১৯ জুলাই, ২০১৮ প্রকাশ হয়েছে

কালিহাতীর অপহৃত মাসুদ সাত মাসেও উদ্ধার হয়নি

কালিহাতী সংবাদদাতাঃ

টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলার খরশিলা গ্রামের মাসুদ খান(৩০) অপহরণের দীর্ঘ সোয়া সাত মাসেও উদ্ধার হয়নি।
জানাগেছে, কালিহাতী উপজেলার পাইকরা ইউনিয়নের খরশিলা গ্রামের আব্দুস সামাদ খানের ছেলে মাসুদ খান এলাকায় ধান ভাঙানোর কাজ করতো। ২০১৭ সালের ১৫ ডিসেম্বর(শুক্রবার) দুপুরে একই এলাকার মোহাম্মদ আলী তালুকদারের ছেলে কালাম তালুকদার(৩৫) ও তার স্ত্রী কহিনুর তালুকদার(৩০) ধান ভাঙানোর কথা বলে মাসুদ খানকে বাড়ির পাশে রাস্তা থেকে ডেকে নেয়। তারপর থেকে মাসুদ খানের কোন খোঁজ পাওয়া যাচ্ছেনা। পরিবারের পক্ষ থেকে দেশের বিভিন্নস্থানে আত্মীয়-স্বজনদের বাড়িতে একাধিকবার খোঁজ করে অদ্যাবধি তার সন্ধান পাওয়া যায়নি। এ বিষয়ে কালিহাতী থানায় মামলা বা সাধারণ ডায়েরি করতে গেলেও পুলিশ তা গ্রহন করেনি। বাধ্য হয়ে গত ১২ জুন টাঙ্গাইলের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আমলী আদালতে ৬ জনকে অভিযুক্ত করে মামলা দায়ের করেন। আদালত মামলাটি কালিহাতী থানার ওসিকে এফআইআর হিসেবে গ্রহন করার আদেশ দেন। পরে কালিহাতী থানা বিষয়টি এফআইআর হিসেবে গ্রহন করে তদন্ত শুরু করে। থানা পুলিশ অপহৃতকে উদ্ধার করার জন্য একাধিক স্থানে অভিযান চালিয়েও মাসুদকে উদ্ধার করতে পারেনি।
অপহৃতের বাবা আব্দুস সামাদ জানান, দীর্ঘ সোয়া সাত মাসেও তার ছেলে মাসুদ খানকে খুঁজে পাওয়া যায়নি। তিনি অভিযোগ করে জানান, পুলিশ সুষ্ঠুভাবে আন্তরিকতার সাথে চেষ্টা করে নাই বলেই মাসুদকে উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি। পুলিশ চেষ্টা করলে কেন উদ্ধার করতে পারবেনা- প্রশ্ন রাখেন তিনি। তিনি আশঙ্কা করেন, একই এলঅকার কালাম ও তার স্ত্রী কহিনুরদের সাথে জমি নিয়ে বিরোধ রয়েছে। ওই বিরোধের জের ধরে তারা মাসুদকে অপহরণ করে হত্যা করে থাকতে পারে।
মাসুদ অপহৃত মামমলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কালিহাতী থানার এসআই মাহবুব ইসলাম জানান, অপহৃতকে উদ্ধারে বিভিন্ন স্থানে একাধিকবার অভিযান চালানো হয়েছে। মাসুদকে উদ্ধারে তারা আন্তরিকতার সাথে চেষ্টা চালাচ্ছেন।

এ রকম আরোও খবর

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ