টাঙ্গাইলবাসীর সেবায় জেলা প্রশাসনের ক্লান্তিহীন পথচলা

প্রকাশিত : ৫ এপ্রিল, ২০২০

টাঙ্গাইল ৫ এপ্রিল : টাঙ্গাইলের জনবান্ধব ও দূরদর্শী জেলা প্রশাসক মো. শহীদুল ইসলাম তার অধীনস্থ কর্মকর্তাদের সাথে নিয়ে জেলাবাসীর সেবায় ক্লান্তিহীন পথচলা অব্যাহত রেখেছেন।

টাঙ্গাইল জেলা প্রশাসনের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোহাম্মদ মোশাররফ হোসেন খান, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ শহীদ উল্লাহ, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) মো. বজলুর  রশিদ, এনডিসি মো. রোকনুজ্জামান, আরডিসি সুখময় সরকার, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তাপস পাল সহ অন্যান্য কর্মকর্তাদের নিয়ে দেশের বর্তমান পরিস্থিতিতে ভাইরাস সংক্রমণ রোধ, দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণ ও কর্মহীন মানুষের মাঝে ত্রাণ সামগ্রী পৌঁছানোর ক্ষেত্রে অগ্রণী ভূমিকা রাখছেন। জেলা প্রশাসন, সেনা বাহিনীর সদস্যগণ, পুলিশ বিভাগ ও র‍্যাব জনস্বার্থে যৌথভাবে কাজ করে যাচ্ছে।  এছাড়াও টাঙ্গাইলের অন্তর্ভুক্ত ১২ টি উপজেলায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ও এসিল্যান্ড’সহ অন্যান্য কর্মকর্তাদের মাধ্যমে চলমান সংকট কালীন এই মুহূর্তে করোনা ভাইরাস আতঙ্কের কারনে কর্মহীন হয়ে পরা দরিদ্র লোকজনের মাঝে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ, নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্য স্থিতিশীল রাখা’ সহ অন্যান্য কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছেন।

চলমান সংকটকালীন এই মুহূর্তে ত্রাণ সামগ্রীর বিষয়ে একান্ত সাক্ষাৎকারে  জেলা প্রশাসক মো. শহীদুল ইসলাম বলেন, যারা দিন আনে দিন খায়, যারা কর্মহীন হয়ে অনাহারে রয়েছে, সরকার তাদের জন্য নির্দেশনা দিয়েছে, এ ব্যাপারে বরাদ্দও দিয়েছে। আমরা ইতিমধ্যে চাল, ডাল, পেঁয়াজ’সহ নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিস তাদেরকে দিচ্ছি। এর পাশাপাশি জেলা প্রশাসন থেকে সরকারি আইন অনুযায়ী দূর্যোগ মোকাবেলায় আমরা একটি ত্রাণ তহবিল গঠন করেছি। জেলা প্রশাসনে আমাদের যে কর্মকর্তা কর্মচারী রয়েছে, তাদের একদিনের বেতন সংগ্রহ করে এ তহবিলে জমা দিয়েছি। সরকারি যে অফিসগুলো রয়েছে সবাইকে আমরা চিঠি দিয়েছি, তারা যেন একই ভাবে তাদের সামর্থ্য অনুযায়ী ত্রাণ তহবিলে অর্থ জমা দেয়। তাছাড়া টাঙ্গাইলে বিত্তশীল ও মানব দরদী যারা রয়েছেন, তাদেরকে আমরা আহ্বান জানাব, তারা যেন এই তহবিলে সামর্থ্য অনুযায়ী সহায়তা করে। নিম্ন আয়ের যে মানুষগুলো, কর্মহীন হয়ে গৃহে রয়েছে আমরা যেন তাদের আহার্য দিয়ে সহায়তা করতে পারি।

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ। কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে অনুমতি নিয়ে নিন।