প্রকাশকাল: ৩ ফেব্রুয়ারী, ২০১৮

খালেদা জিয়ার রায়কে ঘিরে কতটা প্রস্তুত টাঙ্গাইল বিএনপি!

আব্দুল্লাহ আল মাসুদঃ

আগামী ৮ ফেব্রুয়ারি বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার মামলার তারিখ ঘোষনার কথা রয়েছে। এছাড়া আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপির অবস্থান এবং আন্দোলন ও কর্মপরিকল্পনা নিয়ে ব্যস্ততা রয়েছে দলটির মধ্যে। অথচ টাঙ্গাইল জেলায় বিএনপির রাজনীতি একাধিকপক্ষ ও দলীয় কোন্দলের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে। এমনকি মূল দল ছাড়াও সকল অঙ্গসংগঠনগুলোও দ্বিধাবিভক্ষ। সরকারি দল তাদের উপর কোন চাপ সৃষ্টি না করলেও অভ্যন্তরীণ পক্ষবিপক্ষের কারণে দলটি কোনঠাসা হয়ে পড়ছে এবং কোনভাবেই রাজপথে সঠিক ও কার্যকর দলীয় কর্মসূচি পালন করতে পারছে না। তাই আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন এবং খালেদা জিয়ার মামলার রায়কে সামনে রেখে দলটি সাংগঠনিকভাবে পিছিয়ে পড়ছে। এ কারণে জেলা বিএনপির মাঠ পর্যায়ের কর্মী ও সমর্থকরা সিনিয়র নেতাদের উপর বিক্ষুব্ধ।
অনেক কর্মীসমর্থকরা বলেন, বর্তমানে দলের যে অভ্যন্তরীণ অবস্থা তাতে করে খালেদা জিয়ার মামলা পরবর্তী কর্মপরিকল্পনা ও কেন্দ্রীয় নির্দেশনা সঠিকভাবে পালন করতে পারবে না বলে মনে করছেন অনেকে। কারণ জেলার ৮টি আসনের বিগত এমপি-মন্ত্রী এবং নতুন প্রার্থীরা অনেকেই ঘরকোণা হয়ে পড়েছেন। তারা সরকার বিরোধী আন্দোলনে প্রকাশ্যে রাজপথে নামেন না। অনেকেই ঢাকায় বসে থাকেন। বিগত সময়েই এমন প্রমাণ পাওয়া গেছে। তাই খালেদা জিয়ার মামলার রায় পরবর্তী যে দিক নির্দেশনা আসে কেন্দ্র থেকে, সেই শক্তি-সামর্থ টাঙ্গাইলের রাজপথে কতটুকু প্রয়োগ করতে পারবে তা নিয়ে দলের সকলেই সন্ধিহান। তবে জেলার নেতারা মুখে বড়বড় বুলি ছাড়লেও কার্যত তারা ঘরে চুড়ি পড়ে বসে থাকে। অবস্থা দেখে মনে হয় তারা সরকারের সাথে আতাঁত করে চলছে।
এদিকে দলটির দুই পক্ষের পাল্টাপাল্টি মামলার কারণে কোনঠাসা হয়ে পড়েছে দলের নেতাকর্মীরা। টাঙ্গাইল জেলা বিএনপির কার্যালয়ে (২৯ ডিসেম্বর) ভাংচুরের ঘটনায় বিদ্রোহী পক্ষের ১৫জনসহ অজ্ঞাত ৩৫জনের বিরুদ্ধে (৩১ ডিসেম্বর) আদালতে মামলা হয়েছে। জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ফরহাদ ইকবাল বাদি হয়ে টাঙ্গাইল বিচারিক হাকিম আদালতে এই মামলা দায়ের করেন। আদালতের বিচারক মামলাটি গ্রহণ করে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই) তদন্তের জন্য দিয়েছেন।
অপরদিকে টাঙ্গাইল জেলা বিএনপির সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকসহ দলের ২২ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে আদালতে মামলা দায়ের করেছে বিএনপির বিদ্রোহী পক্ষ। দলীয় কার্যালয় ভাংচুরের ঘটনায় জেলা বিএনপির বহিস্কৃত সহ-সভাপতি হাসানুজ্জামিল শাহীন বাদি হয়ে গত (৪ জানুয়ারি) টাঙ্গাইল দ্রুত বিচার আদালতে এই মামলা দায়ের করেন। এ নিয়ে বিএনপির দুই পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দিয়েছে। যেকোন সময় বড়ধরনের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটতে পারে বলে আশংকা করা হচ্ছে। আদালতের বিচারক রুপম কুমার দাস মামলাটি গ্রহণ করে আগামী (৭ ফেব্রুয়ারি) তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয়ার জন্য টাঙ্গাইল মডেল থানার অফিসার ইনচার্জকে নির্দেশ দিয়েছেন।
দলীয় সূত্র জানায়, গত বছরের গত (২৪ মে) কৃষিবিদ শামসুল আলম তোফাকে সভাপতি ও অ্যাডভোকেট ফরহাদ ইকবালকে সাধারণ সম্পাদক করে ৩১ সদস্যের আংশিক টাঙ্গাইল জেলা বিএনপির কমিটি অনুমোদন করে কেন্দ্র। এ কমিটি প্রকাশের পর থেকেই টাঙ্গাইল জেলা বিএনপির দুই পক্ষ প্রকাশ্য বিরোধিতায় লিপ্ত হয়। জেলা বিএনপির কর্মীসভাকে কেন্দ্র করে বিএনপির দুইপক্ষ রাজপথে প্রকাশ্যে মারামারির ঘটনাও ঘটিয়েছে। কেন্দ্রের সকল কর্মসূচি দুই পক্ষ পাল্টাপাল্টিভাবে পালন করছে। এসব ঘটনার কারণে জেলা বিএনপির তিন প্রভাবশালী নেতা দল থেকে পদত্যাগ করেন। সেই সাথে নবগঠিত জেলা কমিটি বাতিল করা না হলে, ওই কমিটির সকল কার্যক্রম প্রতিরোধের ঘোষণা দিয়ে তারা মিছিল, সভা-সমাবেশ অব্যাহত রেখেছে। এসব ঘটনায় কেন্দ্র থেকে তাদের দল থেকে বহিস্কার করা হয়। এক সময়ে টাঙ্গাইলে বিএনপি শক্ত অবস্থানে থাকলেও, বর্তমানে অভ্যন্তরীণ কোন্দলের কারণে দলটি সাংগঠনিকভাবে দূর্বল হয়ে পড়েছে। যদিও তাদের দাবি, সরকার বিরোধী আন্দোলন ও নির্বাচনী লড়াইয়ের জন্য প্রস্তুত হচ্ছেন তারা।
জানা যায়, টাঙ্গাইল জেলা বিএনপির কার্যালয়ে গত (২৯ ডিসেম্বর) ভাংচুরের ঘটনায় বিদ্রোহী পক্ষের ১৫জনসহ অজ্ঞাত ৩৫জনের বিরুদ্ধে গত (৩১ ডিসেম্বর) আদালতে মামলা হয়েছে। মামলায় জেলা বিএনপির বহিস্কৃত সহ-সভাপতি আলী ইমাম তপন ও হাসানুজ্জামিল শাহীন, সাবেক যুগ্ম সম্পাদক কাজী শফিকুর রহমান লিটন, বহিস্কৃত যুগ্ম সম্পাদক খন্দকার আহমেদুল হক শাতিল, ছাত্রদল নেতা তারেকুল ইসলাম ঝলক ও তৌহিদুল ইসলাম বাবু, যুবদলের সাংগঠনিক সম্পাদক রফিকুল ইসলাম স্বপন, সরকারি সা’দত কলেজের সাবেক জিএস সৈয়দ আব্দুল মান্নান বাবুল, সাবেক পৌর কমিশনার মোমিনুল হক খান নিক্সনসহ ১৫জনের নাম উল্লেখ করা হয়েছে। মামলায় আসামীদের বিরুদ্ধে জেলা বিএনপি অফিস ভাংচুর, অফিসে রক্ষিত টাকা, মাইক এবং ইন্টারনেট রাউডার চুরি এবং ভাংচুরের অভিযোগ আনা হয়েছে। জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ফরহাদ ইকবাল জানান, ঘটনার দিনই তারা থানায় মামলা করতে দিয়েছিলেন কিন্তু থানা কর্তৃপক্ষ মামলা না নেয়ায় আদালতে মামলা দায়ের করেন।
অপরদিকে টাঙ্গাইল জেলা বিএনপির সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকসহ দলের ২২ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে আদালতে মামলা দায়ের করেছে বিএনপির বিদ্রোহী পক্ষ। দলীয় কার্যালয় ভাংচুরের ঘটনায় জেলা বিএনপির বহিস্কৃত সহ-সভাপতি হাসানুজ্জামিল শাহীন বাদি হয়ে গত (৪ জানুয়ারি) টাঙ্গাইল দ্রুত বিচার আদালতে এই মামলা দায়ের করেন। এ নিয়ে বিএনপির দুই পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দিয়েছে। যেকোন সময় বড়ধরনের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটতে পারে বলে আশংকা করা হচ্ছে। মামলায় জেলা বিএনপির সভাপতি শামছুল আলম তোফা, সাধারণ সম্পাদক ফরহাদ ইকবাল, সহ-সভাপতি আরফান আলী মোল্লা, সাদেকুল আলম খোকা, আতাউর রহমান জিন্নাহ, জিয়াউল হক শাহীন, যুগ্ম সম্পাদক আনিসুর রহমান, আবুল কাশেম, খন্দকার রাশেদুল আলম, সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল হামিদ তালুকদার, আশরাফ পাহেলী, শফিকুর রহমান শফিক, প্রচার সম্পাদক মনিরুল হক, জেলা ছাত্রদলের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মনিরুজ্জামান জুয়েল, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক নুরুল ইসলাম, জেলা তাঁতী দলের সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রহমান হাবিব, বিএনপি কর্মী মনি বেপারী, শাহীন তালুকদার, ইমন, সুমন, আব্দুল্লাহেল কাফি ও তানভীর আহম্মেদসহ অজ্ঞাত আরো ১৫/২০জনকে আসামী করা হয়েছে। মামলার বাদি হাসানুজ্জামিল শাহীন বলেন, জ্যেষ্ঠতা লংঘন করে জেলা বিএনপির কমিটি করা হয়েছে। সেজন্যই তারা এই কমিটির বিরুদ্ধে আন্দোলন করছেন। কারো ইন্ধনে নয়, সন্ত্রাসী ঘটনার শিকার হয়েছেন বলেই মামলা করতে বাধ্য হয়েছেন।
জেলা বিএনপির অপর পক্ষের নেতা হাসানুজ্জামিল শাহীন আরও বলেন, গত (২৬ মে) কেন্দ্র থেকে জেলা বিএনপির ৩০ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি ঘোষণা করা হয়। এতে শামসুল আলম তোফাকে সভাপতি এবং ফরহাদ ইকবালকে সাধারণ সম্পাদক করা হয়। সভাপতি শামসুল আলম আগের কমিটির সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। তিনি (২১ আগস্ট) গ্রেনেড হামলা মামলায় কারাবন্দি সাবেক উপমন্ত্রী আব্দুস সালাম পিন্টু এবং যুবদলের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাউদ্দিন টুকুর বড় ভাই। তাদের অভিযোগ, জেলা বিএনপির কমিটিতে সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকসহ বেশীর ভাগ পদেই সালাম পিন্টু পরিবারের অনুসারিদের বসানো হয়েছে। সালাম পিন্টু পরিবার বিরোধীরা কমিটি বাতিলের দাবিতে আন্দোলন শুরু করে। এ নিয়ে একাধিকবার সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত জেলা বিএনপির ব্যানারে আমরা সরকার বিরোধী বিভিন্ন কর্মসুচি পালন করে যাব।
টাঙ্গাইল জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট ফরহাদ ইকবাল বলেন, জেলা বিএনপির এটা কোন্দল নয়, এটা নেতৃত্বের প্রতিযোগিতা। অনেকেই সভাপতি-সম্পাদক প্রার্থী ছিলেন। তাঁরা হতে পারেন নাই। ইতিমধ্যে যারা পদত্যাগ করছিলেন তাঁর মধ্যে থেকে অনেকেই আবার আমাদের মধ্যে ফিরে আসছেন এবং যারা দুই-একজন এখনো এই অবস্থায় আছে তাদের সাথে আমাদের আলোচনা হচ্ছে। তারা অবশ্যই আমাদের সাথে এসে যোগ দিবে। কারণ দেশনেত্রী একটা কমিটি দিয়েছে এটা আমাদের কারও বিষয় না। নেত্রী যেখানে কমিটি দিয়েছে দল করতে হলে এই কমিটি সবাইকে মানতে হবে। আমরা এখন সংগঠনিকভাবে দল গুচ্ছাছি। আগামী সংসদ নির্বাচন ও সরকার বিরোধী আন্দোলন দুইটাকে সামনে রেখে আমরা দলটাকে প্রস্তুত করছি। আমরা মনে করি সংগঠন শক্তিশালী করে তৃণমুল পর্যায় থেকে সংগঠনের ভিতকে শক্তিশালী করা। সরকারকে বাধ্য করে সুষ্ঠু নির্বাচনের ব্যবস্থা করতে পারি তাহলে অবশ্যই আগামী দিনে আমরা ক্ষমতায় যেতে পারবো।

এ রকম আরোও খবর

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ