কাল শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস ॥ শ্রেষ্ঠ সন্তানদের স্মরণ করবে জাতি

প্রকাশিত : ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৫
গণবিপ্লব
রিপোর্ট

গণবিপ্লব রিপোর্টঃ

buddijibi

একাত্তরে যুদ্ধাপরাধের বিচারের রায় কার্যকর করার মধ্য দিয়ে ভিন্নতর প্রেক্ষাপটে ফিরে এল এবারের বুদ্ধিজীবী নিধনযজ্ঞের কালিমালিপ্ত সেই দিন ১৪ ডিসেম্বর। আগামীকাল(সোমবার) বেদনাবিধূর শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস। এ দেশের স্বাধীনতা ও মুক্তিসংগ্রামের ইতিহাসের মর্মন্তুদ একটি দিন। বিজয়ের ঊষালগ্নে দেশের শ্রেষ্ঠ সন্তান বুদ্ধিজীবীদের হারানোর দুঃসহ যন্ত্রণার দিন। গভীর শ্রদ্ধায় জাতি এদিন স্মরণ করবে তার শ্রেষ্ঠ সন্তানদের স্মৃতি ও অবদান। নয় মাসের রক্তক্ষয়ী মুক্তিসংগ্রামের শেষলগ্নে বাঙালি যখন চূড়ান্ত বিজয়ের দ্বারপ্রান্তে ঠিক তখনই একাত্তরের ১৪ ডিসেম্বর পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর সহযোগী এদেশীয় নরঘাতক রাজাকার, আলবদর, আলশামস ও শান্তি কমিটির সদস্যরা মেতে ওঠে দেশের বুদ্ধিজীবীদের বর্বরোচিত হত্যাযজ্ঞে। বিজয়ের চূড়ান্ত মুহূর্তে বাঙালি শিক্ষাবিদ, সাহিত্যিক, আইনজীবী, চিকিৎসক, সাংবাদিকসহ দেশের মেধাবী সন্তানদের পরিকল্পিতভাবে সেই নৃশংস নিধনযজ্ঞ গোটা বিশ্বকেই হতবিহ্বল করে তোলে।
সেই নৃশংস হত্যাযজ্ঞ স্মরণে প্রতি বছর ১৪ ডিসেম্বর পালন করা হয় শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস। শোকাবহ এই দিনে পরম শ্রদ্ধা ও ভালোবাসায় গোটা জাতি স্মরণ করবে মহান মুক্তিযুদ্ধে শহীদ বুদ্ধিজীবীদের। শপথ নেবে শোককে শক্তিতে পরিণত করে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় সুখী-সমৃদ্ধ ও মর্যাদাশীল দেশ গড়ার মাধ্যমে শহীদ বুদ্ধিজীবীদের স্বপ্ন বাস্তবায়নের।
ফিনিক্স পাখির আয়ু নিয়ে শহীদ বুদ্ধিজীবীরা বার বার ফিরে ফিরে আসেন বাঙালির মানসপটে। প্রতিটি বাঙালির হৃদয়ে প্রতিভাত হয় কবির সেই অমিয়বাণী ‘উদয়ের পথে শুনি কার বাণী/ভয় নাই ওরে ভয় নাই/নিঃশেষে প্রাণ যে করিবে দান/ক্ষয় নাই তার ক্ষয় নাই।’ এমনি শোকের আবহ আর শক্তির তেজ নিয়ে প্রতি বছরের মতো এবারো যথাযোগ্য মর্যাদায় কাল সারা দেশে পালিত হবে শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস।
একাত্তরের মহান মুক্তিযুদ্ধের শুরু থেকেই এ দেশের বুদ্ধিজীবীরা ছিলেন ঘাতকদের হত্যাযজ্ঞের টার্গেট। ২৫ মার্চের কালরাতে এবং পরবর্তী সময়ে যুদ্ধ চলাকালে সুপরিকল্পিত উপায়ে বিভিন্ন সময়ে, বিভিন্নভাবে হত্যা করা হয়েছে বুদ্ধিজীবীদের। কারণ দেশ ও জাতির এই শ্রেষ্ঠ সন্তানরা ছিলেন সত্য, সুন্দর ও ন্যায়ের প্রতীক। পাকিস্তানি শাসক-শোষক চক্রের অন্যায়-অত্যাচার ও শোষণ-বঞ্চনার বিরুদ্ধে তারা ছিলেন দিকনির্দেশক এবং সোচ্চারকণ্ঠ। তাদের মেধা ও মননে অসাম্প্রদায়িকতা ও মানবিক মূল্যবোধ ছিল গভীরভাবে প্রোথিত। এই বোধ তারা ছড়িয়ে দিতে সচেষ্ট ছিলেন রাষ্ট্র ও সমাজের প্রতিটি স্তরে। তারা স্বপ্ন দেখতেন সুস্থ-সুন্দর সমাজের। একটি সুখী-সমৃদ্ধ ও শোষণমুক্ত প্রগতিশীল সমাজ প্রতিষ্ঠার আকাঙ্খা তারা লালন করতেন তাদের কর্মে ও চিন্তায়। তাই এ দেশের বুদ্ধিজীবীরা পরিণত হয়েছিলেন স্বাধীনতার শত্রুদের অন্যতম লক্ষ্যবস্তুতে।
ডিসেম্বর মাসে পরাজয়ের দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে পাকিস্তানি বাহিনী ও তাদের দোসররা মেতে ওঠে বুদ্ধিজীবী হত্যার নির্মম খেলায়। ভয়াবহ নির্যাতনের চিহ্নসহ তাদের অনেকের লাশ পাওয়া যায় রায়েরবাজার ও মিরপুরের বধ্যভূমিতে।
১৯৭১ সালে শহীদ বুদ্ধিজীবীদের মধ্যে রয়েছেন আন্তর্জাতিক খ্যাতি সম্পন্ন দার্শনিক ড. জিসি দেব, অধ্যাপক মুনীর চৌধুরী, অধ্যাপক জ্যোতির্ময় গুহঠাকুরতা, সন্তোষ চন্দ্র ভট্টাচার্য, ড. মোফাজ্জল হায়দার চৌধুরী, অধ্যাপক মুনীরুজ্জামান, অধ্যাপক আনোয়ার পাশা, অধ্যাপক গিয়াসউদ্দিন আহমেদ, ড. অনুপ দ্বৈপায়ন ভট্টাচার্য, ডা. ফজলে রাব্বী, ডা. আলীম চৌধুরী, ড. গোলাম মোর্তজা, ড. মোহাম্মদ শফি, শহীদুল্লা কায়সার, সিরাজুদ্দীন হোসেন, নিজামুদ্দীন আহমেদ, খন্দকার আবু তালেব, আ ন ম গোলাম মোস্তফা, শহীদ সাবের, নাজমুল হক, আলতাফ মাহমুদ, নূতন চন্দ্র সিংহ, রণদা প্রসাদ সাহা, আবুল খায়ের, রশীদুল হাসান, সিরাজুল হক খান, আবুল বাশার, ড. মুক্তাদির, ফজলুল মাহি, ড. সাদেক, ড. আমিনুদ্দিন, সায়ীদুল হাসান, সেলিনা পারভীনসহ আরো অনেকে।
এবারের শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস পালিত হচ্ছে ভিন্ন এক প্রেক্ষাপটে। জাতির বহুল আকাঙ্খিত যুদ্ধাপরাধীদের বিচার এগিয়ে চলছে। এ দিনটিতে জাতি শহীদ বুদ্ধিজীবীদের স্মরণ করার পাশাপাশি যুদ্ধাপরাধীদের বিচারকাজ শেষ করে দ্রুত রায় কার্যকরের দাবি জানাবে সোচ্চার কণ্ঠে।

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ