টাঙ্গাইলে চেকপোষ্ট পরিদর্শন করলেন এসপি

প্রকাশিত : ৩ এপ্রিল, ২০২০

টাঙ্গাইল ৩ এপ্রিল : টাঙ্গাইল সদর থানা এলাকায় বিভিন্ন পয়েন্টে করোনা ভাইরাস সংক্রমন প্রতিরোধে পুলিশের চেকপোষ্ট পরিদর্শন করেন পুলিশ সুপার সঞ্জিত কুমার রায় (বিপিএম)। এছাড়াও মানুষকে সচেতন করতে শহরের বিভিন্ন পয়েন্টে জেলা পুলিশের কার্যক্রম পরিদর্শন করেন।

সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে, মাস্ক ও হ্যান্ড গ্লাভস ব্যবহারে সকলকে সচেতন করতে শহরের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সড়ক ও বিভিন্ন এলাকায় জেলা পুলিশের জনসচেতনতামূলক এইকাজগুলোও পরিদর্শন করেন তিনি।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিএসবি) মো. শফিকুল ইসলাম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মো. রেজাউর  রহমান, মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মীর মোশারফ হোসেন, পুলিশ পরিদর্শক (ইন্টেলিজেন্স) মো. সালাউদ্দিন, সদর ফাঁড়ির পরিদর্শক মো. মোশারফ হোসেন, সিএনআই এর হেড অব নিউজ জুয়েল আহমেদ, গণবিপ্লব পত্রিকার স্টাফ রিপোর্টার রাশেদ খান মেনন (রাসেল) সহ অন্যান্য পুলিশ কর্মকর্তা’গণ।

জেলা পুলিশের চৌকস কর্মকর্তাগণ ওই সময় বাজার দর মনিটরিং’সহ বাজারে আসা ক্রেতাদের নির্দিষ্ট দুরত্ব বজায় রেখে চলাফেরা করার জন্য দোকানদার ও ক্রেতাদের নির্দেশনা দেন। ওষুধের দোকান ও কাঁচা বাজার গুলোতে নিদিষ্ট দুরত্ব বজায় রাখতে গোল দাগ দিয়ে ক্রেতাদের দাঁড়ানোর জন্য মার্ক করে দেন।

সেইসাথে গুরুত্বপূর্ণ কোন কাজ ছাড়া বাড়ির বাইরে কাউকে না আসার নির্দেশ দেন।

এ সময় পুলিশ সুপার সঞ্জিত কুমার রায় (বিপিএম) গণবিপ্লব-কে বলেন, জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে গুরত্বপূর্ণ পয়েন্টগুলোতে পুলিশের চেকপোষ্ট বসিয়ে জেলাবাসীকে নিজ নিজ ঘরে অবস্থান করার বিষয়টি নিশ্চিত করার চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।

এ সময় করোনা ভাইরাস প্রতিরোধের উপায়, করণীয় নিয়ে জনগনকে সচেতনতামূলক পরামর্শ প্রদানসহ জেলা পুলিশের পক্ষ হতে লিফলেট বিতরণ করা হয়।সারা বিশ্বে ভয়াবহ করোনা ভাইরাস সংক্রমণ আতংক বিরাজ করছে। সামজিক দুরত্ব বজায় রাখতে তিনফুট পর পর বৃত্ত করে দেয়া হচ্ছে দোকান ও ওষুধের ফার্মেসির সামনে। যাতে মানুষ নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য ও ওষুধ কেনার জন্য এসে নিরাপদ দূরত্ব বজায় রাখতে পারে। এছাড়া হাট-বাজারে জন সচেতনতার জন্য মাইকিং অব্যাহত রয়েছে। 

সাপ্তাহিক গণবিপ্লব
এইমাত্র পাওয়া