টাঙ্গাইলে বন্যার্তদের মাঝে খাবার বিতরণ

প্রকাশিত : ১১ সেপ্টেম্বর, ২০২১

টাঙ্গাইলের বিস্তীর্ণ চরাঞ্চলের দুই ইউনিয়নের বানভাসি মানুষের মাঝে রান্না করা খিচুরি মাংশ বিতরণ করা হয়েছে। শুক্র ও শনিবার ( ১০ ও ১১ সেপ্টেম্বর ) সদর উপজেলার কাকুয়া ও হুগড়া ইউনিয়নের প্রায় ৮ হাজার মানুষের মাঝে ব্যক্তিগত অর্থায়নে রান্না করা খাবার বিতরণ করেন টাঙ্গাইলের কৃতি সন্তান, হুগড়া ইউনিয়নের প্রানপ্রিয় গরীবের বন্ধু ও শিক্ষানুরাগী হিসেবে পরিচিত দানবীর এ কে আজাদ।

জানা যায়, এ কে আজাদ টাঙ্গাইলের হুগড়া ইউনিয়নের সন্তান। তিনি দীর্ঘদিন যাবত সপরিবার ঢাকাতে থাকেন। কয়েক বছর ধরে সাধ্যমত নিজস্ব অর্থায়নে সদর উপজেলার বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ এলাকায় ত্রাণ বিতরণ, আর্থিক সহযোগিতা, অসচ্ছল পরিবারকে অটো রিক্সা, পঙ্গুদের জন্য দোকান ও দরিদ্র মানুষের জন্য ফ্রি চিকিৎসার ব্যবস্থা করে চলছেন। তার এই উদার মহানুভবতার বহু দৃষ্টান্ত রয়েছে অতিতে।

খাবার নিতে আসা হোসেন আলী, ইয়াকুব মিয়া, তমসের মিয়া ও হেকমত আলী জানান, আজাদ ভাই আমাদের সব সময় সাহায্য সহযোগিতা করে চলছে। আমাদের এলাকায় পা নেই এমন পঙ্গু মানুষদের দোকান করে দিয়ে মালামাল উঠিয়ে দিয়েছে। দরিদ্র অসুস্থ্য মানুষের জন্য ফ্রী চিকিৎসার ব্যবস্থা করে দেন তিনি। কয়েক অসচ্ছল পরিবারের আয় রোজগারের জন্য অটো রিক্সা কিনে দিয়েছে।

খাবার নিতে আসা মজনু আলী জানান, বন্যার কারণে পরিবারের সদস্য নিয়ে তাঁর চলা খুব কষ্ট হয়েছে। প্রতিবছর যমুনার ভাঙন আর বন্যায় দুর্ভোগ পোহাতে হয়। আমরা সব সময় আজাদ ভাইয়ের কাছ থেকে সাহায্য সহযোগিতা পেয়ে থাকি। আজ আমরা খাবার পেয়ে অনেক খুশি হয়েছি।

এসময় উপস্থিত ছিনেল, টাঙ্গাইল সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও হুগড়া ইউপি চেয়ারম্যান তোফাজ্জল হোসেন (তোফা), সাপ্তাহিক গণবিপ্লব পত্রিকার প্রকাশক ও সম্পাদক মো. মোশারফ হোসেন সিদ্দিকী (ঝিন্টু), এশিয়া হসপিটালের পরিচালক আলতাব হোসাইন সিদ্দিকী, ল্যাব ইনচার্জ মো. শাহ্‌ জামাল, শামীম আল হাসান (জুয়েল)সহ এলাকার সর্বস্তরের গণ্যমাণ্য ব্যক্তিগণ।

সাপ্তাহিক গণবিপ্লব
এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ। কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে অনুমতি নিয়ে নিন।