টাঙ্গাইল মেডিকেলে মানবতা ডুকরে কাঁদছে! কর্তারা উদাসীন

প্রকাশিত : ১ মে, ২০১৬
গণবিপ্লব
রিপোর্ট

বুলবুল মল্লিকঃ

টাঙ্গাইল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের দো'তলায় সিঁড়ির পাশে  শনিবার(৩০ এপ্রিল) এভাবেই মানবতা লুটুপুটো খাচ্ছিল।

টাঙ্গাইল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের দো’তলায় সিঁড়ির পাশে শনিবার(৩০ এপ্রিল) এভাবেই মানবতা লুটুপুটো খাচ্ছিল।

টাঙ্গাইল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মানবতা ডুকরে ডুকরে কাঁদছে। দ্বিতীয় তলার সিঁড়ির পাশে অগ্নিদগ্ধ অজ্ঞাত ব্যক্তি বিনা পরিচর্যা-চিকিৎসায় মৃত্যুর প্রহর গুনছে। গণবিপ্লব প্রতিনিধির তৎপরতায় একটি নোংরা বিছানায় তার জয়গা হলেও কেনি পরিচর্যা বা নার্সিং এবং চিকিৎসা সেবা মিলছেনা। উপরন্তু ফটো সাংবাদিক কর্তব্যরত চিকিৎসকের রোষানলে পড়ে নাজেহাল হয়েছেন।

টাঙ্গাইল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ডিউটিরত মেডিকেল অ্যাসিসটেন্ট নুর আলম(নুর আলামিন)। যিনি সাংবাদিকদের সঙ্গে অসৌজন্য আচরণ করেন।

টাঙ্গাইল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ডিউটিরত মেডিকেল অফিসার ডা. নুর আলম(নুর আমিন)। যিনি সাংবাদিকদের সঙ্গে অসৌজন্য আচরণ করেন।

জানাগেছে, গত শনিবার(৩০ এপ্রিল) টাঙ্গাইলের জনপ্রিয় সাপ্তাহিক গণবিপ্লব’র কালিহাতী প্রতিনিধি কামরুল হাসান ব্যক্তিগত প্রয়োজনে টাঙ্গাইল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে যান। এ সময় তিনি দো’তলা পাড়ি দিয়ে তৃতীয় তলায় যাওয়ার সময় দ্বিতীয় তলার সিঁড়ির কাছে উৎকট গন্ধ পান। ফিরে তাকিয়ে দেখতে পান সিঁড়ির পাশে পড়ে থাকা অজ্ঞাত এক অগ্নিদগ্ধ ব্যক্তির শরীর থেকে ওই উৎকট গন্ধ বেরুচ্ছে। তৎক্ষণাৎ তিনি চিকিৎসকদের সাথে এ বিষয়ে কথা বললে অজ্ঞাত ব্যক্তিকে ৬নং ওয়ার্ডে একটি নোংরা বেডে তাকে নেয়া হয়। পরদিন রোববার(১ মে) গণবিপ্লব’র ফটো সাংবাদিক ওই ব্যক্তির ছবি তুলতে ও বিস্তারিত জানতে হাসপাতালে গিয়ে কর্তব্যরত মেডিকেল অফিসার ডা. নুর আলম(নুর আমিন)-এর রোষানলে পড়েন। নুর আলম ফটো সাংবাদিক আল আমিন খানকে ছবি তুলতে বাধা দেন এবং রোগির তথ্য দিতে অস্বীকার করেন। এ সময় ফটো সাংবাদিক আল আমিন খান মেডিকেল অফিসার ডা. নুর আলমকে জানান, গণবিপ্লব’র সম্পাদক মো. মোশারফ হোসেন সিদ্দিকী ওই অসহায় অজ্ঞাত ব্যক্তির চিকিৎসার দায়িত্ব নিতে চান। এ কথা শুনেই তেলে-বেগুনে জ্বলে উঠেন মেডিকেল অফিসার ডা. নুর আলম। তিনি অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ করেন এবং আপত্তিকর কথা-বার্তা বলেন। তিনি দম্ভোক্তি করে বলেন, হাসপাতালে কি চিকিৎসা হয়না? অন্য মানুষের সহায়তায় হাসপাতালে চিকিৎসা হয়না। এরপর তিনি ফটো সাংবাদিককে হাসপাতাল থেকে বের করে দেন।
৬নং ওয়ার্ডের কর্তব্যরত নার্স আসমীন জানান, ১০-১৫ দিন আগে অজ্ঞাতানামা ব্যক্তি অগ্নিদগ্ধ ওই ব্যক্তিকে জরুরি বিভাগে রেখে চলে যায়। তার শরীরের প্রায় ৭০ শতাংশ জ্বলসে গেছে। তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় স্থানান্তর করা হয়েছে। তার নিকটাত্মীয় খুঁজে না পাওয়ায় স্থানান্তর পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করা সম্ভব হয়নি। তিনি জানান, সম্ভবত যেহেতু ওনাকে অন্যত্র স্থানান্তরপত্র দেয়া হয়েছে সেজন্যই বেডে রাখা হয়নি। হাসপাতালের আরএমও বা উর্ধতন কোন কর্মকর্তা এবং পুলিশকেও বিষয়টি জানানো হয়নি বলে জানান তিনি।

সাংবাদিকদের তৎপরতায় অগ্নিদগ্ধ অজ্ঞাত ব্যক্তিটিকে ৬ নং ওয়ার্ডের একটি নোংরা বিছানায় নেয়া হয়েছে। সেখানেও সেবা ও চিকিৎসা পাচ্ছেনা আসহায় ব্যক্তিটি।

সাংবাদিকদের তৎপরতায় অগ্নিদগ্ধ অজ্ঞাত ব্যক্তিটিকে ৬ নং ওয়ার্ডের একটি নোংরা বিছানায় নেয়া হয়েছে। সেখানেও সেবা ও চিকিৎসা পাচ্ছেনা আসহায় ব্যক্তিটি।

সাংবাদিকদের তৎপরতায় ৬নং ওয়ার্ডের একটি বিছানায় ওই অসহায় অগ্নিদগ্ধ ব্যক্তির স্থান হলেও কোন প্রকার পরিচর্যা বা নার্সিং সেবা এবং কোন প্রকার চিকিৎসা তিনি পাচ্ছেন না। ফলে তার পোড়া শরীর থেকে দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে, শরীরে মাছি ভন ভন করছে- মৃতের ন্যায় বিছানায় পড়ে আছে অসহায় ব্যক্তিটি। দুর্গন্ধের কারণে কোন নার্স ও চিকিৎসক তার কাছে যাচ্ছেনা। কোন কোন নার্স বোতলে পানি ভরে দূর থেকে ছিটকে দিয়ে পানি পান করানোর ব্যর্থ চেষ্টা করছেন। এতে পানি পড়ে বিছানা ভিজে স্যাত্সেতে হয়ে গেছে- সে এক অমানবিক পরিবেশ।
হাসপাতালে অসুস্থ আত্মীয় বা রোগি দেখতে আসা কায়সার, মজনু, শামীম সহ অনেকেই জানায়, অগ্নিদগ্ধ ব্যক্তিটির শরীর দিয়ে প্রচন্ড দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে। এতে আশপাশের রোগিদের সমস্যা হলেও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের কোন খেয়াল নেই। প্রায় সারা শরীরে আগুনের দগ্দগে ঘা নিয়ে অসহায় ব্যক্তিটি কাঁদতেও পারছেনা। অথচ হাসপাতালের চিকিৎসক ও কর্মকর্তারা রেফার্ড বা স্থানান্তরপত্র লিখে রেখে দায়িত্ব এড়ানোর অপচেষ্টা করছে। তারা আবেগাপ্লুত হয়ে জানান, হাসপাতালে একজন রোগি সিঁড়ির পাশে পড়ে রয়েছেন, চিকিৎসার অভাবে তার শরীরে পচন ধরছে, অথচ মানবতাবদী চিকিৎসকরা প্রাইভেট ক্লিনিকে টাকার কড়কড়ে বান্ডিলের ঘ্রাণ নিচ্ছেন; বাহ্, কি স্যেলুকাস! কি স্পর্শকাতর হাসপাতালের চিকিৎসকদের মানবতাবোধ। অসহায় অগ্নিদগ্ধ ওই ব্যক্তির যে কোন ধরণের অসুস্থতায় টাঙ্গাইল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের কর্মকর্তা ও চিকিৎসকদের সম্পূর্ণভাবে দায়ী করছেন তারা।

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ