টাঙ্গাইলে স্ত্রী হত্যার দায়ে পুলিশ সদস্যসহ দুইজনের ফাঁসির দন্ডাদেশ

প্রকাশিত : ৫ আগস্ট, ২০১৯
মো. আল-আমিন খান
চীফ রিপোর্টার

টাঙ্গাইলে যৌতুকের দাবিতে স্ত্রীকে হত্যার দায়ে পুলিশ সদস্য স্বামী আব্দুল আলীম ও তার বন্ধু শামীমের মৃত্যুদন্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত।

সোমবার (০৫ আগষ্ট) বেলা ১২টায় টাঙ্গাইলের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুনালের হাকিম খালেদা ইয়াসমিন এ রায় ঘোষণা করেন। এছাড়াও উভয়কে এক লাখ টাকা করে জরিমানাও করা হয়েছে।

এ রায়ে মৃত্যুদন্ডাদেশ প্রাপ্তরা হলেন, কালিহাতী উপজেলার হিন্নাইপাড়া গ্রামের আবু হানিফের ছেলে পুলিশ কনস্টেবল আব্দুল আলীম ওরফে সুমন (৩২) এবং তার বন্ধু একই গ্রামের আবুল হাশেমের ছেলে শামীম আল মামুন (২৯)।

বিষয়টি নিশ্চিত টাঙ্গাইলের আদালত পরিদর্শক তানবীর আহম্মেদ গণবিপ্লবকে জানান, টাঙ্গাইলে যৌতুকের দাবিতে স্ত্রীকে হত্যার দায়ে পুলিশ সদস্য স্বামী আব্দুল আলীম ও তার বন্ধু শামীমের মৃত্যুদন্ডের আদেশ দিয়েছেন টাঙ্গাইলের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুনালের আদালতের হাকিম খালেদা ইয়াসমিন। উভয়কে এক লাখ টাকা করে জরিমানাও করা হয়েছে। দন্ডিত পুলিশ সদস্য আব্দুল আলীম শিল্প পুলিশে কর্মরত অবস্থায় ২০১১ সালের ৬ মে টাঙ্গাইল সদর উপজেলার ফলিয়ারঘোনা গ্রামের সুলতান আহমেদের মেয়ে সুমি আক্তারকে বিয়ে করেন। বিয়ের সময় যৌতুক হিসেবে পাঁচ লাখ টাকা দেয়ার কথা ছিল। কিন্তু সুমির বাবা তিন লাখ টাকা দিলেও বাকি ছিল দুই লাখ টাকা। যৌতুকের বাকী টাকার জন্য আব্দুল আলীম প্রায়ই স্ত্রীকে নির্যাতন করতেন। একপর্যায়ে স্ত্রী সুমি আক্তারকে বাবার বাড়ি পাঠিয়ে দেন। এরপর ২০১২ সালের ২০ এপ্রিল বঙ্গবন্ধু সেতু এলাকায় ঘুরতে যাওয়ার কথা বলে আলীম তাঁর স্ত্রীকে শশুর বাড়ি থেকে নিয়ে যায়। পরে তাঁকে ঢাকার তুরাগ থানার বেড়িবাঁধ এলাকায় নিয়ে বন্ধু শামীম আল মামুুনের সহায়তায় গলায় ওড়না পেঁচিয়ে হত্যা করেন।

পরে আব্দুল আলীম গ্রেফতার হওয়ার পর হত্যার কথা স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দী দেন। এ ঘটনায় নিহত সুমির মা বাদী হয়ে টাঙ্গাইল মডেল থানায় দন্ডিত দুইজনের নামে মামলা দায়ের করেন।

ঘটনার পর আব্দুল আলীম পুলিশ কনস্টেবল পদ থেকে বরখাস্ত হয়ে কারাগারে আছেন। সোমবার রায় ঘোষনার পর দুইজনকে টাঙ্গাইল জেলা কারাগারে পাঠানো হয়।

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ