প্রকাশকাল: ৫ জুলাই, ২০১৮

টাঙ্গাইলে চলছে খাল দখলের মহোৎসব

স্টাফ রিপোর্টারঃ

টাঙ্গাইলে চলছে খাল দখলের মহোৎসব। স্থানীয় পানি উন্নয়ন বোর্ড, প্রশাসন ও এলাকাবাসীকে বৃদ্ধাঙ্গুলী দেখিয়ে সরকারি খাল দখল করে ব্যাক্তিগত প্রাইভেট গাড়ী চলাচলের রাস্তা তৈরি করছেন মো. সরোয়ার হোসেন খান নামের স্থানীয় এক প্রভাবশালী ওষুধ ব্যবসায়ী।

শহরের সন্নিকটে ঘারিন্দা ইউনিয়নের ঘারিন্দা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন বয়ে যাওয়া খালটির প্রায় ২০ফিট প্রস্থ ও প্রায় আধাকিলো শক্ত ভিমের মাধ্যমে দেওয়ালের প্রাচীর নির্মাণ করে দখলের নিয়েছেন তিনি। স্থানীয় চেয়ারম্যান, মাতাব্বর ও এলাকাবাসীর বাঁধা উপেক্ষা করে মাটি ভরাট করা হচ্ছে। এ ব্যপারে এলাকাবাসী ক্ষুদ্ধ হয়ে উঠেছেন। তার দ্রুত প্রশাসনকে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণেন অনুরোধ জানান। এসব প্রভাবশালী ব্যাক্তিদের কারনে প্রতিনিয়ত ধ্বংশ হয়ে যাচ্ছে প্রাকৃতিক সুন্দর্য্য খাল।

ঘারিন্দা ইউনিয়নের প্রতিটি গ্রামের ভেতর দিয়ে বয়ে যাওয়া এই খালটিতে গবাদী পশুর গোসল ও স্থানীয়দের গোসল সহ ময়লা-আবর্জনা পরিস্কারের অন্যতম একটি মাধ্যম। স্থানীয় পানি উন্নয়ন বোর্ড এ ব্যপারে অবগত নন। বিষয়টি জানার পর ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দেন।

সরোজমিনে গিয়ে জানা যায়, স্থানীয় নুরুল আমীন খানের ছেলে ওষুধ ব্যবসায়ী সরোয়ার হোসেন খান তার বাড়ী ঘারিন্দা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পেছন সাইট একটি কালভাট সংলগ্ন খালের পাশ দিয়ে জনসাধারণের চলাচলের জন্য রাস্তা রয়েছে। এই রাস্তাটি ব্যাক্তিগত প্রাইভেট গাড়ী চলাচলের জন্য খালের ২০ফিট দখল করে তার উপর দীর্ঘ কোয়াটার কিলোমিটার ভিমের মাধ্যমে দেওয়ালের প্রাচীর নির্মাণ করেন। যাতে তার ব্যাক্তিগত প্রাইভেট গাড়ী চলাচলে রাস্তা ভেঙ্গে খালে পরে না যায়। গত বুধবার থেকে মাটি দিয়ে ভরাট করা হচ্ছে দখলকৃত খালটি। এতে ইউনিয়ন প্রশাসন ও এলাকাবাসী বাঁধা প্রদান করলেও তিনি অজ্ঞাত শক্তির বলে তাদের কোন তোয়াক্কা না করে রাস্তা নির্মাণের কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন। স্থানীয় এলাকাবাসী এর দ্রুত প্রতিকার চেয়ে উক্ত ব্যাক্তির বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য স্থানীয় প্রশাসনকে অনুরোধ জানান। তারা জানান, এই খালটিই এই ইউনিয়নের পানি ও ময়লা আবর্জনা নিস্কাশনের প্রধান বাহক। এই খালে গ্রামবাসীর গবাদী পশু সহ নিজেরা পারিবারিক কাজ ও গোসল করে থাকেন। এভাবে খাল দখল হতে থাকলে ইউনিয়ন পর্যায়ে পানির অভাব দেখা দিবে।

এ ব্যাপারে মো. সরোয়ার হোসেন খান জানান, খালের কোন জায়গা দখল করে রাস্তা নির্মাণ করা হচ্ছে না। বিষয়টি উপজেলা প্রশাসন ও এ্যাসিল্যান্ড অবগত আছেন। তারা সরোজমিনে এসেছিলেন। পরে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি সরাসরি তার সাথে কথা বলতে বলেন অন্যথায় রিপোটারকে যা খুশি তাই লিখে রিপোর্ট করতে বলেন।

এ ব্যাপারে ঘারিন্দা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রুহুল আমীন খান খোকন জানান, তাকে বার বার বিভিন্ন ভাবে বাঁধা প্রদান করা হয়েছে। কিন্তু তিনি কারো কোন নিষেধ মানছেন না।

এ ব্যাপারে টাঙ্গাইল পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. শাহজাহান সিরাজ জানান, সরকারি খাল দখল করে ব্যাক্তিগত রাস্তা নির্মাণের কারো কোন একতিয়ার নেই। এ ব্যাপারে আমাকে কেউ অবগত করেননি। তিনি প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস দেন।

এ রকম আরোও খবর

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ