টাঙ্গাইল সোনালী ব্যাংকের দুই লোকসানী শাখাকে লাভজনক

প্রকাশিত : ৭ জুলাই, ২০১৯
নিজস্ব প্রতিবেদক
টাঙ্গাইল

‘টাঙ্গাইলের সোনালী ব্যাংক লি. দুটি লোকসানী শাখা লাভজনক করার অভাবনীয় সাফল্য দেখিয়েছেন ব্যবস্থাপক খন্দকার রাইসুল আমিন।’ এর গত সম্প্রতি টাঙ্গাইলের সোনালী ব্যাংক লি. ভিক্টোরিয়া রোড শাখায় ব্যবস্থাপক হিসেবে যোগদানের মাত্র ৯ মাসেই ৪ বছরের লোকসানের কলঙ্ক কাটিয়ে লাভজনক প্রতিষ্ঠানে রূপান্তর করে তুলতে সক্ষম হয়েছেন তিনি।

এর আগে তিন বছর ব্যবস্থাপকের দায়িত্ব পালন করে সোনালী ব্যাংক টাঙ্গাইল বাজার শাখাকেও লাভজনক করে তোলেন তিনি। ক্ষতির দিক নির্ণয়, ব্যাংক পরিচালনায় অভিনব কৌশল, আন্তরিকতা আর মান সম্মত গ্রাহক সেবার মাধ্যমে যে কোন ক্ষতিগ্রস্থ ব্যাংককে লাভজনক করে তোলা সম্ভব এমন বিশ্বাসকে পুজি করেই এ সাফল্য অর্জন করলেন নবাগত এই ব্যাংক ব্যবস্থাপক। তবে গত চার বছরের ক্ষতিগ্রস্থ ব্যাংককে এত দ্রুত সময়ে লাভজনক প্রতিষ্ঠানে রূপান্তরের বিশেষ কৌশল স্বরূপ তিনি গ্রহণ করেন বিনিয়োগ বৃদ্ধি আর শ্রেণীকৃত ঋণ আদায় কার্যক্রম। এছাড়াও ব্যাংকের এ শাখাটিকে ভবিষ্যতেও লাভজনক রাখতে তিনি ইতোমধ্যেই শুরু করেছেন সরকারি চালান ফরম জমা কার্যক্রম।

ব্যাংক সূত্রে জানা যায়, ১৯৮৩ সালের ২ অক্টোবর টাঙ্গাইল পৌর শহরের ভিক্টোরিয়া রোডের বড়কালিবাড়ী ব্রীজ সংলগ্ন ব্যক্তি মালিকাধীন ইসলাম মার্কেটের ভাড়াকৃত দ্বিতীয় তলায় প্রতিষ্ঠিত হয় সোনালী ব্যাংক ভিক্টোরিয়া রোড শাখা। প্রতিষ্ঠার পর থেকে ব্যাংকের এই শাখাটি স্বাভাবিক ভাবে পরিচালিত হলেও গত ২০১৫ থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত ধারাবাহিক ৪ বছর ক্ষতির দায় টানতে থাকে সোনালী ব্যাংকের এই ভিক্টোরিয়া শাখাটি। গত ৪ বছরের মধ্যে ব্যাংকের এই শাখাটির ক্ষতির পরিমান ছিল ২০১৫ সালে ২০ লাখ, ২০১৬ সালে ২০ লাখ ৩১ হাজার, ২০১৭সালে ৯২ লাখ টাকা।


তবে ২০১৮ সালের ২৯ আগস্ট টাঙ্গাইলের সোনালী ব্যাংক ভিক্টোরিয়া রোড শাখায় ব্যবস্থাপক হিসেবে যোগদান করেন মো. রাইসুল আমিন। অকান্ত পরিশ্রম, মেধা মনন আর নিষ্ঠাকে কাজে লাগিয়ে যোগদানের মাত্র ৯ মাসেই ব্যাংকের সর্বশেষ ১ কোটি ১ লাখ টাকার ক্ষতি দায়গ্রস্থতা কাটিয়ে ৯ লাখ ১৩ হাজার টাকার লাভজনক প্রতিষ্ঠানে পরিনত করতে সক্ষম হয়েছেন। তার এই সাফল্যে গত ৬ মাসে ব্যাংকের শ্রেণীকৃত ঋণ আদায় হয়েছে ৪১ লাখ ৪১ হাজার টাকা আর ৬ মাসে বিনিয়োগ বৃদ্ধি পেয়েছে ৩ কোটি টাকা। এছাড়াও শাখা ব্যাংকটিতে স্থায়ী লাভের ক্ষেত্র হিসেবে যোগ হয়েছে সরকারি চালান ফরম জমা কার্যক্রম। যা থেকে বছরে প্রায় ৬০ লাখ টাকার অতিরিক্ত মুনাফা বৃদ্ধির সম্ভাবনা দেখছে এই শাখা ব্যাংকটি।

ব্যাংকের দুটি শাখাকে লাভজনক করে তোলার সাফল্য প্রসঙ্গে নবাগত ব্যবস্থাপক খন্দকার রাইসুল আমিন গণবিপ্লবকে বলেন, ক্ষতির দিক নির্ণয়, ব্যাংক পরিচালনার কৌশল, আন্তরিকতা আর মান সম্মত গ্রাহক সেবাই ছিল তার এই সাফল্য অর্জনের অন্যতম বৈশিষ্ট্য। তিনি ব্যাংকের এই সাফল্যের জন্য গ্রাহক ও তার সহকর্মীদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন।

উল্লেখ, টাঙ্গাইল পৌর শহরের আশেকপুর এলাকার খন্দকার আহমাদুল আমীনের ছোট ছেলে সোনালী ব্যাংক টাঙ্গাইল ভিক্টোরিয়া রোড শাখার বর্তমান ব্যবস্থাপক খন্দকার রাইসুল আমিন। ২০০৪ সালের ২৬ জুন সোনালী ব্যাংক লিঃ সিলেট দর্গাগেট কর্পোরেট শাখায় অফিসার হিসেবে যোগদানের মধ্য দিয়ে শুরু করেন চাকুরী জীবন। পরবর্তিতে বদলি জনিত সুবিধায় সোনালী ব্যাংক লিঃ টাঙ্গাইল প্রিন্সিপাল কার্যালয়ে প্রিন্সিপাল অফিসার হিসেবে যোগদান করেন তিনি। বর্তমানে তিনি ব্যাংকের সিনিয়র প্রিন্সিপাল অফিসার ও সোনালী ব্যাংক টাঙ্গাইল ভিক্টোরিয়া রোড শাখায় ব্যবস্থাপক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। তবে সিনিয়র প্রিন্সিপাল অফিসার পদে পদনতি পেয়েই ২০১৫ সালে ২৮ জুলাই টাঙ্গাইল সোনালী ব্যাংকের অপর ক্ষতিগ্রস্থ শাখা সোনালী ব্যাংক টাঙ্গাইল বাজার শাখার ১ কোটি ৮০ লাখ টাকার ক্ষতির দায় কাটিয়ে ৩২ লাখ টাকা লাভজনক প্রতিষ্ঠানে উন্নিত করার সাফল্য দেখিয়েছেন।

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ