টাঙ্গাইলে নিত্যপণ্যের বাজারে বাড়লো চিনি ও ডালের দাম

প্রকাশিত : ২৯ আগস্ট, ২০২১

নিত্যপণ্যের বাজারে আরেকদফা বাড়লো চিনি ও ডালের দাম। দাম বৃদ্ধির তালিকায় আরও আছে ভোজ্যতেল, আটা, পেঁয়াজ, ব্রয়লার মুরগি ও ডিম। আমদানির খবরে গত সপ্তাহে কিছুটা কমলেও এখন স্থিতিশীল রয়েছে চালের দাম। ইলিশসহ সব ধরনের মাছ বিক্রি হচ্ছে চড়া দামে। কাঁচা মরিচ বাড়তি দামে বিক্রি হলেও সবজি বিক্রি হচ্ছে আগের দামে। রোববার (২৯ আগস্ট) শহরের পার্ক বাজার, ছয়আনি বাজার, বটতলা বাজার, আমিন বাজার ঘুরে নিত্যপণ্যের দরদামের এসব তথ্য পাওয়া গেছে। এছাড়া সরকারী বাজার নিয়ন্ত্রণকারী সংস্থা টিসিবির তথ্যমতেও নিত্যপণ্যের দাম বেড়েছে।


নিত্যপণ্যের দাম কমাতে বিশেষ করে চিনি ডাল ও ভোজ্যতেলের বাজার স্থিতিশীল রাখতে সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীদের নির্দেশনা দিয়েছিল বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। ব্যবসায়ীরা প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন, চিনি ও ডালের দাম আপাতত বাড়বে না। কিন্তু সেই প্রতিশ্রুতি ভঙ্গ করে দাম বাড়ানো হয়েছে। খুচরা বাজারে প্রতিকেজি খোলা চিনি ৭৭ এবং প্যাকেট চিনি ৮০-৮২ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

গত একবছরের বেশি সময় ধরে চিনি ৬০-৬৫ টাকায় বিক্রি হয়েছে। হঠাৎ করে চিনির দাম বেড়ে যাওয়ায় বাজারে কিছুটা অস্বস্তি বিরাজ করছে। চিনির পাশাপাশি বেড়েছে ডালের দাম। দাম বেড়ে প্রতিকেজি মসুর ডাল বড় দানা ৭৫-৮০, মসুর ডাল মাঝারি দানা ৯০-১০০, মসুর ডাল ছোট দানা ১১০-১২৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে খুচরা বাজারে।

এছাড়া দাম বেড়ে প্রতিকেজি দেশী পেঁয়াজ ৪৫-৫০, পেঁয়াজ আমদানি ৪০-৪৫, প্রতিকেজি ব্রয়লার মুরগি ১৩০-১৪০, দেশী মুরগি প্রতিকেজি ৪০০-৫০০, প্রতিহালী ফার্মের মুরগি ৩৫-৩৭ টাকায় বিক্রি করা হচ্ছে। প্রতিলিটারে ৪ টাকা দাম বেড়ে ভোজ্যতেল সয়াবিন ১২৫-১৩০ টাকা, পামওয়েল লুজ ১১৪-১২০, পামওয়েল সুপার ১১৮-১২২ টাকা, প্রতিকেজি আটায় ১ টাকা দাম বেড়ে ৩৪-৩৬ টাকায় বিক্রি হচ্ছে খুচরা বাজারে। এছাড়া আদাসহ অন্যান্য মসলাপাতিও বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে। তথ্যমতে, মাঝারি মানেরপাইজাম ও লতা চাল ৫০-৫৬ এবং স্বর্ণা ও চায়না ইরি চাল ৪৫-৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া সরু নাজিরশাইল ও মিনিকেট চাল মানভেদে আগের দামে প্রতিকেজি ৬৫-৭২ টাকায় বিক্রি হচ্ছে খুচরা বাজারে।


চালের খুচরা ব্যবসায়ীরা বলছেন, শুল্ক কমিয়ে চাল আমদানির সুযোগ দেয়ার খবরে গত সপ্তাহে কিছুটা কমলেও এখন চালের দাম স্থিতিশীল রয়েছে। তবে এইদামও বেশি। বাজারে সরবরাহ বাড়লে চালের দাম কমে আসবে। এ প্রসঙ্গে পার্ক বাজারের চাল ব্যবসায়ীরা বলেন, গত সপ্তাহে মোটা মাঝারিমানের চালের দাম কেজিতে ১-২ টাকা কমলেও এখন স্থিতিশীল রয়েছে বাজার।

বাজারে চালের সরবরাহ বাড়াতে হবে। এছাড়া সবজির দাম স্থিতিশীল থাকলেও কাঁচা মরিচ বিক্রি হচ্ছে আগের মতো বাড়তি দামে। প্রতিকেজি মরিচ জাতভেদে ১৬০-১৮০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। তবে চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে সব ধরনের মাছের দাম। ভরা মৌসুমে বাজারে ইলিশ মাছের সরবরাহ বাড়ছে না। ক্রেতারা মুখিয়ে আছেন ভাদ্রমাসের ইলিশ কিনতে। কিন্তু দাম এতো বেশি যে, ইলিশের গায়ে হাত দিতে পারছে না সাধারণ ভোক্তারা। প্রতিকেজি ওজনের প্রতিটি মাছ বিক্রি হচ্ছে ১৩শ’ থেকে দেড় হাজার টাকা এবং ৬০০-৭০০ গ্রামের প্রতিটি মাছ কেজি হিসেব ১ হাজার থেকে ১২শ’ টাকায় বিক্রি হচ্ছে খুচরা বাজারে। অন্যদিকে ইলিশ মাছের পাশাপাশি বাজারে বেড়ে গেছে সব ধরনের দেশী মাছের দাম।

সাপ্তাহিক গণবিপ্লব
এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ। কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে অনুমতি নিয়ে নিন।