টাঙ্গাইল-৪ আসনে পাল্টে গেছে চালচিত্র ॥ প্রচারে এগিয়ে গামছা ঃঃ মানির মান আল্লাহ রাখেন

প্রকাশিত : ২৪ অক্টোবর, ২০১৫
গণবিপ্লব
রিপোর্ট

Tangail-4. Election-1111.গণবিপ্লব রিপোর্টঃ টাঙ্গাইল-৪(কালিহাতী) আসনের উপ-নির্বাচনে কৃষক শ্রমিক জনতালীগের সভাপতি বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী বীরোত্তম’র মনোননয়নপত্র হাইকোর্টের নির্দেশে বৈধ হওয়ায় পাল্টে গেছে নির্বাচনী এলাকার হাওয়া। আওয়ামীলীগ প্রার্থী হাসান ইমাম খান সোহেল হাজারির একচ্ছত্র পদচারণা কিছুটা হলেও স্তিমিত হয়ে পড়েছে। দ্বিধান্বিত হয়ে পড়েছে লতিফ সিদ্দিকীর সমর্থক ও আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীরা। কৃষক শ্রমিক জনতালীগের নেতাকর্মীরা গামছা প্রতিক নিয়ে বেশ জোরেশোরে প্রচারণায় নেমেছে। দিনরাত একাধিক মাইকে প্রচারণা চালানোর পাশাপাশি তারা বাড়ি বাড়ি বৈঠক করা শুরু করেছেন। হঠাৎ করেই নির্বাচনী এলাকার মানুষও কিছুটা দম নেয়ার মতো প্রকাশ্যে আওয়ামীলীগ বা কৃষক শ্রমিক জনতালীগের পক্ষে-বিপক্ষে আলোচনায় অংশ নেয়া থেকে বিরত রয়েছেন।
এ আসনটি আওয়ামী সমর্থক অধুষ্যিত হলেও মহান স্বাধীনতা যুদ্ধ ও ’৭৫ পরবর্তী সময়ে বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী বীরউত্তমের প্রতিবাদী ভূমিকাকেও গভীর শ্রদ্ধায় রেখেছেন স্বাধীনতার স্বপরে এ এলাকাবাসী। এরই কৃতজ্ঞতাবোধের পাশাপাশি প্রতিদ্বন্দ্বিতায় আওয়ামীলীগ থেকে তার সমতুল্য কোন প্রার্থী না থাকায় এ আসনে বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকীর বিজয় অনেকটাই নিশ্চিত হয়ে উঠেছে বলে স্থানীয় ভোটাররা মনে করেন।
সরেজমিনে জানাগেছে, সাবেক মন্ত্রী আবদুল লতিফ সিদ্দিকীর ছেড়ে দেয়া এ আসনের উপ-নির্বাচনে বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী বড় ভাইয়ের ইমেজকে নিজের পক্ষে টানার চেষ্টা করছেন। বঙ্গবীরের বাড়িও এ উপজেলায়ই, এজন্য অনেকেই তার পরিচিত। এ সুযোগ কাজে লাগিয়ে বিভিন্ন স্থানে গণসংযোগে তিনি লতিফ সিদ্দিকীর অনুসারিদের কাছে টানার চেষ্টায় তাদের বাড়ি বাড়ি যাচ্ছেন। তাছাড়া বিএনপি ঘরাণার লোকজন দলীয় নির্দেশনা না থাকায় কাদের সিদ্দিকীর পক্ষে অবস্থান নিয়ে প্রচারণায় অংশ নিচ্ছেন।
বিএনপি ও আওয়ামীলীগ বিরোধী ঘরাণার লোকদের বক্তব্য হচ্ছে, টাঙ্গাইল-৪(কালিহাতী) আসনটি বরাবরই বিজ্ঞ পার্লমেন্টারিয়ানদের আসন, এখানে কোন অপরিপক্ক-অর্বাচিন বালককে(হাসান ইমাম খান সোহেল হাজারি) নির্বাচিত হতে দেয়া যাবেনা। এ আসনে যেহেতু কাদের সিদ্দিকী ছাড়া কোন অভিজ্ঞ প্রার্থী নাই সেহেতু তাকেই তারা সমর্থন করেন। তারা মনে করেন, ‘মানির মান আল্লাহ রাখেন’, তাই কাদের সিদ্দিকী হাইকোর্টের নির্দেশে নির্বাচনে অংশ নেয়ার সুযোগ পেয়েছেন-এটা ওনার প্রাথমিক বিজয়। সরকার কোন কারচুপি না করলে আগামী ১০ নভেম্বর কাদের সিদ্দিকী বিপুল ভোটে বিজয়ী হবেন বলে তারা দাবি করেন।
অপরদিকে, কাদের সিদ্দিকীর মনোনয়নপত্র নির্বাচন কমিশন কর্তৃক বাতিলের পর স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতাকর্মীরা বাধ্য হয়ে দলীয় প্রার্থী হাসান ইমাম খান সোহেল হাজারির সাথে প্রচারণায় নেমেছিলেন। মন থেকে সমর্থন করতে না পারলেও দলীয় প্রার্থী ছাড়া বিকল্প না থাকায় লতিফ সিদ্দিকীর অনুসারিরাও সোহেল হারির সাথে যুক্ত হয়েছিলেন। কিন্তু কাদের সিদ্দিকী নির্বাচনী মাঠে ফিরে আসায় অনেকেই ঝিমিয়ে পড়েছেন। কেউ কেউ দলীয় প্রার্থীর সাথে প্রচারণায় অংশ নিলেও স্বতস্ফূর্ততা কমে গেছে। ফলে উপজেলার আওয়ামীলীগের তৃণমূল নেতাকর্মীরা সিদ্ধান্তহীনতায় ভূগছে।
মহান মুক্তিযুদ্ধ ও আওয়ামী রাজনীতির সূতিকাগার খ্যাত টাঙ্গাইল-৪(কালিহাতী) আসনের কালিহাতী সদরের রহমত, মজিবর, ছাতিহাটির কুদরত, বল্লার রহিম, জোকারচরের মোতালেবসহ নাম প্রকাশ না করা শর্তে অনেকেই জানান, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ থেকে মনোনিত প্রার্থী হাসান ইমাম খান সোহেল হাজারি গত দু’বছর যাবৎ কালিহাতীর রাজনীতিতে অবাঞ্চিত ও এলাকায় জনপ্রিয়তা শূণ্য। ফলে গত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে দলের মনোনয়ন বঞ্চিত হন তিনি। টাঙ্গাইল-৪(কালিহাতী) আসনে বিতর্কিত এই প্রার্থী মনোনয়ন পাওয়ায় চরম হতাশ হয়েছেন সর্বস্তরের জন সাধারণ।
এ সময় তারা আরো জানান, মনোনয়ন পাওয়ার পর থেকে এখন পর্যন্ত তিনি নির্বাচনী এলাকার অনেক স্থানেই অবস্থান বা প্রবেশ করতে পারেন নাই। কৃষক শ্রমিক জনতালীগের প্রতিষ্ঠাতা বঙ্গবীর আবদুল কাদের সিদ্দিকী বীর উত্তম-এর মতো এ আসনের হেভিওয়েট প্রার্থীর প্রতিদ্বন্দ্বিতা বা গ্রহণযোগ্যতায় বিশাল ফারাক রয়েছে তেমন প্রার্থীকে গ্রহণযোগ্য বলেও মনে করছেন না স্বাধীনতার স্বপরে এলাকাবাসী।
এলাকার নানা শ্রেণি-পেশার লোকদের সাথে কথা বলে জানাগেছে, আওয়ামীলীগ যদি বর্তমান উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি প্রবীণ এবং গ্রহণযোগ্য আওয়ামী রাজনীতিক মো. মোজহারুল ইসলাম তালুকদারকে এ আসনটিতে মনোনয়ন দিলে কাদের সিদ্দিকীর সাথে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের সম্ভাবনা ছিল। এখন সে সম্ভাবনাও নেই।
কালিহাতী উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আনসার আলী বিকম জানান, কালিহাতীর নির্বাচনী মাঠ আওয়ামী লীগের দখলে। এ আসনটির সর্বস্তরের সাধারণ মানুষ স্বাধীনতার স্বপরে অংশীদার, আর আওয়ামীলীগ স্বাধীনতার পরে দল। তাই এ দলের প্রার্থীকেই তারা সমর্থন দেবে বলেই মনে করছেন তিনি।
কালিহাতী উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি মো. মোজহারুল ইসলাম তালুকদার জানান, আওয়ামীলীগের মনোনয়ন যেহেতু হাসান ইমাম খান সোহেল হাজারি পেয়েছেন তাই তার পইে দলীয় নেতাকর্মীরা নির্বাচনী মাঠে কাজ করবেন। কাদের সিদ্দিকী যত বড় ও প্রভাবশালী নেতাই হোক না কেন আওয়ামী প্রার্থীর কাছে তার পরাজয় হবে বলে মন্তব্য করেন তিনি।
প্রকাশ, গত ১১ অক্টোবর মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ দিন পর্যন্ত মোট ১০ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র দাখিল করেন। গত ১৩ অক্টোবর যাচাই-বাছাই শেষে চারজনের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়। মোট ছয়জন প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বৈধ হিসেবে গ্রহণ করা হয়। প্রত্যাহারের পর প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থী রয়েছেন চার জন। আগামী ১০ নভেম্বর ওই আসনে ভোট গ্রহন করা হবে।
উল্লেখ্য, টাঙ্গাইল-৪(কালিহাতী) আসনের সাংসদ প্রাজ্ঞ রাজনীতিক আবদুল লতিফ সিদ্দিকী নিউইয়র্কে এক সভায় আপত্তিকর মন্তব্য করে মন্ত্রীত্ব হারান, দলের প্রেসিডিয়াম ও সদস্য পদ থেকে বহিস্কৃত হন। সর্বশেষ গত ১ সেপ্টেম্বর জাতীয় সংসদ থেকে সেচ্ছায় পদত্যাগ করায় আসনটি শূণ্য ঘোষণা করা হয়।

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ