টাঙ্গাইলে পাঁচ পৌরসভায় ৫ নৌকার জয়

প্রকাশিত : ৩১ জানুয়ারী, ২০২১

টাঙ্গাইলে সংঘর্ষ, কেন্দ্র দখল, ভোট বর্জন ও ধাওয়া- পাল্টা ধাওয়ার মধ্য দিয়ে পাঁচটি পৌরসভার ভোট গ্রহন সম্পন্ন হয়। ৫ পৌরসভায় আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন।

শনিবার (৩০ জানুয়ারি) সংঘর্ষ, কেন্দ্র দখল, ভোট বর্জন ও ধাওয়া- পাল্টা ধাওয়ার মধ্য দিয়ে পাঁচটি পৌরসভায় ভোট গ্রহণ সম্পন্ন হয়। বিজয়ী হয় আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী পাঁচজন।

তারা হলেন, টাঙ্গাইল পৌরসভায় আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী টাঙ্গাইল পৌরসভায় এসএম সিরাজুল হক আলমগীর, সখীপুর পৌরসভায় আবু হানিফ আজাদ, মির্জাপুর পৌরসভায় সালমা আক্তার শিমুল, ভূঞাপুর পৌরসভায় মাসুদুল হক মাসুদ এবং মধুপুর পৌরসভায় সিদ্দিক হোসেন খান।

টাঙ্গাইলের সিনিয়র জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও পৌরসভা নির্বাচনে রিটার্নিং অফিসার এএইচএম কামরুল হাসান জানান, টাঙ্গাইল পৌরসভায় আওয়ামী লীগের প্রার্থী এসএম সিরাজুল হক আলমগীর প্রথমবার নির্বাচিত হয়েছেন।

সখীপুর পৌরসভায় আওয়ামী লীগের প্রার্থী বীর মুক্তিযোদ্ধা আবু হানিফ আজাদ টানা তৃতীয়বারের মতো মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন।

তিনি নৌকা প্রতীকে ৭ হাজার ৮৩৩ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক মেয়র সানোয়ার হোসেন সজিব জগ প্রতীকে পেয়েছেন ৭ হাজার ৫৪৪ ভোট।
২৮৯ ভোটের ব্যবধানে আওয়ামী লীগের প্রার্থী বীর মুক্তিযোদ্ধা আবু হানিফ আজাদ বেসরকারিভাবে মেয়র নির্বাচিত হন।

মির্জাপুরে নৌকা প্রতীকের সালমা আক্তার শিমুল ১২ হাজার ৪৭৮ ভোট পেয়ে দ্বিতীয় বারের মতো মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন।

তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি প্রার্থী শফিকুল ইসলাম(ধানের শীষ) ২ হাজার ৯২৪ ভোট পেয়েছেন।
ভূঞাপুরে নৌকা প্রতীকে আওয়ামীলীগ প্রার্থী বিপুল ভোটের ব্যবধানে নির্বাচিত হয়ে মেয়র পদে হ্যাট্রিক করেছেন বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. মাসুদুল হক মাসুদ।

তিনি ৯ হাজার ৪১৩ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি মনোনীত ধানের শীষ প্রতীকের জাহাঙ্গীর হোসেন পেয়েছেন ৪ হাজার ৪১৩ ভোট।
এ পৌরসভায় আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী(স্বতন্ত্র) প্রার্থী আব্দুস সাত্তার জগ প্রতীকে পেয়েছে ৩ হাজার ৭০১ ভোট।

মধুপুর পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী সিদ্দিক হোসেন খান। নৌকা প্রতীক নিয়ে তিনি পেয়েছেন ২৫ হাজার ৯৯২ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি মনোনীত প্রার্থী ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে আব্দুল লতিফ পান্না পেয়েছেন ১ হাজার ৬৫১ ভোট।

পাঁচটি পৌরসভা নির্বাচনে ১৩ জন মেয়র প্রার্থী, ২২১ জন সাধারণ কাউন্সিলর প্রার্থী এবং ৭৯ জন সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন।

এদিকে টাঙ্গাইল পৌরসভায় ভোটগ্রহন চলাকালে দুপুর ১২টার দিকে ১৮ নম্বর ওয়ার্ডের সাবালিয়া আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে ও প্রায় একই সময় ছয়আনী বাজার বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে কাউন্সিলর প্রার্থীদের মধ্যে জ্বাল ভোট দেওয়াকে কেন্দ্র করে দফায় দফায় ধাওয়া- পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এ দুটি পৃথক ঘটনায় ৭জন আহত হয়েছে বলে জানাগেছে।

অপরদিকে, টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর পৌরসভা নির্বাচনে দুপুর ১টার দিকে ১ নম্বর ওয়ার্ডের দুই কাউন্সিলর প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে অন্তত ১৫ জন আহত হন। গুরুতর আহতাবস্থায় ৫ জনকে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপসতালে পাঠানো হয়েছে। তাদের মধ্যে ৩ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

আহতদের মধ্যে ৮জনের নাম জানাগেছে। তারা হচ্ছেন- কমলা বেগম(৫০), আব্দুর রহমান(২৬), ময়েন উদ্দিন(৫০), খায়রুল ইসলাম(২০), দুলাল হোসেন৩৫), আছাদুল ইসলাম(২০), সূচী বেগম(৫৫), সহিতন(৫০)। আহতদের মধ্যে ৩ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, ১ নম্বর ওয়ার্ডের কুতুবপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে কাউন্সিলর প্রার্থী জাহিদ হোসেনের(উটপাখি) সমর্থকরা জ্বাল ভোট দেওয়াকে কেন্দ্র করে অপর প্রার্থী আনোয়ার হোসেনের(পানির বোতল) সমর্থকদের উপর চড়াও হয়।

এ সময় জাহিদ হোসেনের সমর্থক কুতুবপুর গ্রামের আহেজ উদ্দিনের দুই ছেলে রহম আলী(৩৮) ও বাবু মিয়া ওরফে পিস্তল বাবু(৩৫) রামদা নিয়ে ভোট কেন্দ্রে হামলা চালায়।

দুপুর আড়াই টার দিকে ভূঞাপুর পৌরসভার ২ নম্বর ওয়ার্ডের টেপিবাড়ী উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্র দখল করার অভিযোগে উপজেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক তাহেরুল ইসলাম তোতাকে পুলিশ আটক করে।

এর আগে দুপুরের দিকে ওই কেন্দ্রে নৌকার স্লোগান দিয়ে একদল সমর্থক কেন্দ্রে ঢুকে নৌকা প্রতীকে জ্বাল ভোট দিতে থাকে।

এ সময় স্থানীয় জনতা বিক্ষুব্ধ হয়ে তাহেরুল ইসলাম তোতাকে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করে। এক পর্যায়ে পুলিশ তাকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়।

টেপিবাড়ি উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রের প্রিসাইডিং অফিসার এটিএম সামসুজ্জামান জানান, একদল লোক নৌকার মিছিল নিয়ে কেন্দ্রে প্রবেশ করে নৌকা প্রতীকে জ্বাল ভোট দিতে থাকে। পরে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী আসার পর তারা পালিয়ে যায়।

এসময় নৌকা প্রতীকে সিল মারা কিছু ব্যালট পেপার পাওয়া গেছে। তবে কি পরিমান ব্যালটে জ্বাল সিল মারা হয়েছে সে তথ্য তিনি জানাতে পারেননি।

টাঙ্গাইলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার কাজী নুসরাত এদীব লুনা বলেন, নির্বাচনী কেন্দ্রে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির অভিযোগে উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

অপরদিকে, মধুপুর পৌরসভা নির্বাচনে কেন্দ্র দখল ও এজেণ্ট বের করে দেওয়ার অভিযোগে বিএনপির মেয়র প্রার্থী মো. আ. লতিফ পান্না প্রার্থীতা প্রত্যাহার ও ভোট বর্জন করে পূনরায় নির্বাচনের দাবি জানান।
শনিবার দুপুরে মধুপুর পৌরসভা নির্বাচনের রিটার্নিং অফিসারের কাছে তিনি এ বিষয়ে লিখিত আবেদন করেন।

শনিবার দুপুর আড়াইটায় বিএনপি মনোনীত ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী আ. লতিফ পান্না মধুপুর উপজেলা বিএনপি কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে নির্বাচন বর্জনের ওই ঘোষণা দেন।

তিনি লিখিত অভিযোগে জানান, দামপাড়া ও মধুপুর সরকারি কলেজ কেন্দ্র বাদে অবশিষ্ট ১৫টি কেন্দ্রে নৌকা প্রতীকের পুলিং এজেন্টরা সাধারণ ভোটারদের নিকট থেকে ব্যালট পেপার ছিনিয়ে নিয়ে নৌকা প্রতীকে সিল দেন।

কেন্দ্রের প্রিসাইডিং অফিসারদের কাছে অভিযোগ দিয়েও এসবের কোন প্রতিকার না পেয়ে বিএনপির হাইকমান্ডের সাথে পরামর্শক্রমে রিটার্নিং অফিসার বরাবর প্রহসনের নির্বাচন বাতিল এবং পুন:নির্বাচন অনুষ্ঠানের দাবি জানান তিনি।

সাপ্তাহিক গণবিপ্লব
এইমাত্র পাওয়া