২৫ অক্টোবর, ২০১৭ প্রকাশ হয়েছে

ছাত্র হত্যার অভিযোগে শাহীন শিক্ষা পরিবারের পরিচালকসহ ১৬ জনের বিরুদ্ধে মামলা

মো. আল-আমিন খানঃ 

শাহীন স্কুল অ্যান্ড কলেজের ৯ম শ্রেণির ছাত্র নিহত আব্দুল আজিজ ফোয়াদ (১৫)

টাঙ্গাইলের শাহীন স্কুল অ্যান্ড কলেজের ছাদ থেকে পড়ে ৯ম শ্রেণির ছাত্র আব্দুল আজিজ ফোয়াদ (১৫) নিহত হওয়ার ঘটনায় প্রতিষ্ঠানের পরিচালক সহ ১৬ জনের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা হয়েছে। এ ঘটনায় সিসিটিভির ফুটেজ এবং প্রত্যক্ষদর্শীদের জিজ্ঞাসাবাদে চলছে তদন্তের কাজ। তবে এ ঘটনা নতুন কিছু নয়, পূর্বেও রয়েছে শাহীন শিক্ষা পরিবারের শিক্ষকদের বিরুদ্ধে নারী কেলেঙ্কারি সহ শিক্ষার্থীদের উপরে শিক্ষক দ্বারা মধ্যযুগী কায়দায় পৈচাশিক নির্যাতনের অভিযোগ।

জানা যায়, গত ১৬ অক্টোবর দুপুরে শহরের রেজিষ্ট্রিপাড়া শাহীন স্কুল অ্যান্ড কলেজের আবাসিক ভবনের চারতলার ছাদ থেকে পড়ে ৯ম শ্রেণির ছাত্র ফোয়াদের মৃত্যু হয়। আবাসিক ভবনের সিসিটিভির ফুটেজে দেখা যায়, ঐদিন দুপুরে কয়েকজন ছাত্র আবাসিক ভবনের নিচে দাঁড়িয়েছিল। অপেক্ষমান ছাত্ররা চারতলার ছাদের দিকে ইশারা করে কিছু বলাবলি করছিল। এর কিছুক্ষনের মধ্যেই নিচে পড়ে ফোয়াদের দেহ। পরে তাকে দ্রুত হাসপাতালে নেয় শিক্ষার্থীরা।

টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতাল থেকে ফোয়াদকে ঢাকা বঙ্গবন্ধু মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এ ঘটনায় শাহীন স্কুল অ্যান্ড কলেজ রেজিষ্ট্রিপাড়া শাখার পরিচালক আনোয়ার হোসেন আসলাম বাদী হয়ে টাঙ্গাইল মডেল থানায় একটি অপমৃত্যুর মামলা করেন। স্বজনদের দাবি ফোয়াদকে হত্যা করা হয়েছে।

নিহত ফোয়াদের মা- রুবী আক্তার, চাচা- ইস্রাফিল হোসেন কামাল ও ফুপু- আয়শা আক্তার লাবনী টাঙ্গাইল মডেল থানায় গিয়ে অভিযোগ দায়ের করলেও পুলিশ আমলে নেয়নি। পরে নিহত ফোয়াদের চাচা মো. ইস্রাফিল হোসেন কামাল বাদী হয়ে ২৩ অক্টোবর টাঙ্গাইল সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আমলী আদালতে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। পরে আদালতের বিচারক আব্দুল্লাহ আল মাসুম হত্যা মামলাটি আমলে নিয়ে টাঙ্গাইল মডেল থানাকে এফআইআর করার আদেশ দেন।

মামলার এজাহারে শাহীন স্কুলের পরিচালক ও অধ্যক্ষ মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন আসলাম, আবাসিক শিক্ষক আব্দুর, শিক্ষক জামিল, সহপাঠি-উচ্ছাস, সিয়াম, নুসরাত, সামছুল আলম, মো. জনি, জামিল, রেজভী আহম্মেদ সাকিব, নাছির শেখ, মিরাজুল ইসলাম স্বপন, আলামিন, সাফায়েত, জাহিদ, কামরুল ও ফয়ছাল।

ফুয়াদের মা রুবী আক্তার জানান, সোমবার (১৬ অক্টোবর) দুপুরে শহীন শিক্ষা পরিবারের নির্বাহী সদস্য ও শাহীন কলেজের অধ্যক্ষ মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন আসলাম আমাকে মোবাইল ফোন করে জানায় ফোয়াদ ছাদ থেকে লাফিয়ে পরেছে। আমি তাকে জিজ্ঞোসা করলাম কেন কি হয়েছে কিন্তু তিনি কোন কিছু না বলে আমাকে ঢাকা একটি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে বলে জানান।

ফুপু হামিদা বেগম জানায়, রোববার (১৫ অক্টোবর) বিকালে ফুয়াদ আমাকে ফোন করে কেঁদে কেঁদে বলে আমার সাথে আমার সহপাঠী রুমমেটে জগড়া হয়েছে সে আমাকে প্রায় সময় মারপিঠ করে এবং হত্যার হুমকী দিয়ে আসছে। যে কোন সময় আমাকে মেরে ফেলতে পারে। আমি এখানে থাকবো না। আমাকে এখান থেকে নিয়ে যাও।
পরে তাৎক্ষণিক আবাসিকের স্যার রশিদ ও শাহীন কলেজের অধ্যক্ষ মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন আসলামকে ফোনে বিষয়টি জানালে তারা তাৎক্ষণিক ব্যবস্তা গ্রহণের আশ্বাস দেন। পরদিন দুপুরে ফোয়াদ ছাদ থেকে লাফিয়ে পরেছে শুনতে পাই।

চাচা মো. ইসরাফ্রিল কামাল জানান, এটি একটি পরিকল্পিত হত্যাকান্ড। এ হত্যার সাথে শিক্ষা প্রতিষ্ঠনের পরিচালকসহ অন্যান্য সকলেই জড়িত। ফোয়াদকে পিটিয়ে হত্যার পর তার লাশ ছাদ থেকে ফেলে দেওয়া হয়েছে। ফোয়াদ ছাদ থেকে স্বাভাবিক ভাবে পড়ে গেলে রক্ত আশপাশে ছড়িয়ে পরার কথা কিন্তু সেখানে তেমন কোন রক্তের দাগ ছিল না।
ফোয়াদের পোষ্টমর্ডেম রিপোর্টে দুপায়ের মাঝে থেতলে যাওয়া, ডান হাত ভাঙ্গা ও মাথায়সহ সারা শরীরে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। হত্যার বিষয়টি ধামা চাপা দেওয়ার জন্য আবাসিক স্কুল অ্যান্ড কলেজের পরিচালক আনোয়ার হোসেন আসলাম বাদী হয়ে একটি অপমৃত্যুর মামলা করেন। সহপাঠী স্বাক্ষী লোপাটের জন্য পরেদিন থেকেই ওই আবাসিক ছাত্রাবাসের ৯ম শ্রেণির সকল ছাত্রদের ছুটি দিয়ে দেয়া হয়।

স্কুলের আবাসিক শিক্ষার্থীরা নাম প্রকাশ না করে জানান, শাহীন স্কুলের আবাসিকের প্রায় প্রতিটি শিক্ষার্থীকে শারীরিক নির্যাতন ও মানসিকভাবে অসহ্য চাপ দেওয়া হয়। সামান্যতম কারণেও শিক্ষকরা পিটুনি দেন। শিক্ষকদের ব্যক্তিগত কাজ না করলে আঘাত দিয়ে নানা রকম কথা বলেন।
আবাসিক ভবনের চারতলা থেকে লাফিয়ে পড়ে ফোয়াদের আত্মহত্যার নেপথ্যে শিক্ষকদের নিয়মিত শারীরিক ও মানসিক নির্যাতনই দায়ী।

শুধু এ ঘটনাই সীমাবদ্ধ নয়, গত ৫ মে শাহীন শিক্ষা পরিবারের আবাসিক নবম শ্রেণির কয়েকজন ছেলে শিক্ষার্থীর সাথে দশম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের বাকবিতন্ডা এবং হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। পরে নবম শ্রেণির শিক্ষার্থীরা বিদ্যালয়টির আবাসিক ভবন পরিচালক বাবুল হোসেনের কাছে এ বিষয়ে অভিযোগ করেন। পরিচালক আবুল হোসেন তাদের অভিযোগের ভিত্তিতে দশম শ্রেণির ১০/১২জন শিক্ষার্থীকে ভবনের একটি কক্ষে ডেকে নিয়ে ও কক্ষ বন্ধ করে মধ্যযুগীয় কায়দায় লাঠি দিয়ে মারধর করে গুরুতর আহত অবস্থায় রুমে আটকে রাখে। এ সময় মারধরের প্রতিবাদ করায় বগুড়া জেলার তালোরা এলাকার সামাদ মিয়ার ছেলে প্রতিষ্ঠানের দশম শ্রেণির ছাত্র রিজভীকে ক্ষিপ্ত হয়ে পৌশাচিক কায়দায় লোহার রড আগুনে পুড়িয়ে শরীরের বিভিন্ন স্থানে ছেঁকা দেয়ার ঘটনাও ঘটে। পরে এ ঘটনায় একজন গুরুতর আহত অবস্থায় জ্ঞাণ হারিয়ে ফেললে অন্যান্য শিক্ষার্থীরা রিজভীসহ আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করেন।

গত ৪ মে শাহীন স্কুলের বাসাইল শাখার পরিচালক আব্দুর রশিদের বিরুদ্ধে ওই স্কুলের এক শিক্ষিকাকে শ্লীলতহানির চেষ্টার অভিযোগ উঠায় ওইদিন  সকালে স্কুলের মেইন গেইট অবরোধ করে বিক্ষোভ করে শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও এলাকাবাসী। গত ২৬ এপ্রিল রাতে অভিযুক্ত আব্দুর রশিদকে পুলিশে তাড়া করেছে বলে কৌশলে শিক্ষিকার ঘরে ঢুকে। এ সময় তাকে একাধিকবার ধর্ষণেরচেষ্টা করে ব্যর্থ হয়ে আব্দুর রশিদ তাকে শারিরিক নির্যাতন করে। বিষয়টি স্কুল কর্তৃপক্ষকে জানালে তারা বিচার না করে উল্টো ওই শিক্ষিকাকে চাকরি ছেড়ে দিতে নানা কৌশল অবলম্বন করে। কর্তৃপক্ষের চাপে গত ১ জুন দুই সন্তানের জননী বিধবা শিক্ষিকা একমাত্র অবলম্বন স্কুল চাকরি ছাড়তে বাধ্য হন বলে জানান।

নিহত ফোয়াদের বিষয়ে শাহীন স্কুলের পরিচালক ও অধ্যক্ষ মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন আসলাম জানান, চারতলার ছাদ থেকে ছাত্র পড়ে গেছে, এটা একটি দুর্ঘটনা। আইনানুযায়ী যা হয় তাই হবে। আমি ঘটনা শুনার পরপরই দ্রুত ঐ ছাত্রকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া ও ঢাকায় পাঠানোর ব্যবস্থা করেছি। চিকিৎসার ক্রুটি করা হয়নি।

শাহীন শিক্ষা পরিবারের চেয়ারম্যান মাসুদুল আমিন শাহীন ২১ আগষ্ট গ্রেনেড হামলা মামলার আসামী আব্দুস সালাম পিন্টু মুক্তিপরিষদের আহবায়ক ছিলেন। শাহীন শিক্ষা পরিবারের চেয়ারম্যান মাসুদুল আমিন শাহীন বলেন, হত্যা মামলা করলে তো টাঙ্গাইলের পুলিশই মামলা তদন্ত করবেন? নোয়াখালী থেকে টাঙ্গাইল এসে হত্যা মামলা চালাবেন দেখা যাক! তিনি আরও বলেন, ফোয়াদ তার মায়ের উপর অভিমান করেই আত্মহত্যা করেছে। স্কুলের পক্ষ থেকেও ফোয়াদের চাচা, ফুপু ও মায়ের বিরুদ্ধেও মামলা করার প্রস্ততি নেয়া হচ্ছে।

টাঙ্গাইল মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মো. সাইদুর রহমান জানান, তদন্ত অব্যাহত আছে। নিদিষ্ট তথ্য প্রমান হাতে এলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

এদিকে ফোয়াদ হত্যা ঘটনার রহস্য উৎঘাটনে দ্রুত পদক্ষেপ নেয়ার দাবি অভিভাবক, শিক্ষার্থী ও এলাকাবাসীর।

 

 

এ রকম আরোও খবর

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ