টাঙ্গাইলে কমছে পানি ভাঙছে বাড়ি ॥ ত্রাণের জন্য হাহাকার

প্রকাশিত : ৩ আগস্ট, ২০১৬
গণবিপ্লব অনলাইন
ডেস্ক রিপোর্ট

বুলবুল মল্লিকঃ

Tangail-Flood-(1)-03.08.2016
যমুনা নদীর পানি টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরের নলীন পয়েন্টে ২২ সেন্টিমিটার কমে বুধবার(৩ আগস্ট) দুপুরে বিপদসীমার ৫০ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। যমুনার পানি কমতে থাকায় বাড়ছে ভাঙন, ত্রাণের জন্য হাহাকারের পাশাপাশি পানিবাহিত রোগে আক্রান্ত হচ্ছে বন্যার্ত মানুষ। গত দুই সপ্তাহের বেশি সময় ধরে যমুনা, ধলেশ্বরী ও ঝিনাই নদীর পানিতে বন্যা কবলিত মানুষরা এখন পর্যন্ত সে অর্থে সরকারি কোন ত্রাণ সহায়তা পায়নি। এমনকি দুর্দশাগ্রস্থ মানুষের খোঁজ নেয়নি সরকারি-বেসরকারি সংস্থাও। ফলে বানভাসীদের মধ্যে তীব্র ক্ষোভ ও হতাশা বিরাজ করছে। ত্রাণের জন্য তাদের মধ্যে চলছে হাহাকার। লোকজন না খেয়ে মানবেতর জীবন-যাপন করছে। Tangail-Flood-(2)-03.08.2016
টাঙ্গাইলের ৮টি উপজেলার তিন শতাধিক গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। টাঙ্গাইল সদর, ভূঞাপুর, কালিহাতী, ধনবাড়ী, বাসাইল, দেলদুয়ার, গোপালপুর ও নাগরপুর উপজেলার প্রায় দুই লাখ মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। ৩ হাজার ১৬৪ হেক্টর জমির ফসল ও বীজতলা পানিতে নিমজ্জিত হয়েছে। দেড় শতাধিক পোল্ট্রি খামার ও শতাধিক পুকুর ভেসে গেছে। বানভাসী মানুষ গবাদিপশু নিয়ে বিভিন্ন স্থানে আশ্রয় নিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছে।
টাঙ্গাইল সদর উপজেলার কাকুয়া, হুগড়া, সিলিমপুর, মাহমুদ নগর ও কাতুলী ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকা যমুনার পানিতে তলিয়ে যায়। খবর পেয়ে টাঙ্গাইল-৫(সদর) আসনের সাংসদ ৫ ইউনিয়নের গোপালকেউটিল, চরপৌলী, ঢোলবাড়ী, ডিক্রিহুগড়া, মালতিপাড়া, কয়ড়াগাছা, গন্ধবপুর, ইশাপাশা, মাহমুদ নগর সহ বিভিন্ন এলাকা নৌকা নিয়ে পরিদর্শন করেন এবং প্রয়োজনীয় ত্রাণসামগ্রী দেয়ার আশ্বাস দেন। এ সময় তিনি নিজস্ব তহবিল থেকে বন্যা কবলিত সহস্রাধিক দরিদ্র ব্যক্তিকে মাথাপিছু ৫০০ টাকা করে নগদ টাকা প্রদান করেন।
ভূঞাপুর উপজেলার ৬ টি ইউনিয়নের মধ্যে ৫ টি ইউনিয়ন যমুনার পানিতে প্লাবিত হয়েছে। এতে গাবসারা ইউনিয়নের ৪৭ টি গ্রাম ও অর্জুনা ইউনিয়নের ২২টি গ্রাম সম্পূর্ণ প্লাবিত হয়েছে। গোবিন্দাসি ইউনিয়নের ৮ টি গ্রাম, নিকরাইল ইউনিয়নের ১৫ টি ও অলোয়া ইউনিয়নের ২০ টি গ্রাম আংশিক প্লাবিত হয়েছে। নিকরাইল ইউনিয়নের কয়েড়া বকচড়া নামকস্থানে মাটিকাটা-নিকরাইল পাকা সড়কটি ভেঙে যাওয়ায় নিকরাইল ও অলোয়া ইউনিয়নে নতুন নতুন গ্রাম ও ফসলী জমি নিমজ্জিত হচ্ছে।
দুই মৎস্য ব্যবসায়ী মিজানুর রহমান আক্তার ও ইউসুফ আলী সরকার। মাছ চাষের উদ্দ্যেশেএ বছর বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে ভূঞাপুর-বঙ্গবন্ধুসেতু সড়কের কন্ট্রাক্ট-৭ বাঁধের পশ্চিম পাশের ইজারা নেয়া ১৪ টি পুকুর ডুবে প্রায় ৮০ লাখ টাকার চাষকরা মাছ বন্যার পানিতে ভেসে গেছে। এসব গ্রামের পানিবন্দি মানুষ ত্রাণ না পেয়ে মানবেতর দিন কাটাচ্ছে।
দেলদুয়ারে বন্যায় ৪৫ স্কুল বন্ধ ও ২ হাজার হেক্টর জমির ফসল ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। দেলদুয়ারের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের আটিয়া, দেউলি, এলাসিন, লাউহাটি ও ফাজিলহাটি ইউনিয়নের প্রায় ২০ হাজার পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। ধলেশ্বরী নদী সংলগ্ন হওয়ায় সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে দেউলী ইউনিয়ন। দেউলী ইউনিয়নের প্রায় পুরোটাই বন্যা কবলিত।Tangail-Flood-(3)-03.08.2016
বন্যার পানির তোড়ে দেউলী-ঝুনকাই বেড়িবাঁধে কয়েকটি স্থান ভেঙে গেছে। এছাড়া ছিলিমপুর-ঝুনকাই রাস্তার দুটি স্থানে, মাইঠাইন-চকতৈল রাস্তার মাইঠাইনে, ছিলিমপুর-দেউলী রাস্তার স্থলবর্ষা নামক স্থানে ভেঙে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। হুমকির মুখে পড়েছে স্থলবর্ষা স্লুইস গেট। এলাসিন-লাউহাটী বেড়িবাঁধটির গাছকুমুল্লী নামক স্থানে ভাঙন দেখা দেয়ায় পানি উন্নয়ন বোর্ড, দেলদুয়ার উপজেলা পরিষদ ও এলাসিন ইউনিয়ন পরিষদ যৌথভাবে বালির বস্তা ফেলে ভাঙন ঠেকানোর চেষ্টা করছে। দক্ষিণ টাঙ্গাইলের বিখ্যাত লাউহাটী গোহাট গ্রাম প্রায় ৩ ফুট পানি নিচে তলিয়ে গেছে। ছিলিমপুর বাজারের পুরোটাই প্লাবিত হয়েছে। ধলেশ্বরী নদীর পানি কমতে থাকায় নতুন করে ভাঙন শুরু হয়েছে। ইতোমধ্যে দুই শতাধিক বাড়িঘর নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। উপজেলার ৪৫টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় বন্যা কবলিত হওয়ায় শিক্ষা কার্যক্রম বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। উপজেলায় ৩০০ হেক্টর লেবু, ৭০ হেক্টর বীজতলা, ১ হাজার হেক্টর বোনা আমন, ৪০০ হেক্টর রোপা আমন, ১২০ হেক্টর সবজী, ১৫ হেক্টর আউশ ও ৪৫ হেক্টর জমির কলা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।
টাঙ্গাইলের বাসাইল উপজেলার ঝিনাই নদীর পানিও কমতে থাকায় নদীতীরবর্তী বিভিন্ন স্থানে ব্যাপক নতুন করে ভাঙন শুরু হয়েছে। ভাঙনের কারনে কাঞ্চনপুর, হাবলা ও কাশিল ইউনিয়নের কাশিল, দাপনাজোর, কামুটিয়া, নথখোলা, থোপিয়া, বালিনা ভৈরপাড়া, আদাজানের মানিকচর, কাঞ্চনপুর কাজিরাপাড়া, সোনারচরসহ বিভিন্ন এলাকার নদী তীরবর্তী বিদ্যুতের খুঁটি, মসজিদ-মাদ্রাসা সহ ঘরবাড়ি হুমকির মুখে পড়েছে।
টাঙ্গাইলের ধনবাড়ী উপজেলায় ঝিনাই ও বৈরান নদীর পানির তোড়ে মুশুদ্দি ইউনিয়নের কসাইবাড়ী বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ ৯ জায়গায় ভেঙে মুশুদ্দি, পাইস্কা, বলিভদ্র, ধোপাখালি ও হাদিরা ইউনিয়নের অর্ধশত গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। এ দিকে কসাইবাড়ী বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের প্রায় ১ হাজার ২০০ মিটার বাঁধ ভেঙে গেছে। পানি কমতে থাকায় ভাঙছে ঘরবাড়ি।
টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলার সল্লা, দুর্গাপুর, দশকিয়া, গোহালিয়াবাড়ী এ ৪টি ইউনিয়ন এখনও পানির নিচে তলিয়ে রয়েছে। ৪ ইউনিয়নের রাস্তাঘাট, স্কুল, মাদ্রাসা, মসজিদ, মন্দির, হাটবাজার, ঘরবাড়ী, চড়ার ফসল তলিয়ে পানিবন্দি হয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছে কয়েক হাজার মানুষ। কমতে থাকায় পানিবন্দি অসহায় মানুষগুলো বিভিন্ন পানিবাহিত রোগে আক্রান্ত হচ্ছে।  Tangail-Flood-(4)-03.08.2016
ত্রাণ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বলেছেন, দুশ্চিন্তার কোন কারণ নেই। সরকারের কোষাগারে পর্যাপ্ত পরিমাণ ত্রাণ সামগ্রী রয়েছে। বন্যা দুর্গতরা যতদিন পর্যন্ত তাদের বাড়িতে ফিরতে না পারেন ততদিন সরকার সাহায্য করে যাবে। শুধু ধৈর্য ধরে বুকে সাহস নিয়ে বন্যা পরিস্থিতি মোকাবেলা করতে হবে। মন্ত্রী হুশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেন, বন্যা দুর্গতদের ত্রাণ সামগ্রী নিয়ে সরকারি কর্মকর্তা, কর্মচারি ও জনপ্রতিনিধিদের ছিনিমিনি কোনভাবেই সহ্য করা হবেনা। গত ১ আগস্ট(সোমবার) বিকালে টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলার যমুনাতীরবর্তী গোহালিয়াবাড়ী ইউনিয়নের গেড়িলাবাড়ী গ্রামে জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে ত্রাণসামগ্রী বিতরণ কালে ত্রাণ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বলেন, টাঙ্গাইলে বন্যা দুর্গতদের মাঝে ২১০ মে.টন চাল এবং নগদ ১২ লাখ টাকা ইতোমধ্যে বিতরণ করা হয়েছে। বন্যার্তদের সহায়তার জন্য আগামী ২-১ দিনের মধ্যে আরও ২০০ মে.টন চাল এবং ২০ লাখ টাকার ব্যবস্থা করা হবে।
যমুনা ও ধলেশ্বরী নদীর পানিতে টাঙ্গাইলের নাগরপুর উপজেলার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, ঘরবাড়িসহ আবাদি ফসল পানিতে তলিয়ে গেছে। যমুনা ও ধলেশ্বরী নদীর পানি কমতে শুরু করলেও বিপদ সীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হওয়ায় জনসাধারণ তাদের ছোট ছেলে-মেয়ে এবং গৃহপালিত পশু নিয়ে বেশি বিপাকে পড়েছে। বন্যাকবলিত এলাকায় বিশুদ্ধ খাবার পানির অভাবে দেখা দিয়েছে ডায়রিয়া, সর্দি, কাঁশি জ্বরসহ নানা রোগব্যাধি। বিভিন্ন চিকিৎসালয়ে যাতায়াতের রাস্তা-ঘাট তলিয়ে যাওয়ায় চিকিৎসা সেবা পাচ্ছে না বন্যা কবলিত মানুষগুলো। বন্যায় ভারড়া, গয়হাটা, মোকনা, পাকুটিয়া, ধুবড়িয়া, বেকড়া, সলিমাবাদ, দপ্তিয়র, সহবতপুর ও নাগরপুর সদর ইউনিয়নের আংশিক প্লাবিত হয়েছে। এরমধ্যে ভাড়রা, গয়হাটা, ভাদ্রা ও দপ্তিয়র ইউনিয়নের বেশির ভাগ বাড়িঘর বন্যা কবলিত হয়ে পড়েছে। এসব এলাকায় এখনও কোন প্রকার ত্রাণসামগ্রী পৌঁছেনি। এদিকে, দক্ষিণ টাঙ্গাইলের নাগরপুর, মানিকগঞ্জের দৌলতপুর, সিরাজগঞ্জের চৌহালী উপজেলাবাসীর যোগাযোগের একমাত্র সড়ক টাঙ্গাইল-আরিচা আঞ্চলিক মহাসড়কের চাষাভাদ্রা নামকস্থানে বেইলী ব্রিজ ভেঙে যোগাযোগ ব্যবস্থা বন্ধ হয়ে গেছে। আকস্মিকভাবে ব্রিজটি ভেঙে পড়ায় রাস্তার দুই পাশে যানবাহন আটকা পড়ে। পরে যানবাহন বিকল্প রাস্তা দিয়ে চলাচল করছে। এতে করে এই তিন উপজেলার মানুষের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।
জেলার বানভাসী হাজার হাজার মানুষ গবাদি পশু নিয়ে আশ্রয় নিয়েছে স্কুলঘর, উঁচুবাঁধ ও আত্মীয় স্বজনের বাড়িতে। অনেকেই উচু মাচান তৈরি করে আশ্রয় নিয়েছে। চরাঞ্চলের সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে গেছে। বন্যাদুর্গত এলাকায় বিশুদ্ধ পানির তীব্র সংকট দেখা দিয়েছে। প্রশাসনের পক্ষ থেকে কোন ত্রাণ সামগ্রী না করায় মানবেতর জীবন যাপন করছে।

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ