টাঙ্গাইলে ট্রাক উল্টে নিহত ৬

প্রকাশিত : ২৮ মার্চ, ২০২০

গোপালপুর ২৮ মার্চ : করোনা আতঙ্কে গণপরিবহন না থাকায় ট্রাকের ছাদে করে বাড়ি ফেরার পথে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে ট্রাক উল্টে সিমেন্টের নীচে চাপা পড়ে ৬জন নিহত ও ১০জন আহত হয়েছেন।

নিহতরা হলেন টাঙ্গাইলের গোপালপুরের চরভাদাই গ্রামের জুলহাস, বগুড়ার দুপচাচিয়ার আলিফ ও কাদের এবং রংপুরের পীরগাছার আব্দুল্লাহ। অপর নিহত নারী ও এক ব্যক্তির এখনো পরিচয় সনাক্ত করা যায়নি। শনিবার সকালে মহাসড়কের টাঙ্গাইল সদরের কান্দিলা বাজার এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

জেলা পুলিশের সার্জেন্ট রাজীব বর্মণ গণবিপ্লব-কে বলেন, ‘শনিবার ভোরে ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা উত্তরবঙ্গগামী সিমেন্ট বোঝাই একটি ট্রাক টাঙ্গাইল সদরের কান্দিলা এলাকায় পৌঁছালে চালক ট্রাকটির নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলেন। এতে ট্রাকটি আইল্যান্ডের সাথে ধাক্কা খেয়ে রাস্তায় মাঝে উল্টে যায়। পরে ট্রাকের নীচে চাপা পড়ে ঘটনাস্থলেই ওই ট্রাকটির ছাদে যাত্রী হয়ে যাওয়া ঘটনাস্থলেই এক নারীসহ চারজন ও হাসপাতালে নেয়ার পর একজন এবং চিকিৎসাধীন অবস্থায় আরও একজনের মৃত্যু হয়েছে।’

জানা যায়, ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের টাঙ্গাইল সদরের কান্দিলা বাজার এলাকায় মহাসড়ক উন্নয়নে চলমান সামান্য ঢালু একটি ব্রীজ। এই মহাসড়কের অন্যগুলি ঠিকঠাক থাকলেও নির্মাণ জনিত কারণে ব্রীজটির দুই পাশেই রয়েছে ঢালু! ঢালু থাকলেও ব্রীজে উঠার আগে নেই কোন গতি নিয়ন্ত্রক বা সতর্কীকরণ চিহ্ন।

এরপরেও অধিকাংশই যানবাহনই গতি কমিয়ে পার হচ্ছেন ব্রীজটি। কেবল ভোর রাতের দিকে বগুড়া ট ১১- ১১৭১ নাম্বারের সিমেন্ট বুঝাই ট্রাক চালক গতি না কমিয়ে দ্রুতগতিতে পার হচ্ছিলেন ওই স্থান। ছিলেন প্রায় ঘুমন্ত। যার ফলে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ট্রাকটি উঠিয়ে দেন আইল্যান্ডে। পরে ট্রাক উল্টে ও সিমেন্টের নীচে চাপা পড়ে এ হতাহতের ঘটনা ঘটে। ট্রাকটিতে প্রায় ৩০ জনের মতো নিম্ন আয়ের মানুষ ছিলেন।

টাঙ্গাইল ফায়ার সার্ভিসের সিনিয়র স্টেশন মাষ্টার শফিকুল ইসলাম গণবিপ্লব-কে বলেন, দুর্ঘটনার পর পরই খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা ঘটনাস্থলে উদ্ধার তৎপরতা চালায়। এ সময় সিমেন্টের বস্তার নিচে চাপা পড়া ৫ জনকে মৃত ও ১১ জনকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়।

টাঙ্গাইল জেনারেল হাসাপাতালের আবাসিক চিকিৎসক ডা. সজিব গণবিপ্লব-কে জানান, চিকিৎসাধীন দশ জনের মধ্যে ৯ জনের অবস্থাই আশঙ্কাজনক।

সাপ্তাহিক গণবিপ্লব
এইমাত্র পাওয়া