টাঙ্গাইলের খান সাম্রাজ্যের চার ভাইসহ ১০ জনের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি

প্রকাশিত : ৬ এপ্রিল, ২০১৬

বুলবুল মল্লিকঃ

TAngail-khan poribar-charjshit-06.04.2016
টাঙ্গাইলের চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক মো. আমিনুল ইসলাম জেলা আওয়ামী লীগের জনপ্রিয় নেতা বীরমুক্তিযোদ্ধা ফারুক আহমদ হত্যা মামলার চার্জশীট গ্রহণ করেছেন। বুধবার(৬ এপ্রিল) দুপুরে চার্জশীট গ্রহন করে এ মামলায় আওয়ামী লীগের সাংসদ আমানুর রহমান খান রানা ও তার অপর তিন ভাই সহ ১০ জনের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়েছে।
আদালত সূত্রে জানা যায়, তদন্ত শেষে গত ৩ ফেব্রুয়ারি জেলা গোয়েন্দা পুলিশ(ডিবি) এ মামলায় আদালতে চার্জশীট দাখিল করে। চার্জশীটে সাংসদ রানা ও তাঁর তিন ভাইসহ মোট ১৪ জনকে অভিযুক্ত করা হয়। চার্জশীটে ৩৩ জনকে সাী করা হয়েছে।
চার্জশীটভূক্ত আসামিদের মধ্যে রয়েছেন, টাঙ্গাইলের ‘খান সাম্রাজ্যের’ চার ভাই টাঙ্গাইল-৩(ঘাটাইল) আসনের আওয়ামী লীগের সাংসদ আমানুর রহমান খান রানা, তাঁর তিন ভাই টাঙ্গাইল পৌরসভার সাবেক মেয়র সহিদুর রহমান খান (মুক্তি), ব্যবসায়ী নেতা জাহিদুর রহমান খান (কাকন) ও ছাত্রলীগের সাবেক কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি সানিয়াত খান (বাপ্পা)। অন্য আসামিরা হচ্ছেন, এমপি রানার ঘনিষ্ঠ সহযোগী কবির হোসেন, আনিছুল ইসলাম (রাজা), মোহাম্মদ আলী, সমীর, ফরিদ আহমেদ, এমপি রানার দারোয়ান বাবু, যুবলীগের তৎকালীন নেতা আলমগীর হোসেন (চাঁন), নাসির উদ্দিন (নুরু), ছানোয়ার হোসেন ও সাবেক পৌর কমিশনার মাছুদুর রহমান।
আসামিদের মধ্যে রাজা, মোহাম্মদ আলী, সমীর ও ফরিদ কারাগারে রয়েছেন। সাংসদ আমানুর রহমান খান রানা, তাঁর তিন ভাইসহ ১০ আসামি পলাতক। চার্জশীটে বলা হয়েছে, আসামিরা খুবই কৌশলী হওয়ায় তাঁদের দীর্ঘদিনেও গ্রেপ্তার করা সম্ভব হয়নি।

Tangail-leta Farok Ahmod-06.04.2016
প্রকাশ, ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ মতায় আসার পর ‘খান পরিবার’ টাঙ্গাইল শহরে ব্যাপক প্রভাবশালী হয়ে ওঠে। তাদের দাপটের মুখে এলাকায় ও দলে কেউই মুখ খুলতে সাহস পেতেন না। টাঙ্গাইল-৩ (ঘাটাইল) আসনের সংসদ সদস্য আমানুর রহমান খান রানা টাঙ্গাইলবাসীর কাছে ছিল এক মূর্তিমান আতঙ্ক। সন্ত্রাসী ক্যাডার বাহিনী লেলিয়ে দিয়ে মারধর, ভূমি দখল, টেন্ডারবাজি, প্রতিপরে বাড়িঘর আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেওয়া, হামলা, লুটপাট, ভাংচুর, হুমকি, বালু মহালের ইজারা সহ সর্বক্ষেত্রে ‘খান পরিবার’-এর ছিল একক অধিপত্য। তারা নিজ¯^ বিচারালয়, টর্চার সেল গঠন করে নির্যাতন ও বিচারের নামে অর্থ আদায়ের মহোৎসব শুরু করেছিল। জেলার সব ধরণের সংগঠনে তাদের লোকদের গুরুত্বপূর্ণ পদে বসিয়ে জেলায় ‘খান সাম্রাজ্য’ প্রতিষ্ঠা করেছিল। তাদের কথায় ‘বাঘে মোষে একঘাটে জল খেত’, কেউ প্রতিবাদ বা মুখ খুললে তাকে শাস্তি পেতে হতো। ফলে চার ভাইয়ের বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময়ে অর্ধশত মামলা হলেও বাদী ও সাী আদালতে উপস্থিত হননি। এ কারণে অনেক মামলা নিষ্পত্তি হয়ে গেছে। আবার কিছু মামলা রাজনৈতিক বিবেচনায় সরকার প্রত্যাহারের সুপারিশ করেছে। এ পরিস্থিতিতে ২০১২ সালের শেষ দিকে খান পরিবারের ইচ্ছার বিরুদ্ধে মুক্তিযোদ্ধা ফারুক আহমদ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক পদে প্রার্থী হতে তৎপরতা শুরু করেন। একই পদে সাংসদ আমানুর রহমান খান রানার ভাই টাঙ্গাইল পৌরসভার তৎকালীন মেয়র সহিদুর রহমান খানও(মুক্তি) ওই পদে প্রার্থী হতে সক্রিয় ছিলেন। সাধারণ সম্পাদক পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা থেকে ফারুক আহমদকে বিরত রাখতে না পেরে তাঁকে সাংসদ ও তাঁর ভাইয়েরা পরিকল্পিতভাবে হত্যা করেন বলে মামলার চার্জশীটে বলা হয়েছে।
উল্লেখ্য, ২০১৩ সালের ১৮ জানুয়ারি রাতে জেলা আওয়ামী লীগের জনপ্রিয় নেতা বীর মুক্তিযোদ্ধা ফারুক আহমদের গুলিবিদ্ধ লাশ তাঁর কলেজপাড়ার বাসার সামনে পাওয়া যায়। তিন দিন পর তাঁর স্ত্রী নাহার আহমদ টাঙ্গাইল মডেল থানায় কোনো আসামির নাম উল্লেখ না করে মামলা দায়ের করেন। প্রথমে থানা পুলিশ ও পরে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) এ চাঞ্চল্যকর হত্যা মামলার তদন্ত শুরু করে। মামলার তদন্তে এই হত্যায় সাংসদ আমানুর রহমান খান রানা ও তাঁর ভাইদের জড়িত থাকার তথ্য বের হয়ে আসে। নিহত ফারুক ছাত্রজীবনে টাঙ্গাইল জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ও সভাপতি ছিলেন। একাত্তরে মুক্তাঞ্চল থেকে প্রকাশিত রণাঙ্গন পত্রিকার সহ-সম্পাদক ছিলেন ফারুক আহমদ।

সাপ্তাহিক গণবিপ্লব
এইমাত্র পাওয়া