টাঙ্গাইলের গোবিন্দাসী গরুর হাটে ক্রেতা কম গরু বেশি

প্রকাশিত : ২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৫
গণবিপ্লব অনলাইন
ডেস্ক রিপোর্ট

Tangail-Gobindasi--2.বুলবুল মল্লিকঃ দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম গরুর হাট টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর উপজেলার গোবিন্দাসীতে ক্রেতার চেয়ে গরুর আমদানি বেশি। গরু বেশি ক্রেতা কম হলেও বৃষ্টির কারণে ব্যবসায়ীরা বিপাকে পড়েছেন। বিভিন্ন জেলা থেকে পর্যাপ্ত গরু সরবরাহ থাকলেও অন্য বছরের তুলনায় ক্রেতার দেখা মিলছে না। পশুর হাটে একদিকে ক্রেতা কম, অন্যদিকে বৃষ্টির কারণে গরুর রোগবালাইয়ের শিকার হওয়ার আশঙ্কা করছেন ব্যবসায়ীরা। এসব কারণে ব্যবসায়ীদের কপালে চিন্তার ভাজ পড়েছে।
বঙ্গবন্ধুসেতু পূর্ব গোল চত্বর থেকে সাত কিলোমিটার উত্তরে এবং ভূঞাপুর উপজেলা সদর থেকে চার কিলোমিটার পশ্চিমে যমুনা নদীর তীরে সাত একর জমির ওপর গড়ে উঠেছে দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তর এ পশুর হাট। শুধু দেশের গরু ব্যবসায়ীই নয়, ভারত থেকেও অনেক ব্যবসায়ী আসছে এ হাটে গরু বিক্রি করতে। সারা বছর সপ্তাহে দুই দিন রোববার ও বৃহস্পতিবার গোবিন্দাসী গরুর হাট বসলেও আসন্ত ঈদুল আযহা উপলক্ষে প্রতিদিনই হাট বসছে। সারা বছর প্রতি হাটে শতাধিক ট্রাক গরু আমদানি হলেও কোরবানির ঈদ সামনে রেখে প্রতিদিনই ট্রাকে ট্রাকে গরু আসছে এ হাটে।

Tangail-Gobindasi--1.সরেজমিনে গোবিন্দাসী গরুর হাটে গিয়ে দেখা যায়, বৃষ্টির কারণে হাটে পানি জমে যাওয়ায় কাঁদায় ভরে গেছে হাটের নি¤œাংশ। বৃষ্টিতে গরু এবং খাবার ভিজে যাওয়ায় করুণ অবস্থা সৃষ্টি হয়েছে। বৃষ্টি বেপারীদেরও বেকায়দায় ফেলে দিয়েছে। ক্রেতা তো দূরের কথা বেপারীদের চলাফেরাই কষ্টকর হয়ে দাঁড়িয়েছে। বৃষ্টির কারণে হাটে ক্রেতার সংখ্যা একেবারে কম থাকায় বিক্রেতারা গরুর দাম কম দাবি করলেও গরু বিক্রি হচ্ছে যৎসামান্য সংখ্যক। এ অবস্থা চলতে থাকলে লোকসান গুণতে হবে বলে জানান বেপারীরা।

Tangail-Gobindasi--3ভূঞাপুর উপজেলার রাউৎবাড়ি গ্রাম থেকে গরু বিক্রি করতে আসা ফুলচান শেখ বলেন, নিজের খামারের ৫টি গরু বিক্রি করতে হাটে এসেছেন। এসে দেখেন হাটে ক্রেতার চেয়ে গরু অনেক বেশি। ঈদ আসন্ন থাকায় বিক্রির আশায় বেপারীরা গরু নিয়ে হাটে থেকে যাচ্ছেন। সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত তিনি একটি গরুও বিক্রি করতে পারেননি। তিনি জানান, অল্প কিছু ক্রেতা থাকলেও যা দাম বলে তাতে খরচের টাকাও উঠবেনা।
দিনাজপুর থেকে আসা গরু ব্যবসায়ী ইকবাল ভূঁইয়া বলেন, এ হাট দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তর গরুর হাট। কিন্তু বৃষ্টি থাকার কারণে হাটে ক্রেতার সংখ্যা একেবারে কম। তিনি ১৫টি গরু এনেছেন এবং বিকাল পর্যন্ত ২টি গরু বিক্রি করেছেন। ২টি গরু বিক্রি করে তার লাভ হয়নি আবার ক্ষতিও হয়নি বলে জানান তিনি। তিনি বলেন, হাটে কম সংখ্যক মানুষ আসলেও ক্রেতার চেয়ে বেশি ভাগ মানুষই গরু দেখার জন্য আসছে। এ অবস্থায় চলতে থাকলে লোকসান গুণতে হবে বলেও জানান তিনি।

Tangail-Gobindasi--4ঘাটাইল উপজেলার বকশিয়া থেকে আসা গরু বিক্রেতা আমিনুর ইসলাম বলেন, হাটে ক্রেতা অনেক কম তবে গরুর পর্যাপ্ত আমদানি থাকায় পাইকাররা বাড়িতে যে দাম বলেছে তার চেয়ে হাটে কয়েক হাজার টাকা কম দাম বলছে। তাই বাধ্য হয়ে হাট থেকে গরু ফেরত নিয়ে যেতে হবে বলে দাবি করেন তিনি।
জামালপুর থেকে আসা হারুন, সুমন, কালাম সহ একাধিক ব্যবসায়ীরা জানান, বৃষ্টির কারণে যেভাবে গরুর শরীর ভিজছে তাতে নানা রোগবালাইয়ের আশঙ্কা সৃষ্টি হচ্ছে। এভাবে বৃষ্টি থাকলে গরু বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হবে। এমনকি মারাও যেতে পারে বলে জানান পাইকাররা।
এ বিষয়ে গোবিন্দাসী হাটের কোষাধ্যক্ষ খন্দকার মোয়াজ্জিন বলেন, হাটে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আসা প্রায় ৩০ হাজার গরু রয়েছে। তবে বৃষ্টির কারণে ক্রেতা আসতে না পারায় গরুর আমদানি একটু বেড়ে গেছে। সে কারণে হাটে ক্রেতার চেয়ে গরু বেশি। তবে ঈদের আগে অবস্থার পরিবর্তন ঘটবে।

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ