চীনের নকল ডিমে বাজার সয়লাব ঃ জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিন

প্রকাশিত : ২৯ আগস্ট, ২০১৫
গণবিপ্লব অনলাইন
ডেস্ক রিপোর্ট

রাসায়নিক পদার্থ দিয়ে তৈরি চীনের কৃত্রিম ডিমে এখন সয়লাব বাংলাদেশের বাজার। প্রতিনিয়ত মিয়ানমার সীমান্ত দিয়ে যেহেতু জীবন বিধ্বংসী এই নকল ডিম চোরাই পথে বাংলাদেশে আসছে, স্বাভাবিকভাবেই এতে পরিস্থিতি কতটা ভয়ঙ্কর হতে পারে বলার অপেক্ষা রাখে না। আর এক ধরনের অসাধু ব্যবসায়ী ফার্মের হাঁস-মুরগির ডিমের আড়ালে এই নকল ডিম বাজারজাত করছে বলে অভিযোগ আসছে। সঙ্গত কারণেই বিষয়টিকে আমলে নিয়ে সরকারের কঠোর পদক্ষেপই প্রত্যাশিত।
প্রসঙ্গত উল্লেখ্য যে, মিয়ানমারের রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন ও ইন্ডিপেন্ডেন্ট মর্নিং নিউজ এজেন্সিসহ বেশ কয়েকটি বিদেশি গণমাধ্যম বলেছে, মিয়ানমারের রাজধানী ইয়াঙ্গুগুনসহ ওই দেশের বিভিন্ন এলাকায় সীমান্তের চোরাপথে চীন থেকে কৃত্রিম ডিম পাচার হচ্ছে। চোরাপথে সেই ডিম ভারতসহ আশপাশের অন্যান্য দেশেও সয়লাব হয়েছে। আর এই অন্যান্য দেশের মধ্যে বাংলাদেশও অন্যতম। ডিমগুলো দেখতে একদম হাঁস-মুরগির ডিমের মতো। ফলে সাধারণ মানুষের পক্ষে বোঝা কঠিন যে এগুলো নকল ডিম।
যুক্তরাষ্ট্র থেকে প্রকাশিত বিজ্ঞান সাময়িকী দ্য ইন্টারনেট জার্নাল অব টক্সোকোলজিতে কৃত্রিম ডিম সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য দেয়া আছে। তথ্যগুলো পর্যবেক্ষণে জানা যায়, নকল ডিম তৈরির বিষয়টি নতুন নয়। এই কৃত্রিম ডিম ২০০৪ সাল থেকেই তৈরি হচ্ছে। এই ডিমে কোনো খাদ্যগুণ তো নেই বরং উল্টো মানবদেহের জন্য মারাতœকভাবে ক্ষতিকর। কেননা কৃত্রিম ডিম তৈরিতে ব্যবহার করা হয় রাসায়নিক উপাদান ক্যালসিয়াম কার্বনেট, স্টার্চ, রেসিন, জিলেটিন যেগুলো মানবদেহের জন্য হুমকিস্বরূপ। এমনকি দীর্ঘদিন এ ধরনের ডিম খেলে স্নায়ুতন্ত্র ও কিডনিতেও সমস্যা হতে পারে। আর মনে রাখা জরুরি, ক্যালসিয়াম কার্বাইড ফুসফুসের ক্যান্সারসহ জটিল রোগেরও কারণ।
এখন যখন আসলের আদলে এই কৃত্রিম ডিম রাজধানীর বাজারগুলোতে ছড়িয়ে পড়ছে, এছাড়া দামেও কম হওয়ার কারণে বেশি লাভের আশায় কিংবা বুঝে বা না বুঝে হোক দোকানিরা দোকানে তুলছেন এ ডিম। আর এতে ক্রেতারাও আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত  হওয়ার পাশাপাশি মারাতœক স্বাস্থ্যহানির ঝুঁকিতেও পড়ছেন। স্মর্তব্য যে, এমনিতেই বিপুল জনসংখ্যার দেশ বাংলাদেশ। এখানে চিকিৎসাব্যবস্থার অপ্রতুলতা বিদ্যমান। ফলে সুস্বাস্থ্য নিশ্চিত করা যখন একটি চ্যালেঞ্জ তখন এই পরিস্থিতিতে আবার যদি ক্ষতিকর কৃত্রিম ডিমে বাজার সয়লাব হয়ে যায় তবে তা অত্যন্ত আশঙ্কাজনক পরিস্থিতিকেই ইঙ্গিত করে। অভিযোগ আছে, রাজধানীর মোহাম্মদপুর ও আদাবর থানার নবদয় হাউজিং, ঢাকা উদ্যান, বসিলা, শনিরবিল, টাউনহল, কাটাসুর, রায়েরবাজার, বিজলীমহল্লাসহ নানা মহল্লাতে নকল ডিমে ভরে গেছে। ফলে এই পরিস্থিতিতে স্বাস্থ্য ঝুঁকি মারাতœকভাবে বাড়ছে বলে মতামত ব্যক্ত করেছেন বিশেষজ্ঞরাও। ফলে এ এলাকাগুলোসহ সম্ভাব্য এলাকাগুলোতে কঠোর অভিযান পরিচালনা করা অপরিহার্য বলেই আমরা বিবেচনা করি।
সর্বোপরি বলতে চাই, দ্রুত যদি কৃত্রিম ডিমের ঝুঁকি থেকে মানুষকে বাঁচাতে সরকার উদ্যোগী না হয় তবে এর খেসারত দিতে হতে পারে চড়া মূল্যে। যা কোনোভাবেই কাম্য হতে পারে না। সরকার সুস্বাস্থ্য নিশ্চিত করতে নানা ধরনের কার্যকর উদ্যোগ গ্রহণ করছে, এর মধ্যে যদি জীবনের জন্য হুমকিস্বরূপ কৃত্রিম ডিমে বাজার সয়লাব হয়ে যায় তবে জনসাধারণের সুস্বাস্থ্য অনিশ্চিত হয়ে পড়বে। আমরা প্রত্যাশা করি, সরকার এই বিষয়টিকে যথাযথভাবে আমলে নেবে এবং চোরাই পথে বাজারে যারা এই ডিম সরবরাহ করছে সেই সব ঘৃণ্য চক্রদের যে কোনো অপতৎপরতা রোধ করতে প্রয়োজনে সর্বোচ্চ কঠোর পদক্ষেপ নিতে দ্বিধা করবে না। আমরা বিশ্বাস করি, সরকার যদি এই চক্রগুলোকে শণাক্তকরণের মাধ্যমে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করে তবে ভয়ঙ্কর পরিস্থিতির হাত থেকে মানুষ বাঁচবে। কিছু সিন্ডিকেটধারীদের কারণে সাধারণ মানুষ বিপদের মুখে পড়বে এটা গ্রহণযোগ্য হতে পারে না।

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ