প্রকাশকাল: ২০ জুন, ২০১৮
মধুপুরের ১৩টি গ্রামকে ‘সংরক্ষিত বন ঘোষনা’ বাতিলের দাবি

টাঙ্গাইল প্রেসক্লাবে বিভিন্ন আদিবাসি সংগঠনের সংবাদ সম্মেলন

স্টাফ রিপোর্টারঃ

টাঙ্গাইলের মধুপুর গড় এলাকার আদিবাসিদের ১৩টি গ্রামকে ‘সংরক্ষিত বন ঘোষনা’ বাতিলের দাবি জানিয়েছে আদিবাসিদের বিভিন্ন সংগঠন। বুধবার টাঙ্গাইল প্রেসক্লাবে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি জানানো হয়।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে বৃহত্তর ময়মনসিংহ আদিবাসি উন্নয়ন পরিষদের সভাপতি অজয় এ মৃ জানান, বন ও পরিবেশ মন্ত্রনালয় ২০১৬ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারি এক গেজেটের মাধ্যমে মধুপুর গড় এলাকার নয় হাজার ১৪৫ একর জমিকে চূড়ান্তভাবে সংরক্ষিত বনভূমি ঘোষনা করেছে। এই জমিগুলোর মধ্যেই আদিবাসিদের ১৩টি গ্রাম পড়েছে। গ্রামগুলো হচ্ছে গায়রা, জলই, টেলকি, সাধুপাড়া, জালাবাদা, কাকড়াগুনি, বেদুরিয়া, জয়নাগাছা, বন্দরিয়া, কেজাই, পনামারি ও গাছাবাড়ি। এসব গ্রামের এক হাজার ৮৩টি আদিবাসি পরিবারের ছয় হাজার ৭৭জনের বসতবাড়ি এবং তাদের আড়াই হাজার একর চাষাবাদের জমি রয়েছে। এ গ্রামগুলোতে স্মরনাতিত কাল থেকে বসবাসকারি আদিবাসিরা উচ্ছেদ আতংকে দিন কাটাচ্ছে।

সংবাদ সম্মেলনে আরো জানানো হয় তারা জানতে পেরেছেন এই বনে ‘ইকো টুরিজম’ এলাকা ঘোষনার পরিকল্পনা গ্রহন করেছে বন বিভাগ। এটা বাস্তবায়িত হলে তাদের ভূমি হারানোর আশংকা রয়েছে। এ ধরনের পরিকল্পনা বাতিলসহ আদিবাসিদের রেকর্ডভুক্ত জমি নিয়মিত খাজনা নেয়া চালু করার দাবি জানানো হয়।

সংবাদ সম্মেলনে জয়েনশাহী আদিবাসি উন্নয়ন পরিষদের সভাপতি ইউজিন নকরেক, সাধারণ সম্পাদক থমাস চাম্বুগং, মধুপুর ট্রাইবাল ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশনের সভাপতি উইলিয়াম দাজেল, সাধারণ সম্পাদক রঞ্জিত নকরেক, আচিক মিচিক সোসাইটির নির্বাহী পরিচালক সুলেখা ¤্রং, মধুপুর উপজেলা পরিষদের সাবেক নারী ভাইস চেয়ারম্যান যষ্ঠিনা নকরেক, বাংলাদেশ আদিবাসি সচেতন নাগরিক কমিটির সভাপতি হেরিদ সিমসাং, গাড়ো ছাত্র সংগঠনের সাবেক সভাপতি শ্যামল মানকিন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এ রকম আরোও খবর

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ