তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন যথাযথ বাস্তবায়ন করুন

প্রকাশিত : ৬ মার্চ, ২০১৬
গণবিপ্লব অনলাইন
ডেস্ক রিপোর্ট

ধূমপানের হাত থেকে মানুষকে রক্ষা করতে হলে তামাক নিয়ন্ত্রণের বিষয়টি সন্দেহাতীতভাবেই প্রাসঙ্গিক। আর এটা বলার অপেক্ষা রাখে না যে, নানা সময়েই এ বিষয়টি নিয়ে বিভিন্ন ধরনের উদ্যোগও গ্রহণ করা হয়েছে। কিন্তু বাস্তবতা হলো রোধ হয়নি তামাক উৎপান কিংবা বিপণন। আর পাবলিক প্লেসসহ যত্রতত্রও ধূমপানের বিষয়টি বন্ধ হয়নি। যা সার্বিক অর্থেই উৎকণ্ঠাজনক বলেই আমরা বিবেচনা করতে চাই।
সম্প্রতি পত্রপত্রিকায় প্রকাশিত খবরের মাধ্যমে জানা যায় যে, তামাকজাত পণ্যের উৎপাদন ও প্রক্রিয়াজাতকরণের লাগাম টানতে কৃষকদের ভর্তুকি এবং ব্যবসায়ীদের লাইসেন্স বন্ধ করাসহ কয়েকটি নির্দেশনা দিয়ে হাইকোর্টের ১৬ বছর আগের রায়টি বহাল রাখা হয়েছে। মূলত হাইকোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষের করা আপিল মঙ্গলবার(১ মার্চ) খারিজ করে দেন প্রধান বিচারপতি এসকে সিনহা নেতৃত্বাধীন ৫ সদস্যের আপিল বেঞ্চ। আর আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে শুনানিতে থাকা ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল একরামুল হক টুটুল বলেছেন, আপিল খারিজ করে দিয়ে আপিল বিভাগ বলেছে, হাইকোর্টের দেয়া ৬ দফা নির্দেশনার সঙ্গে আরো কিছু নির্দেশনা দেবে।
আমরা বলতে চাই, তামাক নিয়ন্ত্রণের ক্ষেত্রে নির্দেশনাগুলোর যেন যথাযথভাবে বাস্তবায়ন হয় সেদিকে দৃষ্টি দিতে হবে। কেননা এমন অভিযোগ আছে যে, অনেক ক্ষেত্রেই নির্দেশনা থাকলেও বাস্তবে তার সুষ্ঠু প্রতিফলন ঘটে না। এ ক্ষেত্রে প্রতিটি নির্দেশনার সুষ্ঠু বাস্তবায়নে সংশ্লিষ্টদের কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করা আবশ্যক বলেই আমরা মনে করি। মনে রাখতে হবে. যেখানে কৃষকরা তামাকজাত পণ্য উৎপাদন করে লাভবান হচ্ছে, সেখানে যদি তামাক উৎপাদনের লাগাম টানতে হয় তবে অবশ্যই কৃষকদের ভর্তুকির বিষয়টি নিশ্চিত করার বিকল্প থাকতে পারে না। একই সঙ্গে ব্যবসায়ীদের লাইসেন্স প্রদানের বিষয়টিও আমলে নিতে হবে। হঠাৎ করে বন্ধ করা কিংবা যথাযথ প্রক্রিয়া অনুসরণ না করে তামাক উৎপাদন নিয়ন্ত্রণ করলে তা সুখকর হবে না বলেই মনে করা যায়। ফলে আদালতের নির্দেশনা মোতাবেক ভর্তুকির মতো বিষয়গুলোসহ সার্বিক বিষয়গুলোকে বিবেচনা করে এবং নির্দেশনার সুষ্ঠু বাস্তবায়নের লক্ষ্যে পদক্ষেপ নিতে হবে।
এটা মনে রাখা জরুরি, কৃষকদের ভর্তুকি নিশ্চিত হলে তারা তামাকজাত দ্রব্য উৎপাদনে নিরুৎসাহিত হতে পারে এমন সম্ভাবনা প্রবল। এছাড়া তামাকজাত দ্রব্য প্রক্রিয়াজাতকরণের লাইসেন্স বন্ধ করা এবং এই বিষয়ে নিরুৎসাহিত করতেও উদ্যোগী হতে হবে। তবে সবচেয়ে বেশি জরুরি হলো, সচেতনতার জন্য সতর্কতামূলক নির্দেশনা গণমাধ্যমে প্রচার ও প্রমোশনাল ভয়েস বন্ধে ব্যবস্থা নেয়ার মতো বিষয়গুলো। যা আদালতের নির্দেশনাতেও আছে। এটা মনে রাখা দরকার, এর আগেও পাবলিক প্লেসে ধূমপান না করা, জরিমানা আদায় করার মতো বিষয়গুলো এলেও তা কয়েকদিন পর আবারো থমকে গেছে। এ ক্ষেত্রে আমরা বলতে চাই, নির্দেশনা তখনই সফলতা আনবে যখন তা সুষ্ঠুভাবে কার্যকর হবে।
সর্বোপরি আমরা বলতে চাই, বাংলাদেশ জনসংখ্যাবহুল একটি দেশ। বিভিন্ন ক্ষেত্রে দেশ ক্রমাগত এগিয়ে যাচ্ছে এটাও সত্য। কিন্তু এখনো এই বিপুল জনসংখ্যার জনস্বাস্থ্য নিশ্চিত করা একটি চ্যালেঞ্জ। আর তা নিশ্চিত করতে হলে ধূমপানের মতো বিষয় থেকে মানুষকে রক্ষা করতে হবে। আর তার জন্য যে জনসচেতনতার বিষয়টি অত্যন্ত প্রাসঙ্গিক তা বলার অপেক্ষা রাখে না। একই সঙ্গে এটাও অবশ্যই মনে রাখতে হবে যে, তামাকজাত পণ্যর সঙ্গে দেশের অনেক মানুষের কর্মসংস্থানের বিষয়টিও জড়িত। ফলে তামাক নিয়ন্ত্রণের ক্ষেত্রে এই বিষয়গুলোকেও আমলে নেয়া অপরিহার্য। কৃষকের ভর্তুকি, লাইসেন্স প্রদানসহ সার্বিক বিষয়গুলোকে বিবেচনা করেই তামাকজাত পণ্যের উৎপাদন ও প্রক্রিয়াজাতকরণের লাগাম টানতে পদক্ষেপ গ্রহণ করা যাবে বলে আমাদের প্রত্যাশা।

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ