টাঙ্গাইলে কৃষক শ্রমিক জনতালীগ নেতা হত্যায় গ্রেপ্তার ৩

প্রকাশিত : ১৫ জুলাই, ২০১৯
মো. আল-আমিন খান
চীফ রিপোর্টার

টাঙ্গাইলে অ্যাডভোকেট বার সমিতির প্রবীন আইনজীবী বীর মুক্তিযোদ্ধা ও কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের কেন্দ্রীয় নেতা মিঞা মো. হাসান আলী রেজাকে হত্যার অভিযোগে দুই জনকে গ্রেফতার করেছে টাঙ্গাইল মডেল থানা পুলিশ। রোববার রাতে শহরের বটতলা থেকে এ হত্যাকান্ডে জড়িত থাকার অভিযোগ তাদের গ্রেফতার করে। এ ঘটনায় গ্রেফতারকৃতরা হলেন, টাঙ্গাইল শহরের আকুর টাকুর মুসলিম পাড়ার তপন কুমার সরকার (৫০), কল্পনা রাণী সরকার (৪০) ও তাদের ছেলে তন্ময় সরকার (২১)।

টাঙ্গাইল মডেল থানার উপপরিদর্শক (এসআই) ওয়াজেদ আলী জানান, এই ঘটনায় জড়িত থাকা সন্দেহে রোববার রাতে শহরের আকুরটাকুর মুসলিম পাড়া থেকে তপন কুমার সরকার, তার স্ত্রী কল্পনা রানী ও তার ছেলে তন্ময় সরকারকে গ্রেফতার করা হয়। মামলার তদন্তকালে নিখোঁজ হওয়ার আগে হাসান আলী রেজার মুঠোফোনে চারবার কথা হয় ওই নারীর। এরই সূত্র ধরে তাদের গ্রেফতার করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

পরে সোমবার দুপুরে গ্রেফতারকৃতদের টাঙ্গাইল অতিরিক্ত চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে হাজির করে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৭ দিনের রিমান্ড আবেদন করে পুলিশ। তবে শুনানী শেষে আদালতের বিচারক অতিরিক্ত চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট মনিরা সুলতানা উভয়কে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৩ দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

বিষযটি নিশ্চিত করে টাঙ্গাইল আদালত পরিদর্শক তানবীর আহমেদ জানান, রোববার রাতে শহরের আকুর টাকুর মুসলিম পাড়া থেকে টাঙ্গাইলে অ্যাডভোকেট বার সমিতির প্রবীন আইনজীবী বীর মুক্তিযোদ্ধা ও কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের কেন্দ্রীয় নেতা মিঞা মো. হাসান আলী রেজা হত্যাকান্ডে জড়িত থাকার অভিযোগে তপন কুমার সরকার (৫০), স্ত্রী কল্পনা রাণী সরকার (৪০) ও ছেলে তন্ময় সরকার (২১) কে গ্রেফতার করে টাঙ্গাইল মডেল থানা পুলিশ। সোমবার দুপুরে গ্রেফতারকৃতদের অতিরিক্ত চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে হাজির করে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৭ দিনের রিমান্ড আবেদন করে পুলিশ। তবে এ মামলায় গ্রেফতার হওয়া কল্পনা রানী আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।
এছাড়াও শুনানী শেষে আদালতের বিচারক অতিরিক্ত চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট মনিরা সুলতানা তপন কুমার সরকার (৫০) ও তন্ময় সরকার (২১)উভয়কে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৩ দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন।
উল্লেখ্য, গত ৮ জুলাই ৭৬ বছর বয়স্ক হাসান আলী রেজা টাঙ্গাইল শহরের সাবালিয়া পাঞ্জাপাড়ার বাসা থেকে চা খাওয়ার জন্য বের হন। এরপর থেকে তিনি নিখোঁজ ছিলেন। ওই এলাকার একটি ক্লোজড সার্কিট (সিসি) ক্যামেরার ফুটেজে দেখা যায় হেলমেট ও রেইনকোর্ট পরিহিত এক যুবকের মোটর সাইকেলের পিছনে চড়ে তিনি যাচ্ছেন। নিখোঁজের ব্যাপারে মঙ্গলবার (৯ জুলাই) তার ছেলে টাঙ্গাইল সদর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী (জিডি) করেন। পরে গত শনিবার শহরের পশ্চিম আকুরটাকুর পাড়া লৌহজং নদ থেকে তার ভাসমান মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ