টাঙ্গাইলের চাষীরা তামাকের বিষে বিষাক্ত হচ্ছে (ভিডিও সহ)

প্রকাশিত : ১৩ এপ্রিল, ২০১৬
গণবিপ্লব অনলাইন
ডেস্ক রিপোর্ট

ভ্রাম্যমান প্রতিনিধিঃ

[vsw id=”_5BeVdjNTyY” source=”youtube” width=”425″ height=”344″ autoplay=”no”]

রান্না ঘর থেকে শোয়ার ঘর বাদ যায়নি গোয়াল ঘরও, সব জায়গায় তামাকের ছড়াছড়ি। কেউ কেউ আবার বিছানার একপাশে তামাক রেখে ঘুমাচ্ছে। সব মিলিয়ে দেখলে মনে হবে এ যেন তামাকের বসতবাড়ি। এ রকম অবস্থা এখন টাঙ্গালের দেলদুয়ার উপজেলার লাউহাটী ইউনিয়নের চরাঞ্চলের কৃষকদের বাড়ি বাড়ি। চাষীরা তামাকের বিষে বিষাক্ত হচ্ছে, বিষাক্ত হচ্ছে নারী-শিশু বাড়ির সবাই। তামাক কোম্পানির হাতে চাষ করা তামাক তুলে দেয়ার শেষ প্রস্তুতি চলছে। তামাক সংরক্ষণে ব্যস্ত কৃষকরা এভাবে দিনাতিপাত করছে দু’টো পয়সা পাওয়ার আশায়।

জানাগেছে, টাঙ্গাইলের নাগরপুর, দেলদুয়ার, টাঙ্গাইল সদর ও কালিহাতী উপজেলায় ধলেশ্বরী নদী ঘেষে দিগন্তব্যাপি এলাকায় শুধু তামাক আর বিষাক্ত তামাক চাষ করা হয়। কৃষি কর্মকর্তাদের নজরদারী না থাকা ও সঠিক পরামর্শের অভাব এবং অন্য ফসলের চেয়ে বেশি লাভজনক হওয়ায় প্রতি বছরই এসব এলাকায় তামাক চাষ বাড়ছে।
সরেজমিনে জানাগেছে, দেলদুয়ার উপজেলার লাউহাটী ইউনিয়ন, নাগরপুর উপজেলার মোকনা ইউনিয়ন, সদর উপজেলার মগড়া ইউনিয়ন এবং কালিহাতী উপজেলার চরাঞ্চল বিশেষ করে ধলেশ্বরী নদীর পাড় ঘেষে বিস্তীর্ণ এলাকায় বিষাক্ত তামাক চাষ হয়েছে। তামাক চাষে একদিকে যেমন পরিবেশের ক্ষতি হচ্ছে তেমনি অজান্তেই মারাতক ক্ষতির শিকার হচ্ছে কৃষকরা। তামাক চাষে প্রচুর পরিমাণ পানির দরকার হওয়ায় নদী তীরবর্তী এলাকায় তামাক চাষ হচ্ছে সবচেয়ে বেশি। ধলেশ্বরী নদীর পাড় ঘেষে তামাক চাষ করলে নদী থেকে পানি সেচ দেয়া যায়, এজন্য কৃষকরা নদী পাড়ের জমিতে তামাক চাষে করে থাকেন।
টাঙ্গাইল কৃষি সম্প্রসারন বিভাগ সূত্রে জানা যায়, তামাক চাষের সঠিক পরিসংখ্যান তাদের কাছে নেই। তবে সংশ্লিষ্ট অসমর্থিত সূত্র জানায়, ২০১০ সালে জেলায় ৯০ হেক্টর, ২০১৩ সালে ১৮০ হেক্টর এবং এ বছর প্রায় ২০০ হেক্টর জমিতে তামাক চাষ করা হয়েছে। সূত্র জানায়, তামাক চাষে যে পরিমাণ রাসায়নিক সার, বিষ ব্যবহার করা হচ্ছে তাতে ওইসব জমি অন্য ফসল চাষের জন্য অনুপযোগী হয়ে পড়ছে এবং ওই কীটনাশক বৃষ্টির পানির সাথে মিশে নদীতে যাচ্ছে। ফলে, নদীর পানি দুষিত হয়ে জলজ প্রাণি মারা যাচ্ছে। তামাক চাষে কৃষকরাও নানা ধরণের স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে ভুুগছে।
সরেজমিনে দেখা গেছে, প্রতিটি পরিবারই ঝুঁকিপূর্ণভাবে তামাক সংরক্ষণ করছেন। নাক-মুখে মাস্ক, হাতে গ্লাভস-এর কোন বালাই নেই। কয়েক দিন আগে বৃষ্টিতে তামাক পঁচে গিয়েছিল, সেগুলো উন্মুক্তস্থানে শুকানোর ফলে চারদিকে বিষক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে। চারদিকে পঁচা তামাকের বিশ্রি গন্ধে দম আটকে আসার অবস্থা। দূর-দূরান্তের পথচারিরা মুখোশ ছাড়া পারতপক্ষে ওই এলাকার রাস্তা দিয়ে যাতায়াত করেনা। অথচ প্রাপ্ত বয়স্ক ব্যতিত তামাক নাড়াচাড়া করার বিধান না থাকলেও শিশু ও গর্ভবতী মায়েরাও এ কাজে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন।
কৃষকরা জানায়, বিভিন্ন বিড়ি, জর্দ্দা ও তামাকজাত কোম্পানিগুলোর উৎসাহে এবং মিথ্যা প্রলোভনে তারা তামাক চাষে আগ্রহী হয়ে উঠছে চাষীরা। তারা আরো জানায়, এ বিষয়ে সংবাদ কর্মীদের সাথে কথা বলা নিষেধ করে দিয়েছে কোম্পানিগুলো।
কৃষকদের সাথে কথা বলে জানা যায়, কৃষি কর্মকর্তাদের কোন ধরণের পরামর্শ না থাকা ও সঠিক পরামর্শের অভাব এবং অন্য ফসলের চেয়ে স্বল্প পুঁজিতে বেশি লাভ হওয়ায় তারা বিপদজনক জেনেও তারা তামাকের চাষ করছেন। এছাড়া তামাকজাত কোম্পানিগুলো তাদেরকে চাষের জন্য অগ্রীম টাকা দেয় ও ন্যায্যমূল্যে বিক্রির নিশ্চয়তা দেয়। তারা আরও জানায়, এসব জমিতে মিষ্টিআলু, কাঊন, চিনা ইত্যাদি ফসল চাষ করলেও ফলন তেমন ভাল হয়না, অথচ তামাক চাষ করলে দ্বিগুন লাভবান হওয়া যায়। যদিও তামাকের জমিতে অন্য কোন ফসল হয় না, তাতে কি? তামাক চাষে তারা প্রায় দু’ফসলের সমান লাভবান হচ্ছেন। বিশেষজ্ঞদের মতে, যেসব জমিতে তামাক চাষ করা হয় সেগুলোর মাটি অন্য ফসল উৎপাদনের অনুকূল থাকেনা। ফলে সেসব জমিতে ভবিষ্যতে অন্য কোন ফসল চাষ করা যায় না। তামাক চাষে কৃষকদের স্বাস্থ্যঝুঁকি মারাতœকভাবে বেড়ে যায়। বেশির ভাগ তামাক চাষী ও তাদের পরিবারের লোকজন ক্যান্সার, হাঁপানি, যক্ষ্মা সহ নানাবিধ রোগে আক্রান্ত হয়ে থাকে।
টাঙ্গাইল কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক আবুল হাশিম জানান, বিষয়টি নিয়ে তারাও চিন্তাভাবনা করছেন। বর্তমানে তামাক চাষ হ্রাসে কৃষকদের সচেতনতা বাড়াতে কাউন্সিলিং চলছে। কিন্তু যেসব জমিতে তামাক চাষ হচ্ছে সেসব জমিতে অন্য ফসলের তামাকের তুলনায় স্বল্প লাভজনক। তাই কৃষকদের বলেও তামাক চাষ বন্ধ করা যাচ্ছে না। জেলায় যেভাবে দিন দিন তামাকের চাষ বাড়ছে, তাতে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে ফসলি জমি-জলজ প্রাণি। এখনই যদি বিষাক্ত তামাক চাষ বন্ধ করা না যায় তবে ভবিষ্যতে ব্যাপক ক্ষতির মুখে পড়তে হবে।

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ