টাঙ্গাইলে অনিয়মের অভিযোগে কর্মকর্তাকে স্ট্যান্ড রিলিজ

প্রকাশিত : ৪ মার্চ, ২০২০

মধুপুর ৪ মার্চ : টাঙ্গাইলের মধুপুরে অনিয়মের অভিযোগে বিআরডিবি কর্মকর্তা এক কর্মকর্তাকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। ওই কর্মকর্তার নাম লিটন মোহন দে। মঙ্গলবার (৩ মার্চ) সন্ধ্যায় নানা অনিয়মের অভিযোগ প্রাথমিকভাবে প্রমাণিত হওয়ায় টাঙ্গাইল জেলা বিআরডিবির উপ পরিচালক একেএম জাকিরুল ইসলাম তাকে তাৎক্ষনিকভাবে (স্ট্যান্ড রিলিজ) অবমুক্ত করার আদেশ দেন।

আদেশ কপিতে বলা হয়েছে, মধুপুর বিআরডিবি কর্মকর্তা লিটন মোহন দে সমবায়ীদের নিকট থেকে ঋণের টাকা আদায় করে হস্তমজুদ ও বিভিন্ন আর্থিক অনিয়ম করায় সমবায়ীদের ক্ষোভ ও অসন্তোষের প্রেক্ষিতে এ আদেশ দেয়া হয়।

এর আগে মধুপুর উপজেলার বিভিন্ন এলাকার ৬টি সমিতির সভাপতি ও ম্যানেজার টাকা আত্নসাতের অভিযোগে বিআরডিবির চেয়ারম্যান মো. নুরুল আলম খান রাসেল এর নিটক লিখিত অভিযোগ করেন। উক্ত অভিযোগের প্রেক্ষিতে তদন্ত করে টাকা তছরুপের প্রাথমিক প্রমান পাওয়া যায়। মঙ্গলবার সকালে বিআরডিবির টাঙ্গাইলের উপ পরিচালক এ কে এম জাকিরুল ইসলাম মধুপুরে আসলে লিটন মোহন দের বিরুদ্ধে অনিয়মের প্রমাণ পেশ করেন নুরুল আলম খান রাসেল। এ সময় বিআরডিবি কর্মকর্তা লিটন মোহন দে ২ লাখ ১৪ হাজার ৯২০ টাকা তছরুপের কথা স্বীকার করে পরিশোধের জন্য লিখিত অঙ্গীকার করেন।

মধুপুর বিআরডিবির কর্মকর্তারা গণবিপ্লবকে জানান, উপজেলার বিআরডিবি কর্মকর্তা সমবায়ীদের টাকা হস্তমজুদ ছাড়াও অফিসের কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের বেতন ভাতাও উত্তোলন করে আত্মসাৎ করেছেন।

বিআরডিবির চেয়ারম্যান মো. নুরুল আলম খান রাসেল গণবিপ্লবকে আরও জানান, চেয়ারম্যান হিসাবে আমার সন্মানি ভাতার টাকা গ্রহণ না করে সমবায়ীদের মাঝে বিতরণ করতে বলেছি, কিন্তু সে তা না করে উল্টো আমার সন্মানি ভাতার টাকা উত্তোলন করে আত্নসাত করেছেন।

সাপ্তাহিক গণবিপ্লব
এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ। কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে অনুমতি নিয়ে নিন।