরিষদের দুইবারের চেয়ারম্যান এবং একজন প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী। তিনি বর্তমানে টাঙ্গাইল জেলা তাতি লীগের সহ-সভাপতি। উপজেলা চেয়ারম্যান পদে একজন মনোনয়ন প্রত্যাশী। পাকির আলী একসময়ের তুখোড় ছাত্রনেতা। তিনি বঙ্গের আলীগড় খ্যাত সরকারি সা’দত কলেজ ছাত্র সংসদের নির্বাচিত সহ-ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক ছিলেন এবং করটিয়াস্থ কালিহাতী উপজেলা ছাত্রকল্যাণ সমিতির প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি।

উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে দলীয় মনোনয়ন পাবার আশা ব্যক্ত করে মোজহারুল ইসলাম তালুকদার গণবিপ্লবকে বলেন, আওয়ামী লীগের মতো একটি বিশাল পরিবারে একাধিক যোগ্য মনোনয়ন প্রত্যাশী থাকবে এটাই স্বাভাবিক। আমি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আর্দশ বুকে ধারণ করে জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে রাজনীতি করি মানুষের সেবা করার জন্য। আওয়ামী লীগ করতে গিয়ে আমার রক্ত ঝরেছে, তবুও পিছপা হই নাই। দল যাকেই মনোনীত করবে আমরা সবাই অতীতের মতো ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করে বিজয় ছিনিয়ে আনবো।

এবার ২০১৮ সালের একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে পৌরসভার মেয়র, উপজেলা পরিষদ ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যানদের এমপি পদে মনোনয়ন দেয়া হবে না আওয়ামী লীগ আগেই নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছিল। তাই তাদের মনোনয়নও দেওয়া হয়নি। আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে পৌরসভার মেয়র ও ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যানদের দলীয় মনোনয়ন না দেওয়ার সিদ্ধান্তও আসতে পারে বলে শোনা যাচ্ছে। এদিকে আগামী ৩১ জানুয়ারির মধ্যে উপজেলা চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৩ জন করে মনোনয়ন প্রত্যাশীর নাম কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের নিকট প্রেরণ করার জন্য উপজেলা ও জেলা আওয়ামী লীগকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। ইতোমধ্যে বিএনপি উপজেলা পরিষদ ও মেয়র পদে নির্বাচনে অংশগ্রহণ না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

কালিহাতী উপজেলার ২ টি পৌরসভা ও ১৩টি ইউনিয়নে মোট ভোটার ৩ লক্ষ ১১ হাজার ৮৮ জন ( পুরুষ ১৫৪৯০৫ মহিলা ১৫৬১৮৩)

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া