কালিহাতীতে গৃহবধূকে ধর্ষণের পর হত্যা

প্রকাশিত : ৩০ মে, ২০১৬

কালিহাতী প্রতিনিধিঃ

dorson ধর্ষণ
টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলার নীগর গ্রামে বিলকিছ আক্তার(২৮) নামে এক গৃহবধূকে ধর্ষনের পর হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। সোমবার(৩০ মে) সকালে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে টাঙ্গাইল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়েছে।
জানাগেছে, কালিহাতী উপজেলার সহদেবপুর ইউনিয়নের নীগর গ্রামের সাহেব আলীর ছেলে আনোয়ার হোসেনের সাথে পাশের এলেঙ্গা পৌরসভার হিন্নাইপাড়া গ্রামের মৃত ইন্নছ আলীর মেয়ে বিলকিছ আক্তারের ৮ বছর আগে সামাজিকভাবে বিয়ে হয়। বিয়ের পর আনোয়ার হোসেন কাজের সন্ধানে সৌদী আরব চলে যান। প্রায় এক বছর আগে বাড়ি এসে আনোয়ার হোসেন নীগর গ্রামেই রাস্তার পাশে নতুন বাড়ি করে পুনরায় সৌদীআরবে চলে যান। রাস্তার পাশে নতুন বাড়িতে বিলকিছ আক্তার তার ভগিনী(ভাগ্নি) শিমুকে নিয়ে থাকতেন।
পঞ্চম শ্রেণির ছাত্রী শিমু জানায়, প্রতিদিনের মতো সে এবং তার খালা বিলকিছ আক্তার খাবার খেয়ে রাত সাড়ে ৯টার দিকে একত্রে ঘুমিয়ে পড়ে। সকালে ঘুম ভাঙলে সে দেখতে পায় তার খালা বিলকিছ আক্তার বিছানায় নাই। ঘরের আলমারী ও দরজা খোলা দেখে শিমু ভয় পেয়ে বাইরে গিয়ে চিৎকার করে কাঁদতে থাকে। তার চিৎকারে আশপাশের লোকজন এসে ঘরে গিয়ে দেখতে পায়, পাশের রুমে হাত-পা বাধা অবস্থায় বিলকিছ আক্তারের লাশ ঘরের ধর্ণার(আঁড়ার) সঙ্গে ঝুঁলছে। পরে থানায় খবর দেয়া হলে পুলিশ গিয়ে লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য টাঙ্গাইল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠায়।
টাঙ্গাইলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আসলাম খান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে জানান, পরকীয়ার জেরে ঘটনাটি ঘটে থাকতে পারে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। তবে, দুর্বৃত্তরা কোনভাবেই আইনের হাত থেকে পালিয়ে থাকতে পারবে না বলে জানান তিনি।
কালিহাতী থানার অফিসার ইনচার্জ(ওসি) সাইফুল ইসলাম ফরাজী জানান, প্রথমে শ্বাসরোধে হত্যা করে হাত-পা বেধে গলায় রশি দিয়ে ঘরের ধর্ণার(আঁড়ার সাথে) ঝুঁলিয়ে রাখার চেষ্টা করা হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে প্রতীয়মান হচ্ছে। লাশ ময়না তদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে।

সাপ্তাহিক গণবিপ্লব
এইমাত্র পাওয়া