জেএমবির ভয়ংকর পুনরুত্থান

প্রকাশিত : ১৭ আগস্ট, ২০১৬
গণবিপ্লব অনলাইন
ডেস্ক রিপোর্ট

বিশেষ প্রতিবেদক :

1377505459

আজ ১৭ই আগষ্ট। ২০০৫ সালের আজকের দিনে বেলা ১১টা থেকে সাড়ে ১১টায় শুধু মুন্সিগঞ্জ বাদে দেশের দেশের ৬৩ জেলায় একযোগে ৫০০ বোমা ফাটিয়ে অস্তিত্ব, লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য জানান দিয়েছিল জামাআতুল মুজাহিদীন বাংলাদেশ (জেএমবি)। এরপর ছয় মাসের মধ্যে প্রতিষ্ঠাতা ও শীর্ষস্থানীয় নেতাদের গ্রেপ্তার, পরের বছর ফাঁসি কার্যকর এবং আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর তৎপরতার মুখে বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে জঙ্গি সংগঠনটি। কিন্তু ১১ বছরের মাথায় সেই জেএমবি ভয়ংকররূপে আবির্ভূত হয়ে গত ১ জুলাই গুলশানে হলি আর্টিজান বেকারি রেস্তোরাঁয় হামলা ও হত্যাযজ্ঞের মধ্য দিয়ে পুনরুত্থানের জানান দিয়েছে। তবে এই সংগঠন বা গোষ্ঠীটি নিজেদের আইএস (ইসলামিক স্টেট) দাবি করছে। আর পুলিশ বলছে, এরা ‘নব্য জেএমবি’। মূল জেএমবি থেকে বেরিয়ে এসে পৃথকভাবে সংগঠিত হয়েছে। জানাযায়,  ১৯৮৮ সালে শায়খ আবদুর রহমান জেএমবি প্রতিষ্ঠা করেন। প্রতিষ্ঠার ১০ বছর পর ১৯৯৮ সালে জেএমবি দেশব্যাপী তাদের কার্যক্রম শুরু করে। তবে দলটির প্রকাশ্য তৎপরতা শুরু হয় ২০০৩ সালের প্রথমদিকে। পরে ২০০৫ সালের ১৭ আগস্ট দেশের ৬৩ জেলায় সিরিজ বোমা হামলা ও ১৪ নভেম্বর ঝালকাঠিতে বিচারককে হত্যার মধ্যদিয়ে সংগঠনটি আলোচনায় আসার পরে ২০০৭ সালের ৩০ মার্চ জেএমবির শুরা কমিটির প্রধান সিদ্দিকুল ইসলাম ওরফে বাংলা ভাই, আধ্যাত্মিক নেতা শায়খ আবদুর রহমান, অপারেশন কমান্ডার আতাউর রহমান সানি, খালেদ সাইফুল্লাহসহ শীর্ষ ৬ জনের ফাঁসি কার্যকর হওয়ার পর বেশ কয়েকদিন আত্মগোপনেই ছিল নিষিদ্ধ সংগঠনটির অন্যান্য নেতা-কর্মীরা। কিন্তু ২০১৪ সালে গাজীপুরের কাশিমপুর কারাগার থেকে ময়মনসিংহ আদালতে নেওয়ার পথে ত্রিশালে প্রিজনভ্যানে হামলা চালিয়ে ফাঁসি ও যাবজ্জীবন দণ্ডপ্রাপ্ত জেএমবি সদস্য সালাউদ্দিন (সালেহীন), জাহিদুল ইসলাম (বোমারু মিজান) ও রাকিব হাসানকে (হাফেজ মাহমুদ) ছিনিয়ে নেয় জঙ্গিরা। এ সময় সন্ত্রাসীদের হামলায় পুলিশ কনস্টেবল আতিকুল ইসলাম (৩০) নিহত হন। আহত হন আরও দুই পুলিশ সদস্য। ওই দিনই টাঙ্গাইলে ধরা পড়ে রাকিব হাসান। ওই রাতেই পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ সে মারা যায়। পালিয়ে যাওয়া অন্য দুই জেএমবি নেতার অবস্থান সম্পর্কে এখনও নিশ্চিত না আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) পরিদর্শক মো. লুৎফর রহমান জানিয়েছেন, ছিনতাই হওয়া জেএমবির দুই সদস্য কোথায় আছে তা তাদের জানা নেই। তবে ধারণা করা হচ্ছে তারা ভারতে আশ্রয় নিয়েছে। আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী সূত্র মতে, সর্বশেষ গুলশানের হলি আর্টিজান ও শোলাকিয়ায় ঈদগাহে হামলা থেকে শুরু করে ইটালিয়ান প্রবাসী তাবেলা সিজার, জাপানের হোশে কুনিও, খ্রিস্টান ধর্ম যাজকের উপর হামলা, সেবাশ্রমের সেবক-কর্মচারী হত্যাকাণ্ড ইত্যাদি ঘটনায় জেএমবির সংশ্লিষ্টতা পাওয়া গিয়েছে। বর্তমানে তামিম আহমেদ চৌধুরী নামে কানাডিয়ান প্রবাসী বাংলাদেশী নতুনভাবে জেএমবিকে সংগঠিত করে এ ধরনের নাশকতামূলক কর্মকান্ড করছে এবং ১ জুলাই গুলশানে রেস্টুরেন্টে হামলার অন্যতম মাস্টারমাইন্ড তিনি। তবে গুলশানের হলি আর্টিজানে জঙ্গি হামলার ঘটনায় আরেক মাস্টারমাইন্ড মারজানকে শনাক্তের বিষয়টি গত শুক্রবার (১২ আগস্ট) জানায় পুলিশ। সোমবার (১৫ আগস্ট) রাতে ‘হ্যালো সিটি’ অ্যাপসের মাধ্যমে মারজানের পরিচয় ও ঠিকানা পায় পুলিশ। পাবনার হেমায়েতপুরে তার বাবা-মা মারজানের পরিচয় নিশ্চিত করে। ২০১২-১৩ শিক্ষাবর্ষে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হয় নূরুল ইসলাম ওরফে মারজান। ক্যাম্পাসে তিনি ফাহাদ নামে পরিচিত ছিলেন। ২০১৩ সালে অনুষ্ঠিত প্রথম বর্ষের পরীক্ষায় সিজিপিএ ৩.৪৮ পেয়ে তিনি দ্বিতীয়বর্ষে উত্তীর্ণ হন। এরপর ২০১৫ সালে দ্বিতীয়বর্ষের ছয়টি কোর্সের পরীক্ষা দিলেও বাকি পরীক্ষায় আর অংশ নেননি। তবে মারজান গত ফেব্রুয়ারি মাস থেকে স্ত্রীসহ নিখোঁজ রয়েছেন বলে দাবি করেছেন তার পরিবারের সদস্যরা। দীর্ঘদিন জঙ্গিবিরোধী কার্যক্রমে যুক্ত আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা বলেন, জঙ্গিবাদ মোকাবিলায় কার্যকর বা সমন্বিত পদক্ষেপ ও নিরবচ্ছিন্ন গোয়েন্দা নজরদারির অভাবে ১১ বছরের মাথায় এত ভয়ংকররূপে আবির্ভূত হয়েছে জেএমবি। তিনি বলেন, বিপর্যস্ত জেএমবি আবার ঘুরে দাঁড়াবে, সেটা কেউ ধারণা করেনি। বিচ্ছিন্নভাবে বিভিন্ন বাহিনী ও সংস্থা জঙ্গিদের গ্রেপ্তার করলেও নিরবচ্ছিন্ন গোয়েন্দা নজরদারি ছিল না। তেমনি কারাগারে থাকা জঙ্গিরা কে কখন সাজা শেষে বা জামিনে বের হচ্ছেন, সেটারও ভালো নজরদারি হয়নি। তার মতে , ২০০৭ সাল থেকেই জঙ্গিবাদবিরোধী বিশেষায়িত বাহিনী বা বিভাগ করে একই কেন্দ্র থেকে মামলার তদন্ত, জিজ্ঞাসাবাদ, নিরবচ্ছিন্ন গোয়েন্দা নজরদারিসহ সমন্বিত পদক্ষেপ নেওয়ার দরকার ছিল। জঙ্গিদের তৎপরতা নজরদারি ও এ-সংক্রান্ত তদন্ত তদারক করেন এমন একাধিক কর্মকর্তা বলেন, জেএমবির এই অংশটি নিজেদের নতুন উপস্থিতির জানান দিতে ২০১৪ সালের শেষ দিকে দেশে বড় নাশকতা ঘটানোর পরিকল্পনা করছিল। কিন্তু তার আগে ওই বছরের ২ অক্টোবর ভারতের বর্ধমানের একটি আস্তানায় বোমা তৈরির সময় বিস্ফোরণের কারণে ওই পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করতে পারেনি। সম্প্রতি এ অংশটি মাওলানা সাইদুরের অংশের সঙ্গে একীভূত হয়ে গেছে। সাইদুরকে আমির পদে বহাল রেখে সালাহউদ্দিনকে ভারপ্রাপ্ত আমির করা হয়েছে। এ অংশটির তৎপরতা সীমান্তের ওপারে ভারতেও রয়েছে, সেখানে সংগঠনটির অনেকে ইতিমধ্যে গ্রেপ্তারও হয়েছেন। জেএমবির অপর অংশটি মূলত আইএস মতাদর্শ অনুসরণ করে। নিজেদের আইএস দাবি করলেও বাংলাদেশ সরকার তা নাকচ করে দিয়ে বলে আসছে যে দেশে কোনো আইএস নেই। এরা জেএমবির একটি অংশ। তবে এই ‘নব্য জেএমবি’র প্রধান/শীর্ষ নেতা কে, তিনি দেশে না দেশের বাইরে থেকে নেতৃত্ব দিচ্ছেন,এ বিষয়ে নিশ্চিত তথ্য পাওয়া যায়নি। যদিও পুলিশের কাউন্টার টেররিজম বিভাগের প্রধান ও অতিরিক্ত কমিশনার মনিরুল ইসলাম গতকাল বলেছেন, তামিম চৌধুরী ও মারজান ছাড়াও এই গোষ্ঠীর সাত-আটজন ‘মাস্টারমাইন্ডকে’ তাঁরা শনাক্ত করতে পেরেছেন। জানা গেছে, শনাক্ত হওয়াদের মধ্যে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত কানাডার নাগরিক তামিম আহমেদ চৌধুরী গুরুত্বপূর্ণ। তিনি ২০১৩ সালের ৫ অক্টোবর দেশে আসেন এবং দেশীয় জঙ্গিদের সঙ্গে বাইরের যোগাযোগের সেতুবন্ধ হিসেবে কাজ করেন। যদিও তারও আগে উগ্রপন্থায় যুক্ত হওয়া যুক্তরাজ্য প্রবাসীদের কেউ কেউ এখানে নেটওয়ার্ক গড়ে তুলেছিলেন বলে বিভিন্ন সময়ে তথ্য প্রকাশ পেয়েছে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর একটি সূত্র জানায়, রিপন ও রাজীব নামে ‘নব্য জেএমবি’র আরও দুজন গুরুত্বপূর্ণ সংগঠকের নাম পাওয়া গেছে, যাঁদের বাড়ি উত্তরবঙ্গে এবং তাঁরা মাদ্রাসায় লেখাপড়া করা। এ ছাড়া বিভিন্ন দেশ থেকে যেসব প্রবাসী বাঙালি সিরিয়া গিয়ে আইএসে যোগ দিয়েছেন, তাঁদের কারও কারও সঙ্গে এই নব্য জেএমবিদের যোগাযোগ আছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। শুরুর দিক থেকেই জেএমবির তৎপরতার বিষয়ে পর্যবেক্ষণ করে আসছেন আইন ও সালিশ কেন্দ্রের পরিচালক নুর খান। তাঁর মতে, এই কথিত নব্য জেএমবির সঙ্গে ১৯৯৮ সালে শায়খ আবদুর রহমানের প্রতিষ্ঠিত জেএমবির অনেক তফাত। আগের মতো দরিদ্র ও নিম্ন-মধ্যবিত্ত নয়, উচ্চ ও মধ্যবিত্তের সন্তান ও আধুনিক শিক্ষিতরাও যুক্ত হয়েছেন নব্য জেএমবিতে। চিকিৎসক, প্রকৌশলী, আইনজীবী, নাবিক এমন নানা পেশাজীবীও আছেন। বিদেশে লেখাপড়া কিংবা বসবাস করেন, এমন ব্যক্তিরাও যুক্ত হয়েছেন। যাঁরা আন্তর্জাতিক যোগাযোগের মাধ্যমে এ দেশে এসে জঙ্গিদের সমন্বয়ের দায়িত্ব নিয়েছেন বলে সন্দেহ করা হচ্ছে। ঢাকার আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী সংস্থাগুলোর একটি সূত্র জানায়, বাংলাদেশি জঙ্গিদের মধ্যে ঘরছাড়া বা হিজরত করার ধারণা ঢুকিয়েছেন প্রবাসী বা প্রবাসফেরত জঙ্গিরা।  এ কাজে যুক্ত আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও সংস্থাগুলোর সদস্যদের বড় অংশের জঙ্গিগোষ্ঠী সম্পর্কে জানা-বোঝায় ঘাটতি ছিল এবং এখনো আছে। এ ছাড়া বিষয়টিকে কেবল আইনশৃঙ্খলাজনিত সমস্যা হিসেবে দেখা হয়েছে। এর মতাদর্শিক দিক মোকাবিলা বা অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক পরিস্থিতি মূল্যায়ন, দেশে সুশাসন প্রতিষ্ঠার বিষয়টি বিবেচনায় নেওয়া হয়নি। এই পর্যবেক্ষণ সম্পর্কে জানতে চাইলে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা অনেকটা একমত জানিয়ে বলেন, এ ধরনের ধর্মভিত্তিক মতাদর্শিক গোষ্ঠীর মোকাবিলায় দীর্ঘমেয়াদি কর্মসূচি থাকতে হয়। যেটার ঘাটতি আছে। এ বিষয়ে নিরাপত্তা বিশ্লেষক এয়ার কমোডর (অব.) ইশফাক ইলাহী চৌধুরী বলেন, এখন পর্যন্ত দেশে জঙ্গিবাদ মোকাবিলার কোনো কর্মকৌশল ঠিক হয়নি। জঙ্গিবাদ মোকাবিলায় র্যাব, পুলিশ, গোয়েন্দা সংস্থা বা শিক্ষা মন্ত্রণালয়, সংস্কৃতি মন্ত্রণালয় এবং অন্যদের কার কী দায়িত্ব, কর্মপরিচালনার পদ্ধতি কী হবে, তা ঠিক করা হয়নি। তিনি বলেন, গুলশান হামলার পর সমাজে জঙ্গিবাদবিরোধী একটা সচেতনতা ও বোধশক্তি জাগ্রত হয়েছে। সরকারের উচিত সমাজের এই বোধশক্তিকে কাজে লাগানো এবং সবাইকে নিয়ে সম্মিলিত উদ্যোগ নেওয়া।

 

সাপ্তাহিক গণবিপ্লব

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ