টাঙ্গাইলে নারী উদ্যোক্তাদের প্রাকৃতিক আঁশ ও পণ্য উৎপাদন বিষয়ক প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত : ২২ নভেম্বর, ২০১৫
গণবিপ্লব
রিপোর্ট

স্টাফ রিপোর্টার॥

টাঙ্গাইলে নারী উদ্যোক্তাদের প্রাকৃতিক কলা গাছের বাকল হতে আঁশ ও পণ্য উৎপাদন বিষয়ক প্রশিক্ষণ অনিুষ্ঠিত হয়েছে। টাঙ্গাইলের বাজিতপুরে বাংলাদেশ ইন্সপায়ার্ড প্রকল্পের উৎপাদন কেন্দ্রের হলরুমে ১৮ নভেম্বর(বুধবার) ৩ দিনব্যাপী ওই প্রশিক্ষণ সম্পন্ন হয়।
সরকারের শিল্প মন্ত্রণালয় ও ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের অর্থায়নে বাংলাদেশ উইমেন চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাষ্ট্রি (বিডব্লিউসিসিআই) কর্তৃক বাস্তবায়নাধীন বাংলাদেশ ইন্সপায়ার্ড প্রকল্পের আওতায় টাঙ্গাইল ইউনিট প্রথম ধাপে ১৮ নভেম্বর পর্যন্ত ১০টি ব্যাচে কলা গাছের বাকল হতে আঁশ ও পণ্য উৎপাদন বিষয়ে মোট ২৬৩ জন নারী উদ্যোক্তাকে প্রশিক্ষিত করেছে। প্রকল্পের বাকী অংশগ্রহণকারীদের জন্য প্রশিক্ষণ কার্যক্রম পরবর্তীতেও চলমান থাকবে বলে আয়োজকরা জানান। প্রশিক্ষণ পরিচালনা ও সহায়তায় ছিলেন বাংলাদেশ ইন্সপায়ার্ড প্রকল্পের টাঙ্গাইল ইউনিট এর ম্যানেজার মো. এমদাদুল হক ও টেকনিক্যাল অফিসার মো. তাছলিম আনোয়ার।
সমাপনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, তরঙ্গ ঢাকা বিভাগের পরিচালক উ থিং মং, তরঙ্গ ঢাকা বিভাগের ডিজাইনার রণজিৎ দাস, টাঙ্গাইল পৌর শাখা মানবাধিকার কমিশনের সভাপতি মো. রাশেদ খান মেনন (রাসেল), হাসিব ফেব্রিকসের স্বত্ত্বাধিকারী সিদ্দিক হোসেন, কারিকা ক্লাষ্টার-এর সভাপতি ও প্রশিক্ষক আমিরজাদী আমিনা খাতুন, অনামিকা ক্লাষ্টার-এর সহ-সভাপতি ও প্রশিক্ষক মারজানারা মেরী ও নিজ নিজ ক্লাষ্টারের নেত্রীগণ।
আয়োজকরা বলেন প্রশিক্ষণ থেকে নারী উদ্যোক্তারা হাতে কলমে কলা গাছের বাকল থেকে আঁশ সংগ্রহ ও প্রক্রিয়াজাত এবং উৎপাদিত আঁশ দিয়ে বিভিন্ন পণ্য তৈরির কৌশল ও দক্ষতা অর্জন করেছে। পণ্য বাজারজাতকরণ বিষয়ে ধারণা পেয়েছে। প্রশিক্ষণের মাধ্যমে ইতোমধ্যে অংশগ্রহণকারী নারীরা বিভিন্ন আকর্ষণীয় পণ্য যেমন টিস্যু বক্স, গহনার বাক্স, ওয়াল ম্যাট, ওয়াল হ্যাংগিং, কলমদানী, হ্যাট, ওয়াল পকেট, ছবির ফ্রেম, গহনা, টেবিলম্যাট, মোবাইল ব্যাগ, সাইড ব্যাগ, পুতুল পাখি, মাছ, গিটার ইত্যাদি তৈরি করছে। এসব পণ্য দ্রুত বাজারজাতকরণের পর্যায়ে আসবে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।
প্রকল্প বাস্তবায়নের শুরুতে টাঙ্গাইল সদর ও দেলদুয়ার উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় জরিপ চালিয়ে ৬০০ জন নারী উদ্যোক্তার আর্থ-সামাজিক অবস্থা নিরূপণ করা হয়। পরে ৫০০ জন নারী উদ্যোক্তা নিয়ে ১০ টি ক্লাষ্টার গঠন (গড়ে প্রতি ক্লাষ্টারে ৫০ জন) করে প্রকল্পের কার্যক্রমে সম্পৃক্ত করা হয়। প্রকল্প বাস্তবায়নে বিডব্লিউসিসিআই-এর সাথে সহযোগি সংস্থা হিসেবে কাজ করছে বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থা ব্যুরো বাংলাদেশ।

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ