টাঙ্গাইলে বিদ্যালয় ভবন নির্মাণ প্রক্রিয়া বন্ধে পায়তারার অভিযোগ

প্রকাশিত : ২৮ অক্টোবর, ২০১৯

টাঙ্গাইল সদর ২৮ অক্টোবর : টাঙ্গাইল সদর উপজেলার তারটিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সম্পন্ন হওয়া বহুতল ভবন নির্মাণ প্রক্রিয়া বন্ধে পায়তারা চালানোর অভিযোগ উঠেছে। বিদ্যালয় মাঠ বিনষ্টের তথ্য উপস্থাপন ও সম্প্রতি গড়ে তোলা একটি ভবন ভাঙ্গার মাধ্যমে স্বার্থ রক্ষায় তৎপর হয়ে উঠেছেন স্থানীয় কতিপয় ব্যক্তি। যদিও স্থানীয় অভিভাবক মহল, বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদসহ শিক্ষক-শিক্ষিকার সম্মতি স্বত্তেও সৃষ্ট এ পরিস্থিতিতে বিদ্যালয়ের বহুতল ভবন নির্মাণ নিয়ে দেখা দিয়েছে সংশয়। এর ফলে ঝুঁকির মধ্যে দাঁড়িয়ে শিক্ষার্থীদের শ্রেণীকক্ষ সঙ্কট নিরসন কার্যক্রম।

জানা যায়, ১৯০৫ সালে সদর উপজেলার তারটিয়া ভাতকুড়া মৌজায় উননব্বই (৮৯) শতাংশ জমির উপর স্থাপিত হয় তারটিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। শুরুতে বিদ্যালয়টির শ্রেণীকক্ষ ও শিক্ষার্থী সঙ্কট থাকলেও বর্তমানে এর শিক্ষার্থী সংখ্যা ৩৪৬জন। বিদ্যালয়ে মানসম্মত শিক্ষার প্রয়োজন মেটাতে ১৯৮৮ সালে প্রথম একতলা বিশিষ্ট একটি শ্রেণীকক্ষ নির্মিত হয়। পরবর্তী ২০০৯ সালে দুইতলা ফাউন্ডেশনে আরেকটি একতলা ভবন নির্মিত হয় বিদ্যালয়ের দক্ষিণ প্রান্তে। তবে ক্রমানুসারে শিক্ষার্থী বৃদ্ধি পাওয়ায় বর্তমানে চরম শ্রেণীকক্ষ সঙ্কটে দাঁড়িয়ে বিদ্যালয়টি। এ সঙ্কট নিরসনে স্থানীয় সংসদ সদস্য ও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের হস্তক্ষেপ কামনা করাসহ বিদ্যালয়ে পশ্চিমাংশে একটি বহুতল ভবন নির্মাণের দাবি জানান বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। এরই ধারাবাহিকতায় চলতি বছর এ বিদ্যালয়ে বহুতল ভবন নির্মাণ কার্যক্রম সম্পন্ন শেষে গত ২ অক্টোবর ৮৬ লাখ টাকা ব্যয়ে এ ভবন নির্মাণের টেন্ডার জমার কাজ শেষ করেছে উপজেলা স্থানীয় সরকার প্রকৌশল বিভাগ (এলজিইডি)।

এ নিয়ে তারটিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদ সভাপতি আবুল কালাম আজাদ এর অভিযোগ, বিদ্যালয়ের পিছনে স্থানীয় কতিপয় এক প্রভাবশালী ব্যক্তির বাড়ি থাকাসহ বিদ্যালয়ের ভিতর দিয়ে যাতায়াতের সৃষ্ট পথ নিয়ে জটিলতা দেখা দেয়ায় তিনি বিদ্যালয়ের পশ্চিমাংশে বহুতল ভবন নির্মাণে জটিলতা সৃষ্টি করাসহ দক্ষিণাংশে সম্প্রতি নির্মিত একতলা ভবনটি ভেঙ্গে নতুন ভবন নির্মাণের পায়তারা চালাচ্ছেন। নগ্ন এ প্রন্থা হাসিলে তিনি স্থানীয় প্রভাবশালী বিভিন্ন ব্যক্তির নাম উল্লেখ ও লিখিত অভিযোগ দিয়ে নানা সমস্যা সৃষ্টিতে নেমেছেন। তবে বিদ্যালয়ের পূর্বের কোন ভবন ভেঙ্গে নতুন ভবন নির্মাণ কাজ হলে বিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের পাঠদান কার্যক্রম চরমভাবে ব্যাহত হবে। এছাড়াও বিদ্যালয়ের পশ্চিমাংশের ফাঁকা জমিতে নতুন ভবন নির্মাণ হলেও হাঁটা চলার জন্য প্রায় ৬ ফুট পথ থাকবে বলেও জানান তিনি। এ ক্ষেত্রে বিদ্যালয়ের পিছনে বসবাসকারীদের হাঁটাচলার কোন সমস্যা হবেনা বলেও জানান তিনি।

টাঙ্গাইল সদর উপজেলা স্থানীয় সরকার প্রকৌশল বিভাগ (এলজিইডি) প্রকৌশলী ফারুখ হোসেন গণবিপ্লবকে জানান, ৮৬ লাখ টাকা ব্যয়ে তারটিয়া বিদ্যালয়ে চারতলা বিশিষ্ট একটি ভবন নির্মাণের টেন্ডার জমা কাজ সম্পন্ন হয়েছে। আগামী দুই মাসের মধ্যে এ বিদ্যালয়ে ভবন নির্মাণের কাজ শুরু হবে। যদিও এই মুহুর্তে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ও স্থানীয়দের মাঝে ভবন নির্মাণের স্থান নিয়ে কিছুটা মত বিরোধ সৃষ্টি হয়েছে, তবে দ্রুতই এ সমস্যার সমাধান করা হবেও বলে জানান তিনি।

এ প্রসঙ্গে টাঙ্গাইল সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শাহজাহান আনছারী গণবিপ্লবকে জানান, তারটিয়া বিদ্যালয়ের ফাঁকা স্থানে নতুন বহুতল ভবন নির্মাণ নিয়ে ওই এলাকার স্থানীয় একটি মহল অপতৎপরতা শুরু করেছেন। তবে বিদ্যালয়ের ফাঁকা জমির উপরই ভবনটি নির্মাণ হবে বলেও জানান তিনি।

সাপ্তাহিক গণবিপ্লব
এইমাত্র পাওয়া