টাঙ্গাইলে ডিসি লেক ও শিশুপার্কের উদ্বোধন

প্রকাশিত : ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৬
গণবিপ্লব অনলাইন
ডেস্ক রিপোর্ট

আল-আমিন খান:

dsc_0384

টাঙ্গাইলের লৌহজং নদীর বিলুপ্ত অংশ নোংরা, দুর্গন্ধযুক্ত ময়লা-আবর্জনার ‘ভাগার’কে মননশীল চিন্তা ও তার সঠিক বাস্তবায়নে মাত্র এক বছরেই মনোরম পরিবেশ আর দৃষ্টিনন্দন রূপ বিলিয়ে সৌন্দর্যের রাণীতে পরিণত হয়েছে ডিসি লেক ও শিশু পার্ক। শুক্রবার(২৩ সেপ্টেম্বর) দুপুরে টাঙ্গাইল জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে সম্পূর্ণ নিজস্ব অর্থায়নে সরকারের জলাধার সংরক্ষণ প্রকল্পের আওতায় গড়ে ওঠা সৌন্দর্যমন্ডিত ডিসি লেক ও শিশুপার্কের উদ্বোধন করা হয়েছে।
উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে টাঙ্গাইলের জেলা প্রশাসক মো. মহিবুব হোসেনের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন, মন্ত্রী পরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম। বিশেষ অতিথি ছিলেন, মন্ত্রী পরিষদ বিভাগের সচিব(সমন্বয় ও সংস্কার) এনএম জিয়াউল আলম, ঢাকা বিভাগীয় কমিশানার হেলালুদ্দীন আহমদ। এ সময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, সাংসদ খন্দকার আব্দুল বাতেন, সংরক্ষিত মহিলা আসনের সাংসদ মনোয়ারা বেগম, টাঙ্গাইলের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক(সার্বিক) মো. আনোয়ার হোসেন, পুলিশ সুপার মাহবুব আলম, জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি ও দৃষ্টি টিভি’র চেয়ারম্যান আনিসুর রহমান, জেলা আ’লীগের সহ-সভাপতি খ. আশরাফুজ্জামান স্মৃতি, সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট জোয়াহেরুল ইসলাম জোয়াহের, টাঙ্গাইল পৌরসভার মেয়র জামিলুর রহমান মিরণ, সিনিয়র জেলা তথ্য কর্মকর্তা কাজী গোলাম আহাদ, টাঙ্গাইল ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব হারুন অর রশিদ প্রমুখ। dsc_0388
দেশের সব এলাকায় জলাধার সংরক্ষণে সরকারের ঘোষণাকে গুরুত্ব দিয়ে বর্তমান জেলা প্রশাসক মো. মাহবুব হোসেন এ লেকগুলো সংরক্ষণ ও উন্নয়নের উদ্যোগ নেন। এ জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণের লক্ষ্যে তিনি জেলা প্রশাসনের সব কর্মকর্তা ও প্রকৌশলীদের সঙ্গে পরামর্শ করেন। কিন্তু এত বড় লেক জেলা প্রশাসনের অর্থায়নে করা সম্ভব নয়। তাই জেলা প্রশাসন কার্যালয় ও সার্কিট হাউজ সংলগ্ন লেকটি অনেকটা রাজধানীর হাতিরঝিল প্রকল্প অনুকরণে উন্নয়নের উদ্যোগ নেয়া হয়। এ জন্য প্রয়োজনীয় অর্থ বরাদ্দে জলাধার সংরক্ষণ, সৌন্দর্য বর্ধন নীতিমালার আওতায় লেকটি সংস্কার ও লেকের চারপাশের সৌন্দর্য বর্ধনকল্পে গত বছরের শুরুর দিকে ভূমি মন্ত্রণালয়ে একটি আবেদন করা হয়। তৎকালীন ভূূমি মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব (বর্তমানে মন্ত্রিপরিষদ সচিব) মোহাম্মদ শফিউল আলমের প্রত্যক্ষ নির্দেশনায় এ লেকটি উন্নয়ন ও সংস্কারে দুই কোটি ৯১ লাখ ৯৫ হাজার টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়। প্রকল্পের কার্যাদেশ শুরু হয় ২০১৫ সালের ৬ মে ও বাস্তবায়ন মেয়াদকাল জুন ২০১৬। এ পরিপ্রেক্ষিতে জেলা প্রশাসক মো. মাহবুব হোসেনের সার্বিক তত্ত্বাবধানে ৩৩ দশমিক ৪৫ একর লেকটি পুনঃখনন, লেকে দৃষ্টিনন্দন ঘাট নির্মাণ ও লেকের মাঝে ভাসমান মঞ্চ তৈরি করা হয়।

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ