ছেলেধরা আতঙ্কে ভুগছে সিলেটবাসী

প্রকাশিত : ৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৬
গণবিপ্লব
রিপোর্ট

সিলেট থেকে সৈয়দ রাসেল আহমদ:

123

সিলেটের গোলাপগঞ্জ, জকিগঞ্জ, মৌলভীবাজারসহ বেশকিছু এলাকায় কয়েক দিন থেকে ছেলেধরার আতংকে অভিভাবকরা উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছেন।কিছুদিন পর পর উপজেলার কোথাও না কোথাও এই চক্রটির তৎপরতা শোনা যায়। গত রমজান মাসে উপজেলার সোনাসার গ্রাম থেকে সুনামগঞ্জের এক ছেলেধরা যুবক একটি বাচ্চাকে নিয়ে যাবার পথে জকিগঞ্জ পৌর শহরে আটক করে গণপিটুনি দিয়ে পুলিশে দেয় স্থানীয় জনতা।

প্রায় একমাস আগে ফুলতলী গ্রাম থেকেও ৬ষ্ঠ শ্রেণির একটি মাদ্রাসা ছাত্রকে প্রাইভেটকার করে নিয়ে যাবার চেষ্টা করা হয়। কিন্তু ছেলেটির চতুরতায় সড়ক বাজার এলাকা থেকে গাড়ি থেকে পালিয়ে রক্ষা পায়।

মাস খানেক আগে জকিগঞ্জ ইউপির মানিকপুর গ্রামে এক মহিলার ঘর থেকে সন্ধ্যার পরে একটি শিশু নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করা হলে বাচ্চাটির চিৎকারে লোকজন জড়ো হয়। পরে ছেলেধরা চক্রটির সদস্যরা পালিয়ে যায় বলে এলাকাবাসী সূত্রে জানাযায়। চক্রটিকে ধরতে মসজিদের মাইকে এলান করা হলেও এলাকাবাসী ছেলেধরা চক্রের কোন সদস্য এলাকায় খুঁজে পাননি।

সর্বশেষ শনিবার (২৭ আগস্ট) জকিগঞ্জ সদর ইউনিয়নের মুমিনপুর গ্রামের মসজিদে মাগরিবের নামাজে যাওয়ার পথে জকিগঞ্জ ফাজিল সিনিয়র মাদ্রাসার নবম শ্রেণির ছাত্র সুহেল আহমদকে ছেলেধরা চক্রের এক সদস্য মুখে ও গলায় টিপে ধরে নিয়ে যাবার চেষ্টা করে এক যুবক। তাৎক্ষণিক বিষয়টি মুমিনপুর গ্রামের বিলাল আহমদ নামের এক ব্যক্তি দেখে ফেলায় ছেলেটিকে ছেড়ে দিয়ে দৌড়ে পালিয়ে যাবার চেষ্টা করে ছেলেধরা চক্রের এ সদস্যটি। পরে এলাকার লোকজন ধাওয়া করে যুবকটিকে আটক করে।

আটককৃত যুবকের বাড়ি গোলাপগঞ্জ উপজেলার আওতাধীন বলে প্রাথমিকভাবে নিশ্চিত হওয়া গেছে। পরে ক্ষুব্ধ এলাকাবাসী গণধোলাই দিয়ে তাকে জকিগঞ্জ থানা পুলিশে সোপর্দ করেন।

ছেলেধরা চক্রের সদস্যর হাত থেকে উদ্ধার হওয়া মাদ্রাসা ছাত্র সুহেল আহমদ রাইগ্রামে আব্দুল জলিলের পুত্র। সে জকিগঞ্জ ফাজিল সিনিয়র মাদ্রসায় নবম শ্রেণিতে লেখাপড়া করে।

সুহেল জানায়- মুমিনপুর গ্রামের মৃত মখলিছুর রহমানের বাড়িতে তার নানার বাড়ি। সে এখানে থেকেই লেখাপড়া করে। শনিবার (২৭ আগস্ট) মাগরিবের আগ থেকে এ যুবকটি তাকে ফলো করে গ্রামের মধ্যে কয়েকবার চক্কর দেয়। মাগরিবের আজান হওয়ার পর আমি (সুহেল) মসজিদে যাওয়ার সময় গতিরোধ করে আমাকে নিয়ে মাজারে যাওয়ার কথা বলে যুবকটি। আমি অসম্মতি জানালে আমার মুখ ও গলাটিপে ধরে নিয়ে যাবার চেষ্ট করে। কিন্তু এসময় লোকজন এই রাস্তা দিয়ে আসায় আমাকে ছেড়ে দৌঁড় দেয়। তখন আমি লোকজনকে বিষয়টি বিস্তারিত বললে ধাওয়া করে তাকে আটক করা হয়।

রারাইগ্রামের কালন মাওলানা জানান- প্রায় মাস খানেক পূর্বেও ইলাবাজ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৩য় শ্রেণির তান্নি নামের একটি ছাত্রীকে কে বা কারা নিয়ে যাবার চেষ্ট করে। ছাত্রীটির শোরচিৎকারে বয়স্ক এক লোক ইলাবাজ ব্রিজ এলাকায় একটি গাড়ি থেকে তাকে উদ্ধার করেন। অতিরিক্ত বৃদ্ধ লোক হওয়ায় অপহরণকারীকে তিনি আটক করতে পারেননি।

এদিকে, জকিগঞ্জে বেশ কয়েকটি ছেলেধরা ঘটনায় স্কুল ও মাদ্রাসাপড়ুয়া শিক্ষার্থীদের অভিভাবকরা উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছেন।

জকিগঞ্জ ইউনিয়নের মেম্বার ও উপজেলা শ্রমিকলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল মুকিত বলেন- এখন শুধু ছেলেধরা চক্রটির তৎপরতার খবর পাওয়া যায়। জকিগঞ্জ উপজেলায় কিছুদিন থেকে আশংকাজনক হারে এ চক্রটি বৃদ্ধি পেয়েছে। ছেলেধরা চক্রের ব্যাপারে প্রশাসনসহ সবাই সর্তক থাকলে এসব রোধ করা সম্ভব।

এলাকায় কোন অপরিচিত লোকের সন্দেহজনক চলাফেরা দেখলে বিষয়টি স্থানীয় ইউপি সদস্য ও প্রশাসনকে জানাতে তিনি অনুরোধ করেছেন। সেই সাথে কোন অপরিচিত ব্যক্তির ডাকে সাড়া এবং কোন প্রকার খাদ্য গ্রহণ না-করে সর্তকভাবে চলাচলের আহবান জানিয়েছেন।

 

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ