চেয়ারম্যান পাকিরের দুর্নীতির রাজ্য

প্রকাশিত : ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০২০

ফাইল ফটো

টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলার ৯ নং বল্লা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হাজী চান মাহমুদ পাকিরের রিরুদ্ধে প্রায় কোটি কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে। সচুতুর চেয়ারম্যান চান মাহমুদ পাকির সহজ সরল ও অশিতি লোকজনকে দিয়ে সমিতি গঠন করে নিজেই একক ভাবে তাঁতিদের বরাদ্দকৃত মালামাল বিক্রি করে সমস্ত টাকা আত্মসাতের অভিযোগ রয়েছে।

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, দীর্ঘদিন যাবত বল্লা করোনেশন স্কুল অ্যান্ড কলেজের গভর্নিংবডির সভাপতি থাকার সুবাধে নিয়ম বহির্ভুত কাজ করেই যাচ্ছেন। প্রতিষ্ঠানের ৭০/৮০ টি মেহগনি, আকাশমনি. ইউকিটাস গাছসহ বিভিন্ন ধরনের গাছ টেন্ডার ছাড়াই বিক্রয় করেছে। কিছুদিন আগেই সরকারি ১ তলা ভবনে যেখানে বিদ্যুৎ অফিস ছিলো। সেই ভবনটিও কোন প্রকার টেন্ডার ছাড়াই বিক্রয় করেছেন। বল্লা করোনেশন স্কুল অ্যান্ড কলেজের প্রায় ২৫০ টি দোকান রয়েছে। প্রতিটি দোকান থেকে বৎসরে ১৮ হাজার থেকে ২৫ হাজার টাকা ভাড়া আসে। প্রতিষ্ঠানে বৎসরে কোটি টাকা আয় হলেও তার কোন হিসেব নেই। নামে মাত্র অডিট করেই কোটি টাকা হজম করে ফেলছে। বল্লা বাজারের ব্রীজ এর পাশেই সরকারি জায়গায় অসহায় মানুষের বসবাস থাকলেও, পাকির চেয়ারম্যানের দাপটে ওই মানুষেরা জায়গা ছেড়ে দিতে বাধ্য হয়। পরে সেই ১৫/১৬ শতাংশ জায়গায় পাকির চেয়ারম্যান ৪র্থ তলা ভবন নির্মান করে সূতা ব্যবসার কারখানা বানিয়েছেন। বর্তমান বাজার মূল্যে ওই জায়গার দাম ৩ থেকে সাড়ে ৩ কোটি টাকা হবে। ১৫-১৬ অর্থ বছরের তাত বোর্ড থেকে তাঁতীদের জন্য যে সূতা এসেছিলো। চেয়ারম্যান বল্লা হাজী চান মাহমুদ পাকির নিজেই সভাপতি থেকে কোন তাতীকে সূতা না দিয়ে নিজেই সব সূতা বিক্রয় করে পকেট ভারি করেছেন। এই সূতার কথা কোন তাতীকেই জানায়নি এমন কি কোন মাষ্টাররোলও করে অফিসে জমা দেয়নি।

২০১৭/ ১৮ অর্থ বছরে বল্লা ইউনিয়ন ১, ২ ও ৩ নং ওয়ার্ড প্রাথমিক তাঁতী সমিতির ৬৫ কোটি টাকার আমদানিকৃত মালামাল বরাদ্দ পায়। ওই সমিতিগুলোর পে মালামাল উত্তোলনের জন্য সমিতির সভাপতিকে মতাপত্র প্রদান করে সমিতির পরিচালনা পর্ষদ। মালামাল উত্তোলনের মতা প্রাপ্ত সভাপতিগণকে ব্যতি রেখেই টাঙ্গাইল সদর উপজেলার করটিয়া ইউনিয়নের গাড়াইল গ্রামের দালাল আরফান আলীর সাথে যোগাযোগ করে চেয়ারমযান পাকির। দালাল আরফান আলী ৬টি সমিতির লাইন্সেস আটকিয়ে রেখে তার মাধ্যমে তাঁতী সমিতির আমদানিকৃত মালামাল সংশ্লিষ্ট সমিতি গুলোর মতাপ্রাপ্ত সভাপতির যোগসাজসে নারায়নগঞ্জের জনৈক মহাজনের নিকট বিক্রি করেছে বলে একটি সূত্র জানায়।

আরো জানা যায়, বল্লা ইউনিয়ন ১ নং ওয়ার্ড প্রাথমিক তাঁতী সমিতির সভাপতি হায়দার আলী মৌখিকভাবে দায়িত্ব অর্পন করেন বল্লা ইউপি চেয়ারম্যান চান মাহমুদ পাকির এর নিকট। চেয়ারম্যান চান মাহমুদ পাকির দালাল আরফান আলীর সাথে যোগসাজসে বল্লা ইউনিয়ন ১নং ওয়ার্ড প্রাথমিক তাঁতী সমিতির নামে বরাদ্দকৃত রঙ ও সুতা নারায়নগঞ্জের জনৈক মহাজনের কাছে মতার প্রভাব খাটিয়ে একক ভাবে বিক্রি করেন।

তবে বাংলাদেশ তাঁতবোর্ডের বিধান মতে আমদানীকৃত এবং বরাদ্দকৃত মালামাল উত্তোলনের পর সমিতির কার্য এলাকায় গুদামজাত করে বাংলাদেশ তাঁতবোর্ডের মহাব্যবস্থাপক এবং স্থানীয় লিঁয়াজো অফিসারকে লিখিতভাবে জানানোর নির্দেশনা রয়েছে এবং লিঁয়াজো অফিসার মালামাল পরিদর্শন করে একটি প্রতিবেদন মহাব্যবস্থাপকের নিকট প্রেরণ করবেন। আমদানিকৃত মালামাল তাঁতীদের মধ্যে বিতরণের সময়, স্থান ও তারিখ নির্ধারণ করে স্থানীয় লিঁয়াজো অফিসার এবং তাঁতবোর্ডের মহাব্যবস্থাপককে জানাতে হবে এবং তাদের উপস্থিতিতে বিতরণ করতে হবে। মালামাল বিতরণে বা গুদামজাত করণে কোন অনিয়ম হলে সমিতির নিবন্ধন বাতিলসহ আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে বলেও নির্দেশনা রয়েছে।

সমিতির সদস্য ইলিয়াস জানায়, আমার ১১ টি তাঁত রয়েছে। আমার ১১ তাঁতে জন্য সুতা-রঙ না দিয়ে ৪০০ টাকা দিয়েছে। টাকা নেয়ার সময় একটা কাগজে আমার নাম নিয়েছে। সেখানে টাকার কোন পরিমান দেখিনি।

নাম প্রকাশের অনিচ্ছুক সমিতির এক সভাপতি জানান, সমিতির যে সদস্যদের ১৫ থেকে ২০ টি তাঁত রয়েছে তাঁদেরকে ৬ শ থেকে ৮ শ টাকা করে দিয়েছে। এভাবেই সমিতির ১৯৫ জন সদস্যের ১৮৮১ টি তাঁতের সুতা ও রঙ না দিয়ে ৬ শ থেকে ৮ শ টাকা করে তাঁতিদের দিয়েছে।

গোপন সূত্র জানায়, বল্লা করোনেশন স্কুল অ্যান্ড কলেজের গাছ ও সরকারি ভবন টেন্ডার ছাড়া বিক্রির সংবাদ সাপ্তাহিক গণবিপ্লব অনলাইনে প্রকাশের পর হাজী চান মাহমুদ পাকির তা হালাল করার জন্য পূর্বের তারিখে টেন্ডার ও পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের পাঁয়তারা করছে।

এ বিষয়ে কালিহাতী উপজেলার ( বল্লা) ভারপ্রাপ্ত লিঁয়াজো অফিসার ইমরানুল হক জানান, সমিতির সভাপতিরা আমদানিকৃত মালামাল উত্তোলনের জন্য মতাপত্র নিয়েছেন। ওই তিনটি সমিতি আমদানীকৃত মালামাল আমাকে দেখাতে পারেনি। আমি এ বিষয় উল্লেখ করে যথাযথ আমার ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাকে জানিয়েছি। এ কারণে তারা মালামাল বিতরণের কোন মাষ্টাররোল দিতে পারছে না। তাঁতী সমিতির সভাপতিরা এসব বিষয়ে সঠিক ধারনা দিতেও পারেনি।

এ প্রসঙ্গে বল্লা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হাজী চান মাহমুদ পাকির অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, স্কুলের কিছু মৃত গাছ কাটা হয়েছিলো। স্কুলের দোকান ভাড়া প্রধান শিক উঠায়ে জমা দেন, এখানে আমার কোন হাত নেই। ভবনটি সরকারি জমিতে করা হয় নি। সরকারি জমিটি ভবনের পিছনে তবে পরবর্তীতে ভবন পেরিফরীর মধ্যে পড়ে গেছে। তাঁত বোর্ডের সভাপতি যখন ছিলাম তখন এসব ঘটেনি আর আমারো মনে পড়ছে না।

জাতির জনকের সুযোগ্য কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রতিটি ইউনিয়নের উন্নয়নের জন্য যে সকল প্রকল্পে টাকা বরাদ্দ করেছেন। সেই সব প্রকল্পের বেশ কটি প্রকল্পের কোন কাজ না করেই প্রকল্পের টাকাও আত্মসাৎ করেছেন বলে স্থানীয়রা জানান। ( চলবে )।

সাপ্তাহিক গণবিপ্লব
এইমাত্র পাওয়া