টাঙ্গাইলে কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন

প্রকাশিত : ১৮ নভেম্বর, ২০১৯

টাঙ্গাইল ১৮ নভেম্বর : বিনা নোটিশে বাড়ি ভাংচুর করার অভিযোগে সম্মেলন করেছে ২ নং ওয়ার্ডের এনায়েতপুরের নাজমুল হাসান ও তার পরিবার। শনিবার (১৬ নভেম্বর) বেলা সাড়ে ১১টায় টাঙ্গাইল প্রেসকাবে সাংবাদিক সম্মেলনে এ অভিযোগ করেন।


সাংবাদিক সম্মেলনে লিখিত ব্যক্তবে ভুক্তভোগী নাজমুল হাসান জানান, আমার পিতা এনায়েতপুর দক্ষিণপাড়া জামে মসজিদের বর্তমান সাধারণ সম্পাদক এবং প্রথম শ্রেণির একজন ঠিকাদার।এনায়েতপুর দক্ষিণপাড়া এসপি পার্ক সংলগ্ন আমার স্থায়ী বসতবাড়ির এনায়েতপুর মৌজার ১৮-৫১ দাগের ৮৭ নং খতিয়ানের ৬ শতাংশ জায়গা ১৯৮৭ সালে ক্রয়সূত্রে মালিক হয়ে শান্তিপূর্ণভাবে বসবাস করছি । বিগত ২০০০ সালে আমার বাসার উত্তর পাশে মৃত আরফান আলীর ছেলে ফজলুর রহমান জায়গা ক্রয় করে বসতবাড়ি নির্মাণ করে। উক্ত ব্যক্তির নিজস্ব জায়গা থাকা সত্ত্বেও আমার বসতবাড়ির ভেতর দিয়ে ব্যক্তিগত রাস্তা দাবি করে আসছে। এই ব্যাপারে বিভিন্ন সময়ে সে আমার সাথে হুমকিধামকিসহ নানান ধরনের দুর্ব্যবহার করে আসছে।

এ অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতে টাঙ্গাইল সদরের এসিল্যান্ড আমার নিজস্ব জায়গা থেকে ফজলুর রহমানকে আনুমানিক ৪ ফুট প্রশস্ত জায়গা থেকে আমার বাউন্ডারী ওয়াল ভেঙে দেওয়া হয় এবং প্রশাসন বরাবর নালিশ করে। এসি ল্যান্ড গত ০৯-১১-২০১৯ তারিখে জায়গা পরিমাপের জন্য নোটিশ দেয়। তিনি নোটিশে জানান ১২-১১-২০১৯ তারিখ বেলা ১১ ঘটিকা আমাদেরকে অত্র এলাকায় উপস্থিত থাকার জন্য। তিনি আমার ও এলাকাবাসীর কোন কথা না শুনে একতরফা মনগড়াভাবে আমাকে জানিয়ে দেয় যে, আমার বাউন্ডারী ওয়ালটি ভেঙে ফেলতে হবে। কিন্তু তিনি ও ২নং কাউন্সিলর জনাব ইকবাল হোসেন আলী উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে গত ১৩-১১-২০১৯ তারিখ সকাল ১১ ঘটিকা আমাকে কোন প্রকার সময় বা অফিসিয়াল নোটিশ না দিয়ে আমার বাউন্ডারী ওয়াল ভেঙে দেয়। উক্ত সময়ে আমার বাসায় আমি বা বাসার কোন পুরুষ ব্যক্তি ছিল না। বাসার মহিলারা এবং এলাকার বাসিন্দারা তাদের কাছে দেয়াল ভাঙার লিখিত নোটিশ চাইলে তারা বলেন অফিসিয়াল কোন নোটিশ হবে না, মুখে বললে আপনাদের কানে যায় না? এ সময় আমার মা ঘটনাটি মোবাইল ক্যামেরায় ভিডিও করতে গেলে তারা আমার অসুস্থ মাকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দিয়ে মোবাইল কেড়ে নেয় এবং বলেন কোন প্রকার ভিডিও করা যাবে না। অদ্য ১৬-১১-২০১৯ ইং তারিখ সকালবেলা আমরা ঘুম থেকে উঠে দেখি ফজলুর রহমান আমাদের বাউন্ডারী ওয়ালের ইট ও বিভিন্ন গাছপালার নিয়ে যাচ্ছে। উল্লেখ থাকে যে, উক্ত ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে গত ১৩-১১-২০১৯ ইং তারিখে টাঙ্গাইল সদর সিনিয়র জজ আদালতে আমার পিতা বাদী হয়ে একটি মোকদ্দমা দায়ের করেন। যার মোকদ্দমা নম্বর-২৩৯/২০১৯ অন্য প্রকার। তিনি এ সময় আরো বলেন, প্রিয় সাংবাদিক ভাইয়েরা, আমরা অত্যন্ত নিরীহ মানূস এবং একজন শান্তিপূর্ণ এলাকাবাসী। আমি শান্তিপূর্ণভাবে বসবাস করিয়া আসিতেছি। আপনাদের কলমের লেখায় আমার এই সমস্যার সমাধানে আপনারা এগিয়ে আসলে আমি খুবই উপকৃত হব। আপনাদের প্রিন্ট মিডিয়া ও বিভিন্ন পত্রিকার সাংবাদিকদের আমি সার্বিক সহযোগিতা কামনা করিতেছি।

সাপ্তাহিক গণবিপ্লব
এইমাত্র পাওয়া