প্রকাশকাল: ১৯ ফেব্রুয়ারী, ২০১৭

কালিহাতীতে মন্ত্রীর হাতে লাঞ্ছিত এমপি

গণবিপ্লব রিপোর্টঃ 

 

যোগাযোগ ও সেতু মন্ত্রী আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের হাতে লাঞ্ছিত হয়েছেন টাঙ্গাইল-৫ (সদর) আসনের সাংসদ আলহাজ্ব মো. ছানোয়ার হোসেন। শনিবার রাত নয়টায় কালিহাতী উপজেলার যমুনা রিসোর্টে এ ঘটনা ঘটে।

বিশ্বস্ত সূত্রে জানাযায়, টাঙ্গাইল-৪ (কালিহাতী) নবনির্বাচিত সংসদ সদস্য হাসান ইমাম খান সোহেল হাজারী যোগাযোগ ও সেতু মন্ত্রী আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরকে দাওয়াত করেন। ওবায়দুল কাদের নাটোর থেকে ঢাকার উদ্দেশ্যে যাত্রা করলে সোহেল হাজারীর দাওয়াতের সুবাদে যমুনা রিসোর্টে বিরতি দেন। এসময় তার আগমনে উপস্থিত নেতাকর্মীরা শ্লোগান দিতে থাকেন। এ সময় মন্ত্রী নেতাকর্মীদের শ্লোগান থামাতে বলেন। পরে তিনি পদ্মা কটেজে গিয়ে বসে সোহেল হাজারীকে না দেখে টাঙ্গাইল জেলা আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের জিজ্ঞাসা করেন। নেতাকর্মীরা বলেন,এমপি রাস্তায় রয়েছে কিছুক্ষণের মধ্যে চলে আসবেন । কিন্তু হাসান ইমাম খান সোহেল হাজারীর উপস্থিত না হওয়ায় ওবায়দুল কাদের নেতাকর্মীদের প্রতি ক্ষুব্ধ হয়ে বলেন,যিনি দাওয়াত দিবেন, তিনি বাড়িতে থাকবেন ‘না’ এটা কেমন কথা? তখন উপস্থিত সদর আসনের এমপি ছানোয়ার বলেন, সোহেল হাজারী রাস্তায় আছেন কিছুক্ষনের মধ্যেই চলে আসবেন। এ নিয়ে কথা বলার এক পর্যায়ে মন্ত্রী উত্তেজিত হয়ে বলেন, ‘সে এক টাউট, তুমি এক টাউট। টাউটে টাউটের পক্ষে উকালতি শুরু করছ’। এ কথা বলেই সাংসদ ছানোয়ারের ওপর চড়াও হয়। পরে কথা কাটাকাটির এক পর্যায় তাকে চড় ও ঘুষি দেন ওবায়দুল কাদের। এসময় নেতাকর্মীরা হতভম্ব হয়ে যায়। মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের কিছুই না খেয়ে ঢাকার উদ্দেশ্য রওনা দেন।

জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ফজলুর রহমান খান ফারুক, সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট জোয়াহেরুল ইসলাম, টাঙ্গাইল-৮ (সখীপুর-বাসাইল) আসনের সংসদ সদস্য অনুপম শাজাহান জয়, যুগ্ম সম্পাদক খন্দকার আশরাফুজ্জামান স্মৃতি, নাহার আহমেদ, কালিহাতী উপজেলা জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক ফারুক হোসেন মানিক, টাঙ্গাইল চেম্বার অব কমার্সের সাধারণ সম্পাদক খান আহম্মেদ শুভ উপস্থিত ছিলেন।

সাংসদ ছানোয়ার হোসেনের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তাঁর মুঠোফোন বন্ধ পাওয়া যায়। ঘটনাস্থলে উপস্থিত জেলা আওয়ামী লীগের একাধিক নেতা ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

এ বিষয়ে কথা বলার জন্য ওবায়দুল কাদেরের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি ফোন ধরেননি।

উল্লেখ্য,  ২০১২ সালের ১ সেপ্টেম্বর ঈশ্বরদী রেলওয়ে জংশন স্টেশন পরিদর্শনে গিয়ে যাত্রীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত ভাড়া দাবি করার অপরাধে বলরাম দাস নামে ট্রেনের এক কর্মচারীকে থাপ্পড় মেরেছিলেন ওবায়দুল কাদের।

এছাড়া ২০১৫ সালের ১০ আগস্ট নিয়ম ভাঙার জন্য ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কে এক সিএনজি অটোরিকশা চালককে কান ধরিয়ে উঠবস করান তিনি। গণমাধ্যমে এসব সংবাদ প্রকাশিত হলে নানা সমালোচনা শুরু হয়। সমালোচনা ছড়িয়ে পড়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও। ঘটনাটি নিয়ে যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকসহ দেশজুড়ে তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে।

এ রকম আরোও খবর

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ