টাঙ্গাইলের এসপিকে নিয়ে কনষ্টেবলের হৃদয়স্পর্শী স্ট্যাটাস

প্রকাশিত : ৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৯
নিজস্ব প্রতিবেদক
টাঙ্গাইল
পুলিশ সুপার সঞ্জিত কুমার রায় বিপিএম

টাঙ্গাইল ৫ সেপ্টেম্বর: টাঙ্গাইলের পুলিশ কনষ্টেবল মো. আব্দুল বাতেন টাঙ্গাইলের পুলিশ সুপার সঞ্জিত কুমার রায় বিপিএমকে নিয়ে এক আবেগঘন ফেইসবুক ষ্ট্যাটাস দিয়েছেন। মানবিক এই সৎ, কর্মনিষ্ট, প্রচার বিমুখ ও মানবিক এই পুলিশ সুপারের মাত্র ১০০ টাকায় ১৩৬ জনকে পুলিশে চাকরী দেন। ঈদে হত দরিদ্রদদের মাঝে ঈদ উপহার প্রদান করেন।  গত মে মাসে ঢাকা রেঞ্জের শ্রেষ্ট পুলিশ সুপার নির্বাচিত হয় টাঙ্গাইলের পুলিশ সুপার সঞ্জিত কুমার রায় বিপিএম। তাকে নিয়ে এই আবেগঘন ফেইসবুক ষ্ট্যাটাস প্রদান করেন পুলিশ কনষ্টেবল মো. আব্দুল বাতেন ।
সেই ফেইসবুক ষ্ট্যাটাসটি পাঠকদের জন্য হুবহু তুলে ধরা হলো:

নদী কভু পান নাহি করে নিজ জ্বল
তরুগন নাহি খায় নিজ নিজ ফল”
গাভী কভু নাহি করে নিজ দুগ্ধপান,
কাষ্ঠ দগ্ধ হয়ে করে পরে অন্ন দান”

মহৎ ও সাধু ব্যক্তিরা সবসময় নিজেকে অন্যের কল্যানে নিয়োজিত রাখেন,এতে তারা পরিতৃপ্ত হন এবং আনন্দ পান। নদী যেমন তার জলধারা দিয়ে বৃক্ষলতা এবং প্রানিকুলের জীবনশক্তি সঞ্চার করে তাদের বাঁচিয়ে রাখে। বৃক্ষরাজি আপন ফল এবং ছায়া প্রদান করে যেমন তাপিত জীব জগতের শান্তি অপনোদন এবং ক্ষুন্নিবৃত্তি করে অপরের মঙ্গল সাধন করে। গাভী তার দুগ্ধ দিয়ে পরের জীবনশক্তি প্রদান করে। কাষ্ঠখন্ড নিজে পুড়ে অপরের রন্ধনকার্যে সহায়তা করে এবং মানুষের শীত নিবারন করে। বাশি যেমন তার আপন সুর-লহরীর অপূর্ব মুর্ছনায় অপরের চিত্তকে বিমুগ্ধ ও বিমোহিত করে। এরা সকলেই পরহিতব্রতে নিজেকে উৎসর্গ করে। স্বার্থপরতার কথা কখনোই এদের মনে স্থান পায়না। তদ্রুপ এ জগতে বহু মানুষ আছে যারা পরের মঙ্গলের জন্য নিজেকে অকপটে বিলিয়ে দেন। তাদের একমাত্র চিন্তা কি করলে মানুষের দুঃখ তিরোহিত হয়ে তাদের মুখে হাসি ফুটবে,কিসে সমাজ সংসারের কল্যান হবে। তারা নিজেদের সুখ শান্তির কথা কখনো চিন্তা করেন না এবং নিজের সর্বস্ব বিসর্জন দিয়ে পরের মঙ্গলের জন্য জীবনপাত করেন। পরের মঙ্গল করেই তারা নিজেরা সুখানুভব করে থাকেন। তাই তারা এ নশ্বর জগতে চিরস্মরনীয়,বরনীয় এবং মানুষের মনের মন্দিরে চিরপুজনীয় দেবদূত হিসেবে প্রতিষ্ঠা পান। এ পার্থিব জগতের সকল সুখ-সুবিধা ও ভোগ-বিলাস’কে তুচ্ছজ্ঞান করে পরহিত ব্রতে আত্নোতসর্গ জীবন ধন্য এবং বরনীয় করে রাখাকেই মহত্ত্বের কাজ বলে মনে করেন।

কনষ্টেবল মো. আব্দুল বাতেন

মানবজাতীর মঙ্গল সাধনের জন্য যুগে যুগে অনেক মহান মানুষের আগমন ঘটেছে এ ধরাধামে। যাদের আগমনেই মুক্তি মিলেছে মানবতার,মানুষের। মানুষের কল্যান সাধন তাদের একটা মহান নেশা। অলিখিত অদেখা এক সুখ পান তারা মানুষের জন্য কাজ করে,মানুষের উপকারে নিজেকে উৎসর্গ করে। মানুষের দোয়া এবং ভালোবাসার কাঙাল তারা, এসবই তাদের চলার পথের পাথেয়।

উপরে উল্লেখিত সবগুলি গুনাবলির বিদ্যমান মানুষ এ জগতে পাওয়া খুব দুস্কর। এদের জন্ম প্রতিদিন হয়না,এরা জন্মায় কয়েক যুগ পরপর একজন। মানুষ, দেশ,মানবতাকে প্রতিষ্ঠিত করার পবিত্র দায়িত্ব সৃষ্টিকর্তা কতৃক তাদের হাতে
ন্যাস্ত থাকে। আর ন্যায় বিচারের মানদন্ড তারা। জরাজীর্ন সমাজের মানুষের দুঃখ-কষ্ট,দুর্দশা তাদের ঠিক থাকতে দেয়না,তাদের মঙ্গল কিসে,ভালো কিসে সে রাস্তা প্রশস্ত করার তীব্র ইচ্ছাশক্তি তাদের ভেতর।

#জনাব_সঞ্জিত_কুমার_রায়_বিপিএম

পুলিশ সুপার টাংগাইল।টাংগাইলের প্রত্যন্ত অঞ্চলের আবাল,বৃদ্ধ-বনিতা,ছাত্র-শিক্ষক, কৃষক সহ সকল শ্রেনীপেশার মানুষ তাকে এক নামেই চিনে থাকবেন। তিনি তার আপন ইচ্ছাশক্তিতে টাংগাইলের সাধারন মানুষের জন্য নিরলস কাজ করে যাচ্ছেন। একটা মোমবাতির মত নিজে জ্বলে আমাদের টাংগাইলের মানুষের মাঝে আলো ছড়াচ্ছেন তিনি। টাংগাইলের সাধারন মানুষের সহযোগীতায় তাদের হাতে হাত রেখে টাংগাইলের আইনশৃংখলা উন্নয়নে অনন্য দৃষ্টান্তমুলক স্বাক্ষর রাখতে সক্ষম হয়েছেন। তারই ধারাবাহিকতায় তিনি গত পুলিশ সপ্তাহে বিপিএম পদকে ভূষিত হন এবং প্রায় মাস তিনেক আগে ঢাকা রেঞ্জের #শ্রেষ্ঠ_পুলিশ_সুপার হিসেবে মনোনিত হন। সুবিচার,ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠায় তার জুড়ি মেলা ভার। তারই ফলশ্রুতিতে তিনি টাংগাইলের মানুষের ভালোবাসা পেয়ে সবার মন জয় করতে পেরেছেন।

#মানবিক_এসপি_হিসেবে_তার_গুনাবলির_সংক্ষেপ

মনমানসিকতার দিক দিয়ে তিনি একজন অনন্য উচ্চতার মানুষ। গত রমজানের ঈদে তাকে পুলিশ লাইন্সে ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময় কালে কয়েকজন কনস্টেবলের সাথে কোলাকুলি করতে দেখা গেছে। এবং সেখানে ছবি তোলা নিষেধ ছিলো তার মানে দাড়ালো এই তার ওই কোলাকুলি পাবলিসিটির জন্য ছিলোনা। রমজানের ঈদে স্যারের ব্যক্তিগত অর্থে প্রায় ১০০০ টি পাঞ্জাবী ফোর্সের ভেতর বিতরন করতে দেখা গেছে যার কোন খবরই মিডিয়া জানেন না,জানতে দেয়াও হয়নি কারন যদি এগুলি লোক দেখানো মনে হয়। ঈদের দুইদিন আগে তাকে সরল কন্ঠে বলতে শোনা গেছে,
“ঈদে আয়োজনের খাবার দাবারে এতটুকু ঘাটতি দেখতে চাইনা আমি যেটা দেখে কেউ বলতে পারে স্যার হিন্দু তাই আমাদের কেয়ারিং কম”
এমন কথা কয়জনই বলে। এতিম অসহায় শিশুদের জন্য তার মনটা খুবই কমল, বড় কোন খাবার দাবারের আয়োজন থাকলে প্রথমে তিনি এতিমদের ডাকেন, তাদের সাথে খাবার খান। দুইদিন আগে স্যারের ছেলের জন্মদিন গেল। সেখানেও তিনি এতিমদের সাথে ছেলের জন্মদিনের আনন্দ ভাগাভাগি করে নেন। সহজ সরল ভাবে বলতে শোনা গেছে
“তোমরা আমার ছেলের জন্য দোয়া করবা,
এতিমদের কাছে দোয়া চায় এসপি তার ছেলের জন্য,কতটা নিরহংকার হলে এমন কাজ করতে পারেন তিনি।

এমন হাজারো ঘটনা আছে তার যা মানুষের বিশ্বাসই হবেনা, কারন হলো এমন মানুষ হাজারে একটা।

স্বামী বিবেকানন্দ একটা কথা বলেছিলেন এরকম,
“কোন মহৎ ব্যক্তিকে চেনা যায় তার ছোটদের সাথে ব্যবহার দেখে”

পরিশেষে বলবো স্যার অত্যন্ত ভালো মানুষ টাংগাইলের জনগনের জন্য এবং টাংগাইল জেলা পুলিশের প্রত্যেকটা সদস্যদের জন্য।নিন্মপদস্তদের জন্য এমন আন্তরিক একজন অভিভাবক হয়না। আজপ্রায় ১৪ মাস হলো এমন মহান মানুষের আন্ডারে চাকরি করার সৌভাগ্য আমার হয়েছে। এই চৌদ্দমাসে পেয়েছি অনেক কিন্তু দিতে পারিনি কিছুই। সব হিসেব চুকিয়ে বদলিসুত্রে কাল চলে যাচ্ছি কিশোরগঞ্জ জেলায়। ইচ্ছে হলেও আর দেখতে পারবোনা হয়তো এমন মহান মানুষের মুখটা।

ভালো থাকবেন স্যার, টাংগাইল জেলার মানুষের এবং ফোর্সের আপনাকে আরও কয়েক যুগ দরকার।

আমার স্ট্যাটাসটা আমার ব্যক্তিগত কোন স্বার্থসিদ্ধির জন্য না। ভালো কে ভালো বলার সাহস এবং মানসিকতা আমাদের থাকা উচিৎ।
আমি মনে করি সেটা আমার আছে। সবাই ভালো থাকবেন আমার প্রিয় টাংগাইল!

চলার পথে অনেক বন্ধু-বান্ধব, সিনিয়র ভাই, স্যারদের সাথে অনেক বেয়াদবি করেছি সবাই ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন। আমি ঘৃনা না ক্ষমা চাই। আমার জন্য জন্য কারো মনে কষ্ট, চোখে পানি এলে সে পানির হিসেব আমি সৃষ্টিকর্তার কাছে দিতে পারবোনা,তাই মন থেকে মাফ করে দিবেন। আর আমি সবার যে পরিমান ভালোবাসা পেয়েছি সে ভালোবাসার যোগ্য আমি কোনদিনই ছিলাম না। আর সে ভালোবাসার প্রতিদান দেবার ক্ষমতা আমার নেই, কারন আমি রিক্ত,সিক্ত, সহায় সম্বলহীন। এ ভালোবাসার প্রতিদান দেয়া যাবেনা।

অভিশাপ নয় দোয়া চাই সবার, সবার রোগ,শোক দুঃখমুক্ত জীবন কামনা করছি। খোদা হাফেজ।
#বাতেন

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ