টাঙ্গাইলের চর অঞ্চলের নারী মুক্তিযোদ্ধা হেলেন

প্রকাশিত : ১১ ডিসেম্বর, ২০১৯

মাত্র তিন মাসের শিশু বাচ্চাকে রেখেই স্বাধীনতা যুদ্ধের প্রশিক্ষণ নেন টাঙ্গাইলের মির্জা হেলেন করিম৷ নানা কৌশলে পাকিস্তানি সেনা এবং রাজাকারদের উপর হামলা চালাতে মুক্তি সেনাদের সাহায্য করেন এই হেলেন।

নারী মুক্তিযোদ্ধা মির্জা হেলেন করিম

টাঙ্গাইল ১১ ডিসেম্বর : ১৯৫৮ সালে টাঙ্গাইলে সম্ভ্রান্ত পরিবারে জন্ম মির্জা হেলেন করিমের৷ পিতা মির্জা শুকুর আহমেদ এবং মা আনোয়ারা খাতুন৷ টাঙ্গাইলে জন্ম হলেও পরিবারের কর্তাদের চাকুরির সুবাদে ঢাকাতেই বড় হয় হেলেন৷ ১৯৭১ সালে স্বাধীনতা যুদ্ধ শুরুর সময় বদরুন্নেসা কলেজের ছাত্রী ছিলেন তিনি৷ কলেজ জীবন থেকেই ছাত্র ইউনিয়নের সাথে সক্রিয়ভাবে কাজ করতেন৷ তবে বিয়ে হয়ে যাওয়ার কারণে মহিলা পরিষদের সাথ কাজ শুরু করেন৷ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণ তাঁকে মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়তে সবচেয়ে বেশি করে অনুপ্রেরণা জোগায়৷ এরপর টাঙ্গাইলে যুদ্ধের জন্য স্বেচ্ছাসেবী দল তৈরির ডাক আসলে ঢাকা থেকে টাঙ্গাইল চলে আসেন তিনি৷

তিন মাসের পুত্র সন্তানকে বাড়িতে রেখে মুক্তিযুদ্ধের জন্য অস্ত্র চালনা প্রশিক্ষণ নেন হেলেন৷ টাঙ্গাইলের গয়লাহোসেন চরে এপ্রিলের শেষের দিকে প্রশিক্ষণ শুরু করেন তিনি৷ সেখানে ছেলেদের পাশাপাশি পাঁচ জন মেয়ে প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন৷ যুদ্ধের নয় মাস টাঙ্গাইল ও সিরাজগঞ্জ অঞ্চলে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেন হেলেন৷ প্রথমদিকে পুরুষ মুক্তিযোদ্ধাদের সাথে বন্দুক নিয়ে চর অঞ্চল এবং নদীর তীরবর্তী এলাকায় সতর্ক পাহারা দিতেন তাঁরা৷ পাক সেনা এবং রাজাকারদের গতিবিধি লক্ষ্য করতেন৷ এর মধ্যে রাজাকারেরা জানতে পারে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত এসব নারী যোদ্ধার তথ্য৷ ফলে সিরাজগঞ্জের বেলকুচি থানায় অবস্থিত পাকিস্তানি সেনাদের ঘাঁটি থেকে আট-দশটা গানবোট নিয়ে এসে একদিন ঐ চর এলাকা ঘিরে ফেলে৷ সেদিন আত্মরক্ষার জন্য পুরুষ যোদ্ধাদের সাথে ফায়ার করতে করতে নারী যোদ্ধারাও এলাকা থেকে সরে পড়েন৷ কিন্তু মনোয়ারা নামের এক নারী যোদ্ধা পাকিস্তানি সেনাদের হাতে ধরা পড়ে এবং ধর্ষিত হন৷ এই ঘটনার পর কোম্পানি কমান্ডার ইদ্রিস আলী মেয়েদের নিরাপত্তার জন্য তাদের কাছ থেকে বন্দুকগুলো নিয়ে নেন৷ শুধুমাত্র হেলেনের উপর দায়িত্ব পড়ে সিরাজগঞ্জ এবং টাঙ্গাইলের চর অঞ্চলে গ্রেনেড পারাপার করার৷

স্বাধীনতা যুদ্ধের জন্য প্রশিক্ষণরত সাহসী নারী হেলেন ও অন্যান্যরা

এসময় ঐ অঞ্চলে পাকিস্তানি সেনা এবং রাজাকারদের অবস্থান ও পরিকল্পনা জানার জন্য গোয়েন্দাগিরির কাজ করেছেন৷ এছাড়া পাতিলে গ্রেনেড ভর্তি করে তার উপর ডিম সাজিয়ে নিয়ে এক অঞ্চল থেকে অন্য অঞ্চলে পৌঁছে দিয়েছেন৷ দরিদ্র, গ্রামীণ মেয়ের ছদ্মবেশে নৌকা করে পাক সেনা এবং রাজাকারদের সাথে এক নৌকায় গ্রেনেড নিয়ে নদী পাড়ি দিয়েছেন হেলেন৷ শত্রুরা তাঁর পরিচয় এবং গন্তব্যস্থল জানতে চাইলে তাদের নানা কৌশলে উত্তর দিয়ে সফলভাবে লক্ষ্যে পৌঁছে গেছেন এই সাহসী নারী৷

২০১৭ সালের ২ মে হেলেন করিম ইন্তেকাল করেন।

মৃত্যুর আগে হেলেন করিম এক সাক্ষাৎকারে বলেন, নৌকায় রাজাকারেরা আমাকে জিজ্ঞেস করতো ডিমের হালি কতো৷ আমি বলতাম৷ তখন জিজ্ঞেস করতো, ওপারে তোমার কে থাকে? আমি বলতাম, আমার স্বামী থাকে৷ তখন বলতো, ও সেজন্যই যাচ্ছো৷ আমি বলতাম, হ্যাঁ৷ তখন তারা আর কিছু বলতো না৷ একদিন দুই জন পাক সেনা আর তিন জন রাজাকার নৌকায় উঠেছে৷ আমিও নৌকায় আছি৷ ওরা আমাকে জিজ্ঞেস করলো, তুমি কোথায় নামবে? আমি মুক্তিসেনা ভাইদের আগেই বলে দেওয়া নির্দিষ্ট জায়গার কথা বললাম যে, সেখানে না নামলে তো আমি রাস্তা চিনতে পারবো না৷ ফলে তারা আমাকে সেখানে নামানোর জন্য তীরে নৌকা ভিড়ালো৷ আমি নামার সাথে সাথে সেখানে লুকিয়ে থাকা মুক্তিযোদ্ধারা তাদের উপর ব্রাশফায়ার করেন৷ ফলে দুই জন পাকিস্তানি সেনা এবং একজন রাজাকার সেখানেই মারা যায়৷ অন্য দু’জন রাজাকারকে ধরে আনা হয়৷ তারা পরে মুক্তিযোদ্ধাদের সাথে কাজ শুরু করে৷

দিনের পর দিন এভাবে এক এলাকা থেকে আরেক এলাকায় ঘুরে ঘুরে শত্রুপক্ষের খবর এনে দিতেন হেলেন৷ তাঁর তথ্যের উপর ভিত্তি করে মুক্তিযোদ্ধারা সফল অভিযান চালাতেন৷ যুদ্ধের শেষের দিকে হেলেন করিমের সংকেত অনুসরণ করে বেলকুচি থানার শক্ত ঘাঁটিতে হামলা চালান মুক্তি সেনারা৷ সেদিন ৫-৭ জন পাক সেনা নিহত হয়৷ আনোয়ার নামের একজন সেনা আত্মসমর্পণ করে৷ এরপর থেকে ঐ অঞ্চল মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ন্ত্রণে চলে আসে৷

মহিলা আওয়ামী লীগ ঢাকা উত্তরের সাবেক সহ-সভাপতি হেলেন করিম উদীচী, খেলাঘর আসর ছাড়াও বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠনের সদস্য ছিলেন। প্রয়াত সাংবাদিক এম এ করিমের স্ত্রী হেলেন করিম বাংলা একাডেমির আজীবন সদস্য ছিলেন।

সাপ্তাহিক গণবিপ্লব
এইমাত্র পাওয়া